সান্তাহার পৌর নির্বাচনে দুই প্রার্থীর পাল্টাপাল্টি অভিযোগ

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১২, ২০২১; সময়: ২:৫৫ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, আদমদীঘি : বগুড়ার আদমদীঘির সান্তাহার পৌরসভা নির্বাচনে নৌকা ও ধানের শীষ প্রার্থীর নির্বাচনী ক্যাম্প ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় দুই প্রার্থী দুই দফায় সিনিয়র জেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং অফিসার বরাবর পাল্টাপাল্টি ৪টি অভিযোগ করেছেন। গত সোমবার নৌকার নির্বাচনী ক্যাম্প পুরে ফেলায় লিখিত অভিযোগ করেন আওয়ামীলীগ প্রার্থী আশরাফুল ইসলাম মন্টু। এরআগে রবিবার দুপুরে ৪টি ক্যাম্প ভাঙচুরের ঘটনায় অভিযোগ করেন বিএনপির মনোনীত প্রার্থী তোফাজ্জল হোসেন ভুট্টু।

তাদের দায়ের করা অভিযোগে জানাযায়, সান্তাহার পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ড বশিপুর গ্রামে রাতের আধাঁরে নৌকার নির্বাচনী অফিস (ক্যাম্প) ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করেছে বিএনপির লোকজন। এতে ওই অফিসের কাপড়, পোস্টার, খুটি পুরে গেছে। এঘটনায় আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা মার্কার প্রার্থী আশরাফুল ইসলাম মন্টু লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। এদিকে ধানের শীষের ৪টি নির্বাচনী ক্যাম্প ভাঙচুর ও অফিস বন্ধ করতে হুমকি দিয়েছে বলে রবিবার দুপুরে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী তোফাজ্জল হোসেন ভুট্টুও পাল্টা অভিযোগ করেছেন।

আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা মার্কার প্রার্থী আশরাফুল ইসলাম মন্টু জানান, নৌকার জনপ্রিয়তায় ঈষান্বিত হয়ে অফিস ভাঙচুর ও আগুন দিয়েছে বিএনপির লোকজন। এর আগেও গত ৩ জানুয়ারী নৌকার ক্যাম্পে হামলা, ভাঙচুর ও পোষ্টার ছেঁড়ার কারনে বিএনপির প্রার্থী তোফাজ্জল হোসেন ভুট্টুসহ ১৬জনের নামে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছিলো। এবারের ঘটনায়ও সোমবার বিএনপির লোকজনের বিরুদ্ধে ফের অভিযোগ করা হয়েছে এবং অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।

বিএনপির মনোনীত প্রার্থী তোফাজ্জল হোসেন ভুট্টু বলেন, পোস্টার ছেড়া, ক্যাম্প ভাঙচুর ঘটনায় পহেলা জানুয়ারী ও রবিবার দুপুরে পরপর দুইবার নৌকার প্রার্থী আশরাফুল ইসলাম মন্টু ও তার ছেলেসহ বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। সুষ্ঠু নির্বাচন যেন না হয় এজন্য শুরু থেকেই প্রতিপক্ষ নৌকার প্রার্থী নানা ধরনের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য তিনি অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানান।

সহকারি রিটার্নিং কর্মকর্তা ও আদমদীঘি উপজেলা নির্বাচন অফিসার আব্দুর রশিদ পাল্টা পাল্টি অভিযোগ দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, অভিযোগ গ্রহনের পর জেলা নির্বাচন অফিসারের কাছে সেগুলো পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। এব্যপারে তারাই পরবর্তী পদক্ষেপ নিবেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে