জয়পুরহাটে মা-ছেলে মিলে ঠেকালেন ট্রেন দুর্ঘটনা

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ২৭, ২০২০; সময়: ৮:১২ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, জয়পুরহাট : জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার খাসবাগুরী এলাকায় পঞ্চগড় থেকে ঢাকা গামী দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেনটি থামিয়ে শত শত ট্রেনযাত্রীর প্রাণ বাঁচালো কিশোর সাজিদ হোসেন নামে এক কিশোর।

সেই সাথে এক ভয়াবহ দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেল কোটি টাকার মহামূল্যবান ট্রেনটি। রবিবার বেলা ১ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

জেলার পাঁচবিবি উপজেলার খাসবাগুরী গ্রামের আনোয়ার হোসেনের ও সহিদা বেগমের ছেলে কিশোর সাজিদ হোসেন (১৫)। সাজিদ পাঁচবিবি উপজেলার একটি বেসরকারি স্কুলের দশম শ্রেনীর ছাত্র।
সাজিদের সহপাঠি সজিব, মোজাম্মেল হকসহ এলাবাসীরা জানান, সাজিদের মা সহিদা বেগম বাড়ির পার্শবর্তী রেল লাইন পাড় হচ্ছিলেন। এ সময় তিনি একটি রেল লাইনে ফাটল দেখে সাথে সাথে তিনি লাঠিতে লাল গেঞ্জি লাগিয়ে ছেলে সাজিদকে তা উড়াতে বলেন। পরে সাজিদ লাল গেঞ্জি উড়িয়ে থামিয়ে দেন ঢাকা গামী আন্তঃনগর দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেনটি। এতে বড় ধরনের দুর্ঘটনার হাত থেকে রক্ষা পায় ট্রেনে থাকা শতশত যাত্রী। এই মহৎ কাজে সাজিদকে তাৎক্ষনিক অভিনন্দন জানিয়েছে এলাকাবাসী। সেই সাথে জনগুরুত্বপূর্ণ এই যোগাযোগ ব্যবস্থারও আধুনিক করণের দাবী জানান এলাকাবাসী ।

সাজিদ হোসেন বলেন, মায়ের নির্দেশে যাত্রীদের প্রাণ ও ট্রেন বাঁচাতেই লাল গেঞ্জি নিয়ে রেল লাইনে দাঁড়িয়েছিলাম, ট্রেন আসা দেখে লাঠিতে লাগানো ওই লাল গেঞ্জি উড়ালে যখন ট্রেন থামল, তখন ভিষণ ভয় পেয়েছিলাম। তারপর যখন যাত্রী, ট্রেন চালক ও এলাকার অনেক মানুষ এসে খুব সাবাস দিল তখন কি যে ভালো লাগল তা আর বোঝাতে পারব না, সব চেয়ে বড় কথা, দুর্ঘটনার হাত থেকে শত শত যাত্রীসহ ট্রেনটিকে রক্ষা করতে পারায় নিজেকে ধন্য মনে করছি।

রেল লাইন মেরামত কর্মচারী (কি-ম্যান) রায়হান হোসেন বলেন, সাজিদের ট্রেন থামানোর পর অফিস কর্মকর্তাদের নির্দেশে ঘটনাস্থলে এসে রেল লাইনের ফাটল জোড়া লাগানো হয়েছে। এতে প্রায় এক ঘন্টা পর রেল চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে।

জয়পুরহাট ষ্টেশন মাষ্টার হাবিবুর রহমান জানান, লাল গেঞ্জি উড়িয়ে সাজিদ ট্রেন থামানোর কারণে একটি মারাত্মক ট্রেন দুর্ঘটনার হাত থেকে এ যাত্রায় রক্ষা পাওয়া গেল।

  • 326
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে