নাটোরে আরএমওর দুই স্বজনের কাছে ৬০৪ পিস সরকারী ঔষধ উদ্ধার

প্রকাশিত: জুন ৩, ২০২০; সময়: ৫:০৯ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, নাটোর : নাটোরে হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক আমিনুল ইসলামের কক্ষে তার দুই আত্মীয়ের কাছ থেকে বেশ কিছু হাসপাতালের চিকিৎসার জন্য সরবরাহকৃত কৃত ঔষধ উদ্ধার করা হয়েছে। সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শরিফুল ইসলাম রমজানের মাধ্যমে ঔষধগুলি উদ্ধার করা হয়।

অভিযোগ রয়েছে এই ঔষধগুলো তার ওই দুই আত্মীয়কে ডাঃ আমিনুল ইসলাম দিয়েছিলেন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ঔষধগুলি জব্দ করেছেন। হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ আসনারুল হক জানান, বিষয়টি তদন্ত করা হবে।

জানা যায়, বুধবার বেলা দেড়টার দিকে আরএমও ডাঃ আমিনুল ইসলামের কাছে তার মামাত ভাই গুরুদাসপুর উপজেলার নাজিরপুরের আহমেদ অলীর ছেলে শফিকুল ইসলাম স্বপন ও শফিকুলের ভায়রা নাটোর সদর উপজেলার জেলার বড়-হরিশপুর কান্দির নাজিম উদ্দিনের ছেলে জাহের উদ্দিন আসেন। এসময় ডাঃ আমিনুল ইসলাম তাদের কাছে ৬০০ পিস ঔষধ ও ৪টি ক্রিম প্রদান করেন।

প্রত্যক্ষদর্শী নাটোর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শরিফুল ইসলাম রমজান জানান, তিনি চিকিৎসার প্রয়োজনে আমিনুল ইসলামের কক্ষে ঢুকেন। এসময় ভিতর থেকে দরজা বন্ধ ছিল। তিনি দরজা ঠেলে ভিতরে ঢুকে দেখেন জাহের তার ব্যাগে বেশ কিচু ঔষধ ঢোকাচ্ছেন। এসময় শরিফুল ইসলাম রমজান এগুলো কিসের ঔষধ জানতে চাইলে তারা সদুত্তর দিতে পারেননি।

তখন বিষয়টি তিনি হাসপাতালের পরিচালক আসসারুল হক ও নাটোরের সিভিল সার্জন ও উপস্থিত অন্যান্য চিকিৎসকদের জানানো হলে দেখা যায় ঔষধগুলো নাটোর হাসাপাতালের রোগীদের চিকিৎসার জন্য সরবরাহ করা। তাক্ষনিকভাবে তাদর কাছ থেকে ঔষধগুলো জব্দ করা হয়।

জব্দকৃত ঔষধের মধ্যে রয়েছে ইসোরাল ৬০পিস, সলবিয়ন-৪০পিস, ওপি ক্যাপসল ৮০পিস, কট্রিম ১৬০ পিস এমোক্স ৪০ পিস, প্যারাসিটামল ১০০ পিস, সিপ্রোসিন ২০ পিস, সিট্রিজিন ২০ পিস, ভিটামিন বি কমপ্লেক্স ৬০ পিস, এসিলোফিকাল২০ পিস এবং জেন্টামাইসিন ক্রিম ৪টি।

এ বিষয়ে নাটোর হাসপাতালের ফার্মাসিস্ট রেবেকা সুলতানা জানান, এই ঔষধগুলো তিনি দেননি।

আরএমও আমিনুল ইসলাম জানান, শফিকুলের হাত কেটে যাওয়ায় মাত্র ৪টি ক্রিম ঔষধ দিয়েছি। বাকী ঐষধগুলোর বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না। জাহের উদ্দিনের কাছে কিভাবে ঔষধগুলো এলো সে বিষয়ে তিনি কোন সদুত্তর দিতে পারেননি।

এ বিষয়ে নাটোর সদর হাসপাতালের পরিচারক আনসারুল হক জানান, ঔষধগুরো জব্দ করা হয়েছে। জব্দকৃত দু’তিন প্রকারের ঔষধ হাসপাতালে বর্তমানে স্টকে নেই। আমা ধারণা এই ঔষধগুরো চিকিৎসার নামে জমা করে রাখা হয়েছিল। তদন্ত শেষে প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে।

নাটোরের সিভিল সার্জন ডাঃ কাজী মিজানুর রহমান জানান, বিষয়টি তদন্ত করার জন্য ডাঃ আনসারুল হককে বলা হয়েছে।

  • 344
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও খবর

  • নলডাঙ্গার ভারপ্রাপ্ত মেয়র সড়ক দূর্ঘটনায় আহত
  • নাটোরে গরুর ধাক্কায় বিকল হলো আন্তনগর ট্রেন
  • মান্দা উপজেলা চেয়ারম্যানের মৃত্যুতে আ.লীগের শোকসভা
  • সুজানগরে করোনা প্রতিরোধে হ্যান্ডওয়াশ বেসিন উদ্বোধন
  • বাগাতিপাড়ায় কলেজ শিক্ষকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার
  • সলঙ্গায় দু-পক্ষের সংঘর্ষে ইউপি সদস্য নিহত
  • বড়াইগ্রামে কৃষক নির্বাচনে উন্মুক্ত লটারী
  • ধামইরহাটে বৈদেশিক কর্মসংস্থানে দক্ষতা বিষয়ক সেমিনার
  • ভারতে ফিরতে বাংলাদেশে আটকে পড়াদের করুণ আকুতি
  • মুজিববর্ষ উপলক্ষে নওগাঁয় থানা ছাত্রলীগের বৃক্ষরপোণ
  • নিয়ামতপুরে সরকারী প্রনোদনার দাবীতে মানববন্ধন
  • পোরশায় নন এমপিও শিক্ষক কর্মচারীদের মাঝে চেক বিতরণ
  • বদলগাছীতে স্লিপের বরাদ্দের নামে ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগ
  • উখিয়ায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৩ রোহিঙ্গা নিহত
  • চাঁপাইনবাবগঞ্জে ছাত্রলীগের বৃক্ষরোপন
  • উপরে