জেএসএস কর্মীকে গুলি করে হত্যা

প্রকাশিত: মে ৮, ২০১৯; সময়: ১১:১১ am |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : বান্দরবানে সদর উপজেলায় আধিপত্য বিস্তারের জের ধরে বিনয় তঞ্চঙ্গ্যা (৩৫) নামে জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) এক কর্মীকে গুলি করে হত্যা করেছে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা। এ সময় আরেক কর্মীকে অপহরণ করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে সদরের রাজবিলা ইউনিয়নের তাইংখালীতে এ ঘটনা ঘটে। নিহত বিনয় তঞ্চঙ্গ্যার বাড়ি রাঙ্গামাটি জেলায়। তিনি তাইংখালী বাজারে মুদির ব্যবসা করতেন।

স্থানীয়রা জানান, আধিপত্য বিস্তারের দ্বন্দ্বে সদর উপজেলার রাজবিলা ইউনিয়নের তাইংখালী বাজারে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা হামলা চালায়। এ সময় পাহাড়ের আঞ্চলিক রাজনৈতিক সংগঠন জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) কর্মী বিনয় তঞ্চঙ্গ্যাকে গুলি করে হত্যা করে।

অন্যদিকে রাজবিলা ইউনিয়নের রাবার বাগানের শৈলতনপাড়া থেকে আরেক জনসংহতি সমিতির কর্মীকে অপহরণ করেছে সন্ত্রাসীরা। অপহৃতের নাম পুরাধন তঞ্চঙ্গ্যা (৩২)।

এ ঘটনায় ঘটনাস্থলসহ আশপাশের এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গেছেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। রাজবিলা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ক্যঅংপ্রু মারমা বলেন, সন্ত্রাসীদের গুলিতে একজন মারা গেছে। ঘটনাস্থলে লোকজনের ভিড়। আতঙ্ক দেখা দিয়েছে স্থানীয়দের মধ্যে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মংএ নু মারমা বলেন, মুদি দোকানদার বিনয় তঞ্চঙ্গ্যা রাতে তার দাদা শ্বশুরের বাসায় ছিলেন। সেখান থেকে সন্ত্রাসীরা ডেকে নিয়ে খুব কাছ থেকে গুলি করে হত্যা করে।

অন্যদিকে একই সময়ে ৯নং রাবার বাগান এলাকার শৈলতনপাড়া থেকে পুরাধন তঞ্চঙ্গ্যাকে অপহরণ করে নিয়ে গেছে। তবে কারা ঘটনাটি ঘটিয়েছে তা নিশ্চিত করে কেউ-ই বলতে পারছেন না।

এদিকে স্থানীয়দের দাবি, নিহত এবং অপহৃত ব্যক্তি দুজনই জনসংহতি সমিতির সক্রিয় কর্মী। তাই আধিপত্যের দ্বন্দ্বে ঘটনাটি জনসংহতি সমিতির সংস্কারপন্থী গ্রুপ ঘটিয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

তবে জনসংহতি সমিতির বান্দরবান জেলা শাখার সভাপতি উছোমং মারমা বলেন, দুজনই তাদের সক্রিয় কর্মী। আরাকান লিবারেশন আর্মি (এএলপি) সমর্থিত স্থানীয় মগ বাহিনী নামের একটি গ্রুপ এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে জানতে পেরেছি।

বান্দরবানের পুলিশ সুপার জাকির হোসেন মজুমদার জানান, খবর পাওয়ার ঘটনাস্থলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা গেছেন। অপহৃতকে উদ্ধারে অভিযান চলছে। এ ঘটনার সঙ্গে কারা জড়িত বিষয়টি এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে