নাটোরে শিশু ধর্ষণের শিকার, মামলা দায়ের

প্রকাশিত: মে ২, ২০১৯; সময়: ১:০২ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, নাটোর : নাটোরের ধরাইল গ্রামে পঞ্চম শ্রেণীর এক শিশু শিক্ষার্থী ধর্ষনের শিকার হয়েছে। এঘটনায় নাটোর সদর থানায় ওই পরিবারের পক্ষ থেকে শাজাহান আলী (৪০) নামে এক ইজিবাইক চালকের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। বুধবার রাতে ধর্ষিত শিশুর বাবা ওই মামলা দায়ের করেন। মামলাটির তদন্ত করছেন সদর থানার উপ-পরিদর্শক শাহ আলম।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরের ২২ শে ফেব্রুয়ারী সদর উপজেলার হালসা ইউনিয়নের ধরাইল গ্রামের বাসিন্দা ওই শিশুটির বাবা ও মা তাদের শিশুকন্যাকে নানীর কাছে রেখে রাজশাহীর বাঘায় ওরশ শরীফে যান। এই সুযোগে আসামী শাহজাহান আলী একই রাতে শোবার ঘরে ঢুকে নানীর মুখ চেপে ধরে তার পাশে থাকা শিশুটিকে পাশের ঘরে নিয়ে ধর্ষণ করা হয় । এ ঘটনা কাউকে জানালে শিশুটিকে হত্যারও হুমকি দেয় সে। গত ২৭শে এপ্রিল শিশুটির বাবা-মা সুপারি কুড়াতে বাড়ির বাইরে যান। সেই সুযোগে আবারো বাড়িতে প্রবেশ করে শাহজাহান আলী। এসময় জোরপূর্বক ধর্ষণ করতে গেলে শিশুটি চিৎকার করে বাড়ির বাইরে বেরিয়ে এলে পালিয়ে যায় শাহজাহান। এসময় শিশুটি তার মা-বাবার কাছে সেই রাতের ঘটনা খুলে বলে। বিষয়টি জানাজানি হলে ঘটনা ধামাচাপা দিতে শুরু হয় চাপ।

স্থানীয়রা জানায়, আর্থিক রফার মাধ্যমে পুরো বিষয়টি ধামাচাপা দিতে স্থানীয় প্রভাবশালীরা ভুক্তভোগী শিশুর পরিবার ও আসামী শাহজাহানকে নিয়ে একটি সালিশের আয়োজন করে। তবে শিশুটির পরিবার সেই আপোসে রাজী হয়নি। স্থানীয়দের মারফত পুরো বিষয়টি জেনে নাটোরের পুলিশ সুপার সাইফুল্লাহ আল মামুন শিশুটির পরিবারকে আইনী সহায়তার আশ্বাস দিয়ে পুলিশ পাঠান।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক শাহ আলম জানান, শিশুটির পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা দায়েরের পর বৃহষ্পতিবার প্রয়োজনীয় ডাক্তারী পরীক্ষার করা হচ্ছে।

পুলিশ সুপার সাইফুল্লাহ আল মামুন বলেন, ঘটনাটি মিমাংসা না হওয়ায় সালিশের দিন থেকেই আসামী শাহজাহান পলাতক রয়েছে। আসামীকে ধরতে পুলিশি অভিযান চলছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে