ডিজেলের দাম বাড়ায় বোরো চাষের উৎপাদন খরচ বেড়েছে, দুশ্চিন্তায় নওগাঁর চাষিরা

প্রকাশিত: জানুয়ারি ২৪, ২০২২; সময়: ৯:২২ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, নওগাঁ : ডিজেলের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় এবছর বেড়েছে বোরো ধান উৎপাদন খরচ। চারা রোপন থেকে শুরু করে ধান কাটাই মাড়াই পর্যন্ত গেলও বছরের তুলনায় এ বছর চার থেকে পাঁচ হাজার বেশি খরচ হবে বলে জানিয়েছেন নওগাঁর ধান চাষিরা। তেল সহ উৎপাদনে ব্যবহৃত সকল পুণ্যের দাম কমিয়ে চাষিদের প্রণোদনার আওতায় নিয়ে সহযোগিতার আহ্বান জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

গেলও বছর বোরো মৌসুমে জেলায় বিঘা প্রতি ১৪ হাজার থেকে ১৬হাজার টাকা খরচ হলেও তা বেড়ে এ বছর ২০ হাজার থেকে ২২ হাজার টাকা হবে বলে আশঙ্কা করছেন নওগাঁর বৃহতম দিঘলীবিলের ধান চাষিরা। ডিজেলের দাম বৃদ্ধির অজুহাতে আধুনিক যন্ত্রপাতির সাথে সাথে বেড়েছে দিন মজুরদেরও খরচ। তাই ধানের দাম নিয়ে কৃষকের চিন্তার যেন কোন সীমা নেই।

নওগাঁ জেলার বৃহতম বিল দিঘলী বিল। এই বিলে প্রতিবছর প্রায় ৮০০ হেক্টর জমিতে ধান উৎপাদন হয়ে থাকে। নিচু ভুমি হওয়ায় প্রতি বছর এই বিলে একবার শুধু বোরো মৌসুমে ধান উৎপাদন হয়ে থাকে। এই সময়টিতে চাষিরা ধানের চারা উৎপাদন এবং রোপন করার কাজে ব্যস্ত সময় পার করেন।

চারা তৈরী এবং রোপন কাজে সাধারণত দিন মজুরদের কাজে লাগানো হয়ে থাকে। এছাড়া ধান উৎপাদন উপযোগী জমি তৈরীতে বর্তমান সময়ের আধুনিক যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা হয়ে থাকে। তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় উভয়ের মুল্য বেড়ে গেছে বলেন জানান স্থানীয় চাষিরা।

কৃষকরা জানান- যে দিন মজুরদের গেলও বছর ৩০০-৪০০ টাকা করচে জমিতে কাজে লাগানো যেত বর্তমানে পুণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় তা এ বছরে ৫০০-৬০০ টাকা লাগছে। অপরদিকে ডিজেল তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় আধুনিক যন্ত্রপাতি (পাওয়ায়র টিলার) খরচও বেড়ে গেছে।

ফলে ধান উৎপাদন থেকে শুরু করে কাটাই মাড়াই পর্যন্ত খরচ প্রায় গেলও বছরের তুলনায় অনেকটাই বৃদ্ধি পেয়েছে। কৃষিপুন্যসহ তেলের দাম কমিয়ে বোরো ধানের উৎপাদন করচ স্বাভাবিক রাখা নতুবা বর্তমান সময়ের ধানের দামের থেকে বেশি দামে কৃষকদের কাছে থেকে ধান কেনার দাবী জানান স্থানীয় কৃষকরা।

এদিকে পাওয়ার টিলার চালক জানান- গেলও বছরে যেই মুল্যে তাঁরা জমিতে হাল চাষের কাজ করেছেন এই বছর ডিজেল তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় সেই মুল্যে করতে পারছেন না। বিগত বছরে ৬০-৬৫ টাকা লিটারে তাঁরা ডিজেল কিনে থাকলেও এ বছর তা ৮০-৮৫ টাকায় বাজার থেকে কিনছেন। তাই তাঁরা বিঘা প্রতি জমিতে ১০০-১৫০ টাকা বেশি রেটে কাজ করছেন ।

এদিকে উপ-পরিচালক কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর খামারবাড়ি, নওগাঁ কৃষিবিদ মোঃ শামসুল ওয়াদুদ জানিয়েছেন- এ বছরে জেলায় বোরো ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা ১লক্ষ ৮৫ হাজার ৮০০ শত হেক্টর জমিতে । এখন পর্যন্ত জেলায় ৪হাজার ১৫ হেক্টর জমিতে ধান রোপনের কাজ শেষ হয়েছে এবং জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত রোপণ কাজ চলবে।

এ বছর জেলায় বীজতলা উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিলো ৯হাজার ১শত ৬৫ হেক্টর যা বৃদ্ধি পেয়ে ৯ হাজার ৭শত ৭০ হেক্টর জমিতে উৎপাদিত হচ্ছে। ধানের দাম বেশি হাওয়ায় কৃষক ধান চাষে বেশি আগ্রহী হয়েছেন ফলে লক্ষমাত্রার তুলনায় বেশি বীজতলা উৎপাদিত হয়েছে। উৎপাদন খরচ বেশি হলেও ধানের দাম বেশি হওয়ায় এবং ধান উৎপাদন বেশি হওয়ার কারনে কৃষক ক্ষতিগ্রস্থ হবে না বলে জানায় জেলা কৃষিবিভাগ।

বেশি লাভের আশায় এ বছর চাষিরা চিকন জাতের ধানের চাষ বেশি করছেন । কাটারি, জিরা, বি-আর ২৮, বি-আর ২৯ সহ জিংক সমৃদ্ধ বেশি কিছু মোটা জাতের ধানও উৎপাদন করছেন চাষিরা। তাই কৃষি পুন্যের দাম বেশি হওয়ায় এক রকমের দুশ্চিন্তায় আছেন চাষিরা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে