বদলগাছীতে ১০ হাজার বিঘা জমিতে জলাবদ্ধতা

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২০; সময়: ১:০২ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, বদলগাছী : নওগাঁর বদলগাছীতে একটি খাল (ক্যানেল) অভাবে প্রায় ১০ হাজার বিঘা জমির ফসল প্রতি বছর বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে যায়। উপজেলার কোলা ইউনিয়নের কয়েকটি মাঠে বৃষ্টির পানি জমে জলাবদ্ধতার কারণে তিন ফসলি আবাদি জমি এখন এক ফসলে পরিনত হয়েছে। আর এই জলাবন্ধতা নিরসনে একটি খাল খনন ও খালের উত্তর পাশ দিয়ে ভ্যান চলাচলের রাস্তা তৈরীর দাবী জানিয়েছেন স্থানীয় এলাকাবাসীরা।

জানাযায়, উপজেলার কোলা ইউনিয়নের গয়ড়া, বনগ্রাম, শ্যামার, কেশাইল, নিরলী, গাড়াকন্দ, চকের মাঠ এবং কয়াভবানিপুর সহ কয়েকটি গ্রামের মানুষের গ্রায় ১০ হাজার বিঘা জমির রয়েছে ফসলি মাঠ। যেখানে বোরো, আমন ও সবজির আবাদ হয়ে থাকে। এই মাঠের পানি নামার কোন পথ না থাকায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়।

নকশার রেকর্ডে কয়াভবানিপুর গ্রাম থেকে ভাঙাগাড়ি পর্যন্ত প্রায় ২ হাজার ফুট দুরত্ব সরকারি রাস্তা রয়েছে। নকশায় রাস্তা থাকলেও তা বাস্তবে নেই। রাস্তার পাশের জমির মালিকরা গত ৫০-৬০ বছর থেকে সেই জমি দখলে নিয়ে চাষাবাদ করছেন। ওই রাস্তাটি দখলমুক্ত করে একটি খাল খনন করা হলে কয়েকটি মাঠের পানি বেজ্রা ব্রিজ হয়ে হাস্তা বিলের ভাঙাগাড়ি দিয়ে তুলশিগঙ্গা নদীতে গিয়ে পড়বে। এতে করে ঐ সব মাঠের জলাবদ্ধতা দুর হয়ে তিন ফসলি জমিতে পরিনত হবে। এছাড়া মাঠের ফসল ঘরে উঠানোর জন্য খালের উত্তর পাশ দিয়ে ভ্যান চলাচলের রাস্তার প্রয়োজন।

গয়ড়া গ্রামের কৃষক সোহেল বলেন, বনগ্রামের মাঠে তার প্রায় ১৮ বিঘা ফসলি জমি আছে। এরমধ্যে কয়েক বিঘা জমিতে প্রতি বছর পটল, মরিচ ও বেগুনের চাষাবাদ করেন। এবং কিছু জমিতে পাটের আবাদ করে থাকে। প্রতি বছর বৃষ্টির পানিতে এই মাঠটি প্লাবিত হয়। পানি নামার জায়গা না থাকায় তার সবজিক্ষেতগুলো ডুবে নষ্ট হয়ে যায়। এ বছর বৃষ্টির পরিমাণও বেশি। পাটের জমিতে পানি জমা হয়ে থাকায় তা নষ্ট হয়ে গেছে।

তেঁতুলিয়া গ্রামের কৃষক মিঠু, মতিউর, আলেফ উদ্দিন, বনগ্রাম গ্রামের কৃষক সারোয়ার, আসলাম সহ কয়েকজন বলেন, এক সময় মাঠগুলোতে তিনটি ফসল চাষাবাদ হতো। বৃষ্টির পর পানি নেমেও যেত। কিন্তু বিগত কয়েক বছর থেকে আর এসব মাঠের পানি ঠিকমতো নামতে পারছে না। বৃষ্টির পানির জলাবদ্ধতায় জমি ডুবে থাকায় আমন ধানের আবাদ করা সম্ভব হচ্ছে না কৃষকদের। কয়াভবানিপুর গ্রাম থেকে ভাঙাগাড়ি পর্যন্ত নকশার রাস্তাটি দখলমুক্ত করে খাল খনন করা হলে এই সব মাঠের তুলশিগঙ্গা নদীতে গিয়ে পড়বে। এতে করে পানি দ্রুত অপসারণ হবে। আবারও জমিতে তিনটি ফসল চাষাবাদ হবে। খাল খনন ও খালের পাশ দিয়ে রাস্তা তৈরীর জন্য প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন কোলা ইউনিয়নবাসী।

কোলা ইউনিয়নের ভারপাপ্ত চেয়ারম্যান শাহিনুর ইসলাম স্বপন বলেন, এলাকাবাসীর দাবীর প্রেক্ষিতে আমি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে একটি খাল খননের ব্যবস্থা করার জন্য অনুরোধ করেছিলাম । আমার কথা শুণে তিনি সরেজমিনে এসে মাঠটি পরিদর্শন করে এলাকাবাসীর সাথে কথা বলেছেন।

বদলগাছী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহা. আবু তাহির বলেন, ইতোপূর্বে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। সেখানে সরকারি একটি রাস্তা রয়েছে যা স্থানীয়রা দখল করে রেখেছেন। কয়েকদিন আগে সার্ভেয়ার পাঠিয়ে জরিপ করা হয়েছে। রাস্তার জায়গাটি ছেড়ে দিতে দখলকারীদের নোটিশ করা হবে। এরপর খাল খননের উদ্যোগ নেয়া হবে। আশা করছি শিগগিরই জলাবদ্ধতা নিরসনে পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে।

  • 28
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও খবর

  • রাসিকের পৌরকর পরিশোধে বিশেষ ছাড়
  • পুঠিয়ায় কেন্দ্রীয় নেতাদের শুভেচ্ছা জানানোকে কেন্দ্র করে ছাত্রদলের দু’গ্রুপে সংঘর্ষ
  • পেঁয়াজ আমদানিতে ৫ শতাংশ শুল্ক প্রত্যাহার
  • সিন্ডিকেট করে চালের মূল্য বাড়ানো হলে চরম মূল্য দিতে হবে ব্যবসায়ীদের: খাদ্যমন্ত্রী
  • দেশে করোনায় মোট মৃত ৪৯৩৯
  • অস্বাভাবিক বিদ্যুৎ বিলের প্রতিবাদের মানববন্ধনে চড়াও নেসকো
  • সোনামসজিদে চালুর পরদিন ফের পেঁয়াজ আমদানী বন্ধ
  • বিশ্বে তিন কোটি মানুষ অভুক্ত, সাহায্য প্রয়োজন ধনীদের: বিশ্ব খাদ্য সংস্থা
  • তৃণমূলে আ.লীগের পাঁচ সাংগঠনিক নির্দেশনা
  • বাংলাদেশের বর্জ্য পানিতে পাওয়া গেছে করোনা
  • সব পৌরসভায় প্রার্থী দিবে জাতীয় পার্টি
  • ভারতে করোনার সংক্রমণ ছাড়াল ৫৪ লাখ
  • ইউজিসির শুনানিতে যাননি রাবির ভিসি-প্রোভিসি
  • সাহেদের অস্ত্র মামলার রায় ২৮ সেপ্টেম্বর
  • এক ট্রাক উদ্ধারে গিয়ে আরেক ট্রাকের ধাক্কায় এসআই নিহত
  • উপরে