মাঠে সুবাস ছড়াচ্ছে আতব হাসছে বরেন্দ্রের কৃষক

প্রকাশিত: নভেম্বর ১৮, ২০১৯; সময়: ৫:৫২ pm |
খবর > কৃষি

আসাদুজ্জামান মিঠু, বরেন্দ্র অঞ্চল : বরেন্দ্র অঞ্চলের মাঠে এখন সুবাস ছড়াচ্ছে চিনি আতব। সে সাথে রঙিন হয়ে উঠেছে কৃষকের সোনালী স্বপ্ন। এবার বরেন্দ্রে কৃষকের হাসি ফোটাবে চিনি আতব। চলতি মোৗসুমে সুগন্ধী চিনি আতব ধানের চাষাবাদ বৃদ্ধি পেয়েছে।

আবহাওয়া অনুকুল ও পোকার আক্রমণ কম থাকায় চলতি মৌসুমে ক্ষেতে চিনি আতবের মাথা ভাল রয়েছে। ফলে বাম্পার ফলনের আশা করছেন কৃষকেরা। চিনি আতবের চাহিদা থাকায় বাজারে দামও ভাল।

আমন ধান কাটা-মাড়াই শুরু হলেও চিনি আতব কৃষকের ঘরে উঠতে আরো কিছু দিন সময় লাগবে। সময় লাগলেও আতবেই স্বর্প্ন গুণছে কৃষকেরা।

বরেন্দ্রে কৃষকেরা জানান,গত কযেক বছরে বরেন্দ্র অঞ্চলে আতব চাষ করে পথে বসেছিল কৃষকেরা। প্রাকৃতিক দুযোর্গ আর পোকার আক্রমনের কারণে ঘরে ধান তুলতে পারিনি কেউ। কিন্ত গত বছর থেকে আবার আতব চাষে ঝুকেছেন কৃষকেরা। কৃষকেরা জানান,অন্য মোটা ধান চাষ করে দাম পাওয়া যাচ্ছে না বাজারে। আর আতবের চাহিদা থাকায় দাম ভাল। তাই অনেকে এবার মোটা ধানে পাশাপাশি আতব চাষ করেছেন।

রাজশাহী জেলা কৃষি সম্প্রাসারণের তথ্য অনুযায়ী জেলায় ২০১৫ সাথে আতব চাষাবাদ হয়েছিল ৭২০ হেক্টর জমিতে। ২০১৬ সালে কমে ৬৫০ হেক্টর হয় । ২০১৭ সালে আরো কমে চাষাবাদ হয় ৫২০ হেক্টর । ২০১৮ সালে বেড়ে চাষাবাদ হয়েছে ৮৫০ হেক্টর। চলতি বছর তা বেড়ে চাষাবাদ হয়েছে ৯১৭ হেক্টর জমিতে।
এছাড়াও রাজশাহী অঞ্চলে,রাজশাহী,চাঁপাইনবাবগঞ্জ নাটোর ও নওগাঁ জেলায় চিনি আতব চাষাবাদ হয়েছে প্রায় ৫০ হাজার হেক্টরে বেশি জমিতে। এর মধ্যে সব চেয়ে বেশি আতব চাষ হয়েছে নওগাঁ জেলার মাঠে।

রাজশাহীর তানোর উপজেলার মুণ্ডুমালা পৌর এলাকার পাঁচন্দর গ্রামের কৃষক বুড়ান উদ্দিন চলতি মৌসুমে ১৮ বিঘা জমিতে চিনি আতব চাষ করেছেন।

শুক্রবার কথা হয় তার সাথে, আতব চাষী বুড়ান উদ্দিন জানান,গত বছর ১০ বিঘা জমিতে আতব চাষ করে ফলন ও দাম দুইটো ভাল পাওয়া গেছে। তাই চলতি মৌসুমে জমির পরিধি বাড়াই এবার ১৮ বিঘা জমিতে আতব আবাদ করা হয়েছে।

তিনি আরো জানান, অনুকুল আবহাওয়া থাকায় ক্ষেতে আতবের মাথা ভাল আছে। তাই অন্যসব বছরের চেয়ে ফলন ভাল হবে বলে আশা তার। এবং বর্তমানে বাজারে প্রতিমণ (৪০কেজি ) আতব ধান বিক্রি হচ্ছে এক হাজার ৮০০ থেকে দুই হাজার টাকায়।

এমন আতব চাষ করেছেন শুরু তানোর বুড়ান উদ্দিনই নয়, বরেন্দ্র অঞ্চলে চলতি মৌসুমে আবহাওয়্ াঅনুকুল থাকায় মোটা ধানের পাশাপাশি চিনি আতব চাষ করেছেন শত শত কৃষক। বরেন্দ্র অঞ্চলে প্রতিটি মাঠে এবার মোটা ধানের পাশাপাশি চিনি আতব চাষা করেছেন কৃষকেরা। এখন সে চিনি আতবের সুগন্ধীতে ভরপুর হয়ে উঠেছে বরেন্দ্রে আকাশ-বাতাস।

রাজশাহীর তানোর উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা সমশের আলী জানান,আতব চাষ প্রতিবছরেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। চলতি বছর প্রাকৃতিক দুযোর্গ ও পোকার আক্রমণ কম। এর আগে কয়েক বছরে প্রাকৃতিক দুযোর্গের কারণে আতব চাষীরা লোকসান গুনেছিল। সেগুলো এখন কেটে উঠেছে কৃষকেরা। যার কারণে আবারো আতব চাষে ঝুকছেন।

তিনি আরো জানান, এক বিঘা আতব চাষ করে ১২ থেকে ১৫ মন পর্যন্ত পাওয়া যায়। বাজারে এর দাম প্রতি মণ দুই হাজার টাকা পর্যন্ত পাওয়া যায়। তাই অন্য সব ধানের চেয়ে আতব চাষ করে বেশি লাভবান হন কৃষকেরা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও খবর

  • দুর্গাপুরে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষে পবায় জলাবদ্ধতা
  • অতি বৃষ্টিতে দুশ্চিন্তায় বরেন্দ্রের কৃষক
  • তানোরে পানিতে ডুবে গেছে বিল কুমারী বিলের ধান
  • মহাদেবপুরে কোরবাণির পশুহাট জমে উঠলেও ক্রেতা নেই
  • আদমদীঘিতে কৃষকদের লেবু চাষে উদ্বুদ্ধ করছে কৃষি অফিস
  • রাজশাহীতে করোনার প্রভাবে লোকসানে পানচাষীরা
  • আত্রাইয়ে বন্যায় থমকে গেছে কৃষকের স্বপ্ন
  • নওগাঁর রাণীনগরে বন্যায় ধান-সবজির ব্যাপক ক্ষতি
  • গোদাগাড়ীতে আউশ প্রণোদনার সেচ সুবিধা পাচ্ছেন ২১ হাজার কৃষক
  • বাংলাদেশের কৃষি ও কৃষক
  • বদলগাছীতে জমি চাষ হচ্ছে যন্ত্রের সাহায্যে
  • আত্রাইয়ে পাট কাটা-ধোয়ায় ব্যস্ত কৃষাণরা
  • কামারখন্দে কলা চাষে ঝুঁকছেন কৃষকরা
  • ভাল দাম থাকায় বরেন্দ্রাঞ্চলে আউশের আবাদ লক্ষমাত্রা ছাড়িয়ে
  • ড্যান ড্যান, বাঁ বাঁ, যা যা, হুট হাট আর শোনা যায় না
  • উপরে