বিএনপির ১৯ নেতাকর্মী আজীবন বহিষ্কার

প্রকাশিত: জুন ৪, ২০২৩; সময়: ২:৩৫ pm |
বিএনপির ১৯ নেতাকর্মী আজীবন বহিষ্কার

পদ্মাটাইমস ডেস্ক: দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় মেয়র প্রার্থী কামরুল আহসান রুপনসহ ১৯ জনকে আজীবনের জন্য বহিষ্কার করেছে বিএনপি।

রোববার (৪ জুন) দুপুরে বরিশাল মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক মনিরুজ্জামান ফারুক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, নির্দেশনা উপেক্ষা করে কামরুল আহসান রুপন মেয়র পদে এবং ১৮ জন কাউন্সিলর পদে নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন। তাদের বিষয়ে কেন্দ্রকে অবহিত ও বহিষ্কারের সুপারিশ করা হয়েছিল। এর প্রেক্ষিতে গত ১ জুন দলের যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত নোটিশে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গকারীদের জবাব দেওয়ার জন্য বলা হয়। এর মধ্যে অনেক প্রার্থী জবাব দিয়েছিলেন। কিন্তু জবাবে কেন্দ্র সন্তুষ্ট না হওয়ায় তাদেরকে আজীবনের জন্য বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।

বহিষ্কৃতরা হলেন- মেয়র প্রার্থী কামরুল আহসান রুপন, মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক ও ৬নং ওয়ার্ড থেকে কাউন্সিলর প্রার্থী হাবিবুর রহমান টিপু, ৯নং ওয়ার্ডের মো. হারুন অর রশিদ ও ১৯নং ওয়ার্ডের অ্যাডভোকেট শাহ আমিনুল ইসলাম আমিন। বরিশাল মহানগর বিএনপির বর্তমান আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ও ৯নং ওয়ার্ডের সেলিম হাওলাদার, সংরক্ষিত ২নং ওয়ার্ড থেকে জাহানারা বেগম, ৮নং ওয়ার্ড থেকে সেলিনা বেগম, ১০নং ওয়ার্ড থেকে অংশ নেওয়া রাশিদা পারভীন। এছাড়া নগরীর ১৮নং ওয়ার্ড বিএনপির সদস্যসচিব জিয়াউল হক মাসুম, একই ওয়ার্ডের প্রার্থী দক্ষিণ জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাংগঠনিক সম্পাদক জাবের আব্দুল্লাহ সাদি, একই ওয়ার্ডের প্রার্থী বরিশাল জেলা তাঁতী দলের সাবেক সভাপতি কাজী মোহাম্মদ শাহীন, ১৮নং ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুল ইসলাম, নগরীর ৩নং ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি হাবিবুর রহমান ফারুক, ৯নং ওয়ার্ড যুবদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি সৈয়দ হুমায়ন কবির লিংকু, ১৫নং ওয়ার্ড থেকে মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক সহ-সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান, ২২নং ওয়ার্ড মহিলা দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জেসমিন সামাদ, ২৪নং ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক সভাপতি ও মহানগরের সাবেক সহ-সভাপতি ফিরোজ আহম্মেদ, ২৬নং ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক সভাপতি ফরিদউদ্দিন হাওলাদার এবং ২৮নং ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক হুমায়ন কবির।

বহিষ্কৃত অধিকাংশ প্রার্থী বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনে তাদের কোনো পদ না থাকায় তারা নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন।

এদিকে মেয়র প্রার্থী কামরুল আহসান রুপন বলেছিলেন, দলে যেমন আমার কোনো পদ নেই তেমনি মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করার পরও বিএনপি থেকে কোনো যোগাযোগ করেনি। যে কারণে নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় কোনা বাধা রয়েছে বলে আমি মনে করি না।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
পদ্মাটাইমস ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
topউপরে