মাঠে ৪৫ হাজার মে.টন আখ থাকতেই আখের অভাবে বন্ধ হয়ে গেলো নর্থ বেঙ্গল সুগার মিল

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৬, ২০২৩; সময়: ৪:০২ pm |
মাঠে ৪৫ হাজার মে.টন আখ থাকতেই আখের অভাবে বন্ধ হয়ে গেলো নর্থ বেঙ্গল সুগার মিল

নিজস্ব প্রতিবেদক, লালপুর : আখ সংকটে মাত্র ৫২ দিনেই বন্ধ হয়ে গেল নাটোরের লালপুর উপজেলার নর্থ বেঙ্গল সুগার মিল। রবিবার (১৫ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় মিলের ২০২২-২৩ মৌসুমের মাড়াই কার্যক্রম বন্ধ করা হয়। লক্ষমাত্রার অর্ধেক চিনিও উৎপাদন করতে পারেনি চিনিকলটি।

মিল এলাকায় ৪ শতাধিক অবৈধ পাওয়ার ক্রাশার (যন্ত্রচালিত আখ মাড়াই কল) মালিক অধিক মূলে আখ ক্রয় করায় এবছর আখচাষীরা মিলে আখ সরবারহ না করে তাদের কাছে মাঠের আখ বিক্রি করে দিয়েছে।

নর্থ বেঙ্গল সুগার মিল সূত্রে জানাগেছে, গত ২৫ নভেম্বর ১ লক্ষ ৪০ হাজার মেক্ট্রিকটন আখ মাড়াই করে ৯ হাজার ৮শ মেক্টিকটন চিনি উৎপাদনের লক্ষমাত্রা নিয়ে ২০২২-২৩ আখ মাড়াই মৌসুমের উদ্বোধন করা হয়। রবিবার পর্যন্ত ৫২ কর্ম দিবসে ৮১ হাজার ৮শ ৪০ মেক্ট্রিকটন আখ মাড়াই করে ৪ হাজার ৩২২ মেক্ট্রিকটন চিনি উৎপাদনের মধ্য দিয়ে মিলটির আখ মাড়াই মৌসুম শেষ হয়। মিল জোন এলাকায় ১৮ হাজার ১শ একর জমিতে ২ লক্ষ ৮০ হাজার মেক্ট্রিকটন আখ উৎপাদন হয়। এর মধ্যে এখনো ২ হাজার ১শ ১৭ জন আখচাষীর ২ হাজার ৬শ ২৯ একর জমির প্রায় ৪৫ হাজার মেক্ট্রিকটন আখ দন্ডামান রয়েছে। যা ফরিয়াদের মাধ্যমে অধিক দামে পাওয়ার ক্রাশারে বিক্রয় হয়েছে। ফলে চাষীরা মিলে আখ সরবারহ না করায় মিলটি বন্ধ করতে বাধ্য হয় কর্তিপক্ষ। এবছর মিলের চিনি আহরনের হার ছিলো শতকরা ৫ দশমিক ৩৩ ভাগ।

নর্থ বেঙ্গল সুগার মিলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আনিসুল আজম বলেন, এবছর প্রতিমন আখের মূল্য ১শ ৮০ টাকা নির্ধারণ করে আখ মাড়াই শুরু করা হয়। কিন্তু চাষীরা অধিক লাভের আশায় মিলে আখ সরবারহ না করে পাওয়ার ক্রাশারে আখ সরবারহ করায় আখ সংকটে ৫২ কর্মদিবসে মিলের আখ মাড়াই কার্যক্রম বন্ধ করা হয়েছে।’

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
topউপরে