চার বছরের ব্যবধানে কোটিপতি হিরো আলম

প্রকাশিত: জানুয়ারি ৯, ২০২৩; সময়: ১১:০৮ pm |
চার বছরের ব্যবধানে কোটিপতি হিরো আলম

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) ও বগুড়া-৬ (সদর) আসনের উপনির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী আশরাফুল হোসেন ওরফে হিরো আলমের চার বছর আগে সম্পদ বলতে তেমন কিছু ছিল না। তখন ব্যাংক হিসাবে এক হাজার টাকা ছিল।

আর ছিল ২১ শতাংশ কৃষিজমি, ৮৭ হাজার টাকা মূল্যের একটি পুরোনো মোটরসাইকেল, আড়াই লাখ টাকার আসবাবপত্র ও ইলেকট্রনিকস পণ্য এবং স্ত্রীর এক ভরি স্বর্ণালংকার। আয় বলতে ছিল কৃষি খাত থেকে আসা ৬ হাজার টাকা এবং অভিনয় থেকে আসা ২ লাখ ৫২ হাজার টাকা। নিজের বাড়ি ও গাড়ি ছিল না।

চার বছরের ব্যবধানে হিরো আলম কোটিপতি হয়েছেন। চড়ছেন কয়েক লাখ টাকার প্রাইভেট কারে। ৯ শতক জায়গা কিনে বাড়ি বানিয়েছেন। ব্যাংকে জমা আছে ৩০ হাজার টাকা। কিনেছেন কৃষিজমিও। এখন তাঁর কৃষিজমির পরিমাণ ৫০ শতাংশ। স্ত্রীর ১ ভরি স্বর্ণালংকার বেড়ে হয়েছে ১০ ভরি। আছে ৫৫ লাখ টাকার পারিবারিক সঞ্চয়পত্র।

মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার সময় নির্বাচন কমিশনে দাখিল করা সম্পদ বিবরণীর হলফনামায় হিরো আলম এসব তথ্য উল্লেখ করেছেন। হলফনামায় তিনি বলেছেন, তিনি স্বশিক্ষিত। আর তাঁর পেশা ব্যবসা।

হিরো আলম ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনে বগুড়া-৪ আসন থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করেন। ওই নির্বাচনে মনোনয়নপত্র ও হলফনামার সঙ্গে নির্বাচনী ব্যয় নির্বাহে অর্থপ্রাপ্তির সম্ভাব্য উৎস বিবরণী দাখিল করেছিলেন। সেখানে তিনি নির্বাচনে ১০ লাখ টাকা ব্যয়ের কথা জানিয়েছিলেন। এর মধ্যে নিজের অভিনয় ও ব্যবসা থেকে ৫ লাখ এবং শ্বশুর, ফুফা ও ভগ্নিপতির কাছ থেকে আরও ৫ লাখ টাকা ধার করে নির্বাচনী ব্যয় মেটানোর কথা জানিয়েছিলেন। তবে এবারের নির্বাচনী ব্যয়ের উৎস সম্পর্কে জানা যায়নি।

আয় সম্পর্কে জানতে চাইলে হিরো আলম বলেন, ‘সবাই জানে আমার কোনো কালোটাকা নেই। স্টেজ শো করে উপার্জন করি। চলচ্চিত্র প্রযোজনা ও অভিনয় করি। নাটক, চলচ্চিত্র ও মিউজিক ভিডিও নির্মাণের ব্যবসা করি। ইউটিউব থেকে আয় করি। এসব আয় থেকেই সৎভাবে জীবন যাপন করছি। একটু একটু করে সঞ্চয় জমিয়ে কিছু করার চেষ্টা করছি। হলফনামায় সম্পদের যে তথ্য দিয়েছি, সবই সৎভাবে উপার্জিত। কোনো অসৎ রোজগারের অর্থ আমার নেই।’

বগুড়া-৪ ও বগুড়া-৬ আসনের উপনির্বাচনে ন্যূনতম ১ শতাংশ ভোটারের স্বাক্ষরসহ সমর্থনসূচক তালিকায় গরমিল থাকার কথা জানিয়ে রোববার হিরো আলমের মনোনয়নপত্র বাতিল করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক সাইফুল ইসলাম।

এলাকার ভোটারদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বগুড়ার প্রত্যন্ত এরুলিয়া গ্রামে একসময় সিডি বিক্রি করতেন আশরাফুল আলম। সিডি যখন চলছিল না, তখন কেব্‌ল সংযোগ ব্যবসা শুরু করেন। সেই ব্যবসার সুবাদে তিনি মিউজিক ভিডিও তৈরি শুরু করেন। ইউটিউবে প্রায় ৫০০ মিউজিক ভিডিও ছাড়ার পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও গণমাধ্যমে আলোচনায় আসেন হিরো আলম।

ইউটিউবে প্রকাশ করা তাঁর নিজস্ব ভিডিওগুলোও অনেক জনপ্রিয়। ভিডিওগুলোর নির্দেশনাও দেন তিনি। ভিডিওগুলোর মূল চরিত্রে তিনি নিজে অভিনয় করেন। ‘মার ছক্কা’ ও ‘সাহসী হিরো’ নামে দুটি চলচ্চিত্রে নায়ক চরিত্রে অভিনয় করেন তিনি। সব মিলিয়ে তাঁকে নিয়ে বেশ আলোচনা-সমালোচনা আছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
topউপরে