রাবি মতিহার হলে খেলাকে কেন্দ্র করে মারামারি, আহত ৩

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৬, ২০২২; সময়: ৮:০৩ pm |
রাবি মতিহার হলে খেলাকে কেন্দ্র করে মারামারি, আহত ৩

নিজস্ব প্রতিবেদক : ক্যারাম বোর্ড ও টেবিল টেনিস খেলাকে কেন্দ্র করে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের মতিহার হলে মারামারিতে ছাত্রলীগ নেতাসহ তিনজন আহত হয়েছেন। গতকাল সোমবার রাত ৯টার দিকে ওই হলের খেলাধুলার কক্ষে এ মারামারির ঘটনা ঘটেছে।

আহতদের মধ্যে দুইজন গুরুতর অবস্থায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন এবং অপর একজন বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকালে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে হলে ফিরেছেন।

আহত শিক্ষার্থীরা হলেন ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থী ও হল শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আরিফুল ইসলাম, একই বিভাগের তানভীর ও ফাইন্যান্স বিভাগের একই বর্ষের শেখ উৎস।

প্রত্যক্ষদর্শীসূত্রে জানা যায়, হলের খেলার কক্ষে ক্যারাম বোর্ড ও টেবিল টেনিস খেলার সময় উচ্চ স্বরে কথা বলাকে কেন্দ্র করে আরিফুল ও তানভীরের সঙ্গে ফাইন্যান্স বিভাগের শেখ উৎসের বাগবিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে মারামারি শুরু হয়। এতে আরিফুল ও শেখ উৎস মাথায় গুরুতর আঘাত পান। এ সময় তাদের রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসাকেন্দ্রে নেওয়া হয়। সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য তাদের রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানোর পরামর্শ দেন। পরে এই দুজনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালের ৮ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি আছেন আরিফুল আর শেখ উৎস ভর্তি আছেন ৩১ নম্বর ওয়ার্ডে। অন্যদিকে তানভীর বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকালে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে হলে ফেরেন।

এ ঘটনার পর ইতিহাস ও ফাইন্যান্স বিভাগের শিক্ষার্থীরা হলের সামনে এসে জড়ো হন। দুই বিভাগের শিক্ষকেরা আসেন। কিছুক্ষণ পর সেখানে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক উপস্থিত হন। মারামারির এই ঘটনা নিয়ে রাতে ছাত্রলীগ, শিক্ষক ও হল প্রশাসন আলোচনা করে। পরে প্রশাসনের আশ্বাসে সবাই হলের সামনে থেকে চলে যান।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে হল প্রাধ্যক্ষ এম নজরুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় তিন সদস্যদের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে এবং তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন সাত কর্মদিবসের মধ্যে জমা দেওয়ার কথা রয়েছে। পরবর্তীতে সে অনুযায়ী অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া বলেন,“গতকাল খেলাকে কেন্দ্র করে তর্কাতর্কির একপর্যায়ে মারামারির ঘটনা ঘটে। এটা ছাত্রলীগের কোনো বিষয় না। তবে এ বিষয়ে ওই ছাত্রলীগ নেতা যদি কোনো দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করে; তাহলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ সময় প্রক্টর অধ্যাপক আসাবুল হক বলেন,“এ ঘটনা শোনার সঙ্গে সঙ্গেই আমি হল প্রাধ্যক্ষকে জানিয়েছিলাম। পরে এসে দেখি বিষয়টা সমাধান হয়ে গেছে। আহত শিক্ষার্থীদের খোঁজখবর রাখছি। হল প্রশাসন থেকে ইতিমধ্যে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
topউপরে