বদলগাছীতে শালিসে পুলিশের সামনেই অপহৃত কিশোরীর বাবাকে নির্যাতন, গ্রেপ্তার ৩

প্রকাশিত: নভেম্বর ২২, ২০২২; সময়: ৭:৩৮ pm |
বদলগাছীতে শালিসে পুলিশের সামনেই অপহৃত কিশোরীর বাবাকে নির্যাতন, গ্রেপ্তার ৩

নিজস্ব প্রতিবেদক, বদলগাছী : নওগাঁর বদলগাছীতে কিশোরী অপহরণ মামলা ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা এবং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের কক্ষে কিশোরীর বাবাকে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় থানা পুলিশ অভিযুক্ত ৩ জনকে আটক করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে বদলগাছী উপজেলার আধাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের কক্ষে।

আটককৃতরা হলেন বদলগাছী আধাইপুর ইউপির পরমান্দপু গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে রকি (১৯), মজির উদ্দিনের ছেলে রফিকুল ইসলাম (৪০), পত্নীতলা উপজেলার হরিপুর গ্রামের আফাজের ছেলে নূরনবী (৩০)।

মামলা ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আধাইপুর ইউনিয়নের ইন্দ্রশুকনা গ্রামের সাইদুল ইসলামের ছেলে উজ্জল হোসেন তার ছোট বোন কে অপহরণ করার দায়ে একই ইউনিয়নের পরমানন্দপুর গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে রকি হোসেন(১৯), রকি’র সহযোগী হিসেবে একই গ্রামের মজির দ্দিনের ছেলে রফিকুল ইসলাম (৪০) ও নওগাঁ জেলার পত্নীতলা থানার হরিপুর গ্রামের আফাজ উদ্দিনের ছেলে নুরনবী (৩০) কে আসামী করে বদলগাছী থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

গত ১৮ নভেম্বর বদলগাছী থানায় অভিযোগের প্রেক্ষিতে বদলগাছী থানার এএসআই মাসুদ রানা অপহরণকৃত কিশোরী সাদিয়া আকতার ও বিবাদী রকি হোসেনকে কৌশলে (২১শে নভেম্বর) উদ্ধার করে। পরে আওয়ামী লীগের কতিপয় নেতাদের সহযোগীতায় এ এস আই মাসুদ রানার নেতৃত্বে অপহরণ মামলাটি ধাপাচাপা দিতে আধাইপুর ইউনিয়ন পরিষদ কক্ষে এক শালিসী বৈঠক বসে।

উক্ত বৈঠকে আধাইপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক সামছুল আলম সহ কতিপয় নেতা-কর্মীরা বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মিমাংসার জন্য কিশোরীর বাবা-মা ও ভাইকে সমাধান করতে বলেন। তাদের কথামতো মিমাংসা করতে রাজি না হওয়ায় আওয়ামী লীগের কতিপয় ঐ নেতা-কর্মীরা ওই কিশোরীর বাবা সাইদুল ইসলাম, ভাই উজ্জল হোসেন ও রবিউল ইসলামকে বিভিন্নভাবে ভয়-ভীতি ও হুমকী প্রদান করেন।

এক পর্যায়ে ক্ষিপ্ত হয়ে আওয়ামী লীগের কতিপয় নেতা-কর্মীরা পুলিশের সামনেই কিশোরীর বাবা ও ভাইদেরকে মারধর করতে থাকে। মারধরের এক পর্যায়ে তাদের হাত থেকে আত্নীয়-স্বজন ও স্থানীয়রা কিশোরীর বাবা ও ভাইকে রক্ষা করে। পরে থানায় এসে ৩ জনকে আসামীকে করে একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন ভুক্তভোগীর বাবা সাইদুল ইসলাম ।

বদলগাছী থানার এএসআই মাসুদ রানা ঘটনার কথা স্বীকার করে বলেন, অভিযোগের প্রেক্ষিতে মেয়েকে উদ্ধার করা হয়। উভয় পক্ষ মিমাংসার জন্য বসেন। সেখানে আমি উপস্থিত ছিলাম।

এ বিষয়ে আধাইপুর ইউপি চেয়ারম্যান রেজাউল কবির পল্টন বলেন, আমি জয়পুরহাট যাওয়ার জন্য তৈরি হচ্ছিলাম আধাইপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক সামছুল আলম সহ বেশ কিছু নেতা-কর্মীরা আমাকে জোর করে বলেন আপনি এই পরিষদের চেয়ারম্যান আপনাকে থাকতে হবে আমরা শুধু মিমাংসা করে মেয়ের বাবার হাতে তুলে দিবো। তাই আমি ঐ শালিসে ছিলাম পরে ওখানে উত্তেজিত পরিবেশ তৈরি হওয়ায় আমি সেখান থেকে চলে যায়।

বদলগাছী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মুহা. আতিয়ার রহমান বলেন, অভিযোগের প্রেক্ষিতে মেয়েকে উদ্ধার করা হয়েছে। মেয়ের বাবা বাদী হয়ে একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেছেন। মামলার প্রেক্ষিতে আসামীদের আটক করা হয়েছে। বাদীকে মারধরের বিষয়ে কোন অভিযোগ দেয়নি। আসামীদের নওগাঁ জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
topউপরে