ফুটবল জোয়ারে কাঁপছে রাবি

প্রকাশিত: নভেম্বর ২২, ২০২২; সময়: ৫:৫৮ pm |
ফুটবল জোয়ারে কাঁপছে রাবি

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, রাবি : মরুর দেশ কাতার ছাড়িয়ে ফিফা বিশ্বকাপের উত্তাপ ছড়াচ্ছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মধ্যেও। প্রিয় দলকে সমর্থন জানাতে ক্যাম্পাসে প্রতিদিনই অনুষ্ঠিত হচ্ছে নানামুখী আয়োজন।

ঘোষণা করা হচ্ছে হল, বিভাগ ও অনুষদের সমর্থক গোষ্ঠীর কমিটি। প্রিয় দলের জার্সি পরে চলছে পতাকা নিয়ে আনন্দ মিছিল ও সমর্থকদের মিটিং।

চায়ের কাপ থেকে শুরু করে সামাজিক মাধ্যমে চলছে তর্কযুদ্ধ। সব মিলিয়ে বিশ্বকাপ উৎসবের আমেজে রাবি ক্যাম্পাস এখন জমজমাট।

এবারও রাবির ফুটবলপ্রেমীরা প্রধানত ব্রাজিল আর আর্জেন্টিনায় বিভক্ত। তাই শিক্ষার্থীদের পোষাকে এখন হলুদ-সবুজ আর নীল-সাদার জার্সির আধিক্যই বেশি।

দিনের বেলায় আনন্দ মিছিল, সমর্থকদের মিটিং, জার্সি পরে শো ডাউন আর রাত হলেই আবাসিক হলগুলোর টিভি রুমে বসছে সব দলের সমর্থকদের এক সাথে খেলা দেখার উৎসব।

পাল্টাপাল্টি সমর্থক কমিটিও দেওয়া হচ্ছে। কেন্দ্রীয় সমর্থক গোষ্ঠীর কমিটি দেওয়ার পাশাপাশি প্রতিটি হল, বিভাগ ও অনুষদেও দেওয়া হচ্ছে সমর্থক কমিটি।

মেসি নাকি নেইমার নেবে বিশ^কাপ- এটিই এখন রাবি ক্যাম্পাসে প্রতিটি ক্লাসরুম-চায়ের জমায়েত থেকে শুরু করে সামাজিক মাধ্যমে তর্কযুদ্ধের প্রধান বিষয়।

এই যুদ্ধে পিছিয়ে নেই জার্মানির সমর্থকরাও, সংখ্যায় কম হলেও ‘সেভেন-আপ’ আর ‘এক হালি’র অস্ত্র নিয়ে এক হাত দেখে নিচ্ছেন ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার সমর্থকদের।

কয়েকটি বিভাগে সমর্থক কমিটি দেওয়ার পাশাপাশি রাবি জার্মান সাপোর্টার্স ইউনিটির কেন্দ্রীয় কমিটি দেওয়ারও প্রক্রিয়া চলছে বলে সমর্থকরা জানায়।

ব্রাজিল সমর্থক ইমরান হোসাইন বলেন, বর্তমান ফিফার এক নম্বর দল ব্রাজিলের খেলোয়াড়দেও সাম্প্রতিক সময়ে যে পারফরম্যান্স, তা ধরে রাখতে পারলে অবশ্যই ব্রাজিলের হেক্সা মিশন সফল হবে।

আর্জেন্টিনা সমর্থক বর্ষা জান্নাত বলেন, ফুটবলে নব্বই মিনিটের পুরোটা জুড়ে একটা টান টান উত্তেজনার চাপ থাকে। যারা এই চাপ সামলে সেরাটা দিতে পারবে, তারাই জিতবে।

আর স্নায়ুবিক চাপ সামলানোর পরীক্ষায় আর্জেন্টিনা ৩৬ ম্যাচে অপরাজিত। তাই এবার আর্জেন্টিনাই চ্যাম্পিয়ন হবে।

জার্মান ফুটবল সমর্থক গোষ্ঠীর আইইআর শাখার সেভেন-আপ বিষয়ক সম্পাদক ফাতিন নাওয়াল নিহাল, জার্মানির সামনে যে কোনো দলেরই হাঁটু কাঁপে। কারণ জার্মানি চিতা বাঘের মত খেলে। এবারও আমরা ব্রাজিলকে সেভেন আপ ও আর্জেন্টিনাকে এক হালি দিতে প্রস্তুত আছি। এবার কাপ জার্মাানিতেই যাবে।

এদিকে বিশ^কাপের উত্তাপে সমানভাবে উদ্বেলিত শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরাও। প্রিয় দলকে সমর্থন জানাতে বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষকরাও তর্কযুদ্ধে এক ইঞ্চিও ছাড়ছেন না।

শিক্ষার্থীদের সমর্থক দলে উপদেষ্টা হিসেবে থাকছেন শিক্ষকরাও। আইন বিভাগের জার্মানি ফুটবল সমর্থক ফোরামের উপদেষ্টা সহযোগী অধ্যাপক সাদিকুল ইসলাম সাগর বলেন, ফুটবল বিশ^কাপে সবাই ভালো লাগার দলকে সমর্থন জানাচ্ছে।

এতে মজার যে উৎসবমূখর পরিবেশ সৃষ্টি হচ্ছে তাতে ছাত্র-শিক্ষক সবাই অংশ নিচ্ছে। ফলে এটাকে কেন্দ্র করে ছাত্র-শিক্ষকের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কটাও দৃঢ় হচ্ছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
topউপরে