আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্রে পরিবর্তন আসছে

প্রকাশিত: নভেম্বর ১৩, ২০২২; সময়: ১১:৩৫ am |
আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্রে পরিবর্তন আসছে

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্রে পরিবর্তন আসছে। এ জন্য দলের জেলা-উপজেলা পর্যায় থেকে শুরু করে তৃণমূলের নেতাকর্মীর কাছ থেকে পরামর্শ নেওয়া হবে। সেই সঙ্গে দলের গঠনতন্ত্রকে আরও আধুনিক ও যুগোপযোগী করতে বুদ্ধিজীবীদের পরামর্শ নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

গতকাল শনিবার প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের গঠনতন্ত্র উপকমিটির বৈঠকে এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। উপকমিটির আহ্বায়ক ড. আব্দুর রাজ্জাকের সভাপতিত্বে এ বৈঠকে দলের সাংগঠনিক কাঠামো বৃদ্ধি নিয়ে বিশদ আলোচনা হয়েছে। তবে প্রায় সব নেতাই সাংগঠনিক কাঠামো না বাড়ানোর পক্ষে মতামত দিয়েছেন।

আগামী ২৪ ডিসেম্বর শনিবার সকাল ১০টায় ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠেয় দলের এক দিনব্যাপী ২২তম জাতীয় কাউন্সিলে প্রস্তাবিত গঠনতন্ত্র চূড়ান্তভাবে অনুমোদন করা হবে। কাউন্সিলররা তা অনুমোদন করবেন। এর আগে দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে আলাপ-আলোচনার পর জাতীয় কাউন্সিলে অনুমোদনের জন্য গঠনতন্ত্রের খসড়া তৈরি করা হবে।

দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক জানিয়েছেন, ‘গঠনতন্ত্রে কী ধরনের পরিবর্তন আনা যেতে পারে’, তা জানতে চেয়ে গতকালই দলের জেলা-উপজেলা থেকে শুরু করে তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীর কাছে অনলাইনে চিঠি পাঠানো হয়েছে। আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে তাঁরা প্রস্তাব পাঠাবেন। সেই প্রস্তাব নিয়ে পরবর্তী বৈঠকে আলোচনা হবে।

আওয়ামী লীগের ৮১ সদস্যের কার্যনির্বাহী কমিটিতে চারটি যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও আটটি সাংগঠনিক সম্পাদকের পদ রয়েছে। এর মধ্যে একজন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দুটি করে বিভাগ এবং একেকজন সাংগঠনিক সম্পাদক একটি করে বিভাগে সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। আগামীতে পদ্মা ও মেঘনা নামে দুটি নতুন বিভাগ গঠনের সম্ভাবনা রয়েছে।

উপকমিটির গতকালের বৈঠকে বেশিরভাগ নেতাই বলেছেন, প্রস্তাবিত পদ্মা ও মেঘনা বিভাগে দলের সাংগঠনিক কার্যক্রম দেখভালের জন্য একটি যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও দুটি সাংগঠনিক সম্পাদকের পদ সৃষ্টি করা যেতে পারে। এই প্রস্তাব জাতীয় কাউন্সিলে অনুমোদন পেলে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের পদ হবে পাঁচটি। সাংগঠনিক সম্পাদকের পদ হবে ১০টি। অর্থাৎ সাংগঠনিক কাঠামো না বাড়ানো হলে দলের কার্যনির্বাহী সদস্যের তিনটি পদ কমে যাবে।

বর্তমানে কার্যনির্বাহী সদস্য সংখ্যা ২৭। এর মধ্যে আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসাইন ও বদর উদ্দিন আহমদ কামরান মারা যাওয়ায় দুটি পদ শূন্য রয়েছে। সভাপতি, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য, সাধারণ সম্পাদক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, সাংগঠনিক সম্পাদক, বিভাগীয় সম্পাদক, উপসম্পাদক, কার্যনির্বাহী সদস্যসহ আওয়ামী লীগের তিন বছর মেয়াদি কার্যনির্বাহী সংসদের মোট সদস্য সংখ্যা ৮১। এর মধ্যে সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, মোহাম্মদ নাসিম, অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন ও অ্যাডভোকেট আবদুল মতিন খসরু মারা যাওয়ায় সভাপতিমণ্ডলীর চারটি পদ শূন্য রয়েছে।

উপকমিটির প্রথম বৈঠকে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, সভাপতিমণ্ডলীর অন্যতম সদস্য লে. কর্নেল (অ.) ফারুক খান, দুই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল-আলম হানিফ, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, দুই সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, সাখাওয়াত হোসেন শফিক, আইন সম্পাদক অ্যাডভোকেট কাজী নজিবুল্লাহ হিরু, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক ড. সেলিম মাহমুদ, দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম মোহন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
topউপরে