যে শর্তে রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনায় রাজি ইউক্রেন

প্রকাশিত: নভেম্বর ৯, ২০২২; সময়: ১০:০৩ am |
যে শর্তে রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনায় রাজি ইউক্রেন

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ বাধার পর পেরিয়ে গেছে আট মাসেরও বেশি সময়। কিন্তু এখনো যুদ্ধ শেষ হওয়ার কোনো লক্ষণ নেই। যদিও কয়েকদিন ধরে শোনা যাচ্ছে যুদ্ধ বন্ধে রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনায় বসতে ইউক্রেনের কর্মকর্তাদের গোপনে কিছুটা চাপ দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে ইউক্রেনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে আলোচনার জন্য প্রেসিডেন্ট ভলোদিমিরি জেলেনস্কির দেওয়া শর্ত মানতে হবে।

এ ব্যাপারে ইউক্রেনের উচপদস্থ নিরাপত্তা কর্মকর্তা ওলেক্সি দানিলোভ মঙ্গলবার টুইটে বলেছেন, রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনায় বসার আগে ‘প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির দেওয়া পূর্বশর্ত’ মানতে হবে। শর্তটি হলো ইউক্রেনের দখলকৃত সব অঞ্চল ফিরিয়ে দিতে হবে এবং রুশ সেনাদের ইউক্রেন ছেড়ে চলে যেতে হবে। এছাড়া ইউক্রেনকে শক্তিশালী আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা, অত্যাধুনিক যুদ্ধবিমান, ট্যাংক এবং দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র দেওয়ার নিশ্চয়তা দিতে হবে। তিনি আরও বলেছেন, ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের প্রধান শর্ত হলো ইউক্রেনের অখণ্ডতা পুনঃপ্রতিষ্ঠা ও বজায় রাখা।

এর আগে প্রেসিডেন্ট ভলোদমির জেলেনস্কি সোমবার স্থানীয় সময় রাতে এক ভিডিও বার্তায় জানান, যুদ্ধ বন্ধে রাশিয়ার সঙ্গে ‘সত্যিকারের’ আলোচনায় বসতে রাজি আছেন তিনি; যে আলোচনার মাধ্যমে ইউক্রেনের অখণ্ডতা পুনঃপ্রতিষ্ঠা হবে। জেলেনস্কির এমন মন্তব্যের পর ইউক্রেনের নিরাপত্তা কর্মকর্তা ওলেক্সি দানিলোভ জানালেন প্রেসিডেন্টের দেওয়া পূর্বশর্ত আগে মানতে হবে।

সোমবার প্রকাশিত ওই ভিডিও বার্তায় জেলেনস্কি রাশিয়ার কাছে ক্ষতিপূরণের দাবি জানিয়ে বলেন, রাশিয়া হামলা চালিয়ে ইউক্রেনের অর্থনৈতিক ও অবকাঠামোগত যেসব ক্ষতি করেছে সেগুলোর ক্ষতিপূরণ দিতে হবে এবং যারা যুদ্ধাপরাধ সংঘটিত করেছে করেছে তাদের বিচারের মুখোমুখি দাঁড় করাতে হবে।

সেপ্টেম্বরের শেষ দিকে ইউক্রেনের দোনেৎস্ক, লুহানস্ক, জাপোরিঝিয়া এবং খেরসন অঞ্চলকে কথিত গণভোটের মাধ্যমে অধিগ্রহণ করেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

অঞ্চলগুলো অধিগ্রহণের পর ক্ষোভের বশে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমিরি জেলেনস্কি ডিক্রি জারি করে বলেন, তিনি কখনো পুতিনের সঙ্গে আলোচনা করবেন না। যখন পুতিনের সময় শেষ হয়ে যাবে এবং রাশিয়ায় নতুন কোনো প্রেসিডেন্ট আসবেন তখনই তিনি আলোচনায় বসবেন।

পুতিনের সঙ্গে আলোচনায় না বসার বিষয়টি সাম্প্রতিক সময়েও বলেছেন জেলেনস্কি। তবে এখন যুক্তরাষ্ট ভয় পাচ্ছে রাশিয়ার সঙ্গে ইউক্রেন আলোচনা করতে অপরাগতা প্রকাশ করায় ‘মিত্ররা বিগড়ে’ যেতে পারেন। কারণ যুদ্ধের প্রভাব তাদের সবার ওপর পড়ছে।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট দপ্তর ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ মঙ্গলবার বলেছেন, রাশিয়া ইউক্রেনের সঙ্গে আলোচনায় প্রস্তুত আছে। কিন্তু ইউক্রেনই বারবার আলোচনার অনুরোধ প্রত্যাখান করেছে। সূত্র-আল জাজিরা

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
topউপরে