ঈশ্বরদীতে শীতের আগাম সবজি চাষের ধুম

প্রকাশিত: নভেম্বর ৭, ২০২২; সময়: ৩:০২ pm |
ঈশ্বরদীতে শীতের আগাম সবজি চাষের ধুম

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঈশ্বরদী : প্রকৃতিতে রাজত্ব চলছে হেমন্ত কন্যার। ভোরের ঘাসে শিশিরের উপস্থিতি আর সকালের সোনা রোদ জানান দিচ্ছে, এক মাস বাদে আগমন ঘটবে শীতের।

আর এ সময়ে শীতের হরেক রকম সবজি চাষে মেতেছেন ঈশ্বরদী উপজেলার কৃষকরা। মাঠে মাঠে শীতকালীন সবজি চাষের ধুম পড়েছে। অবশ্য কোনো কোনো এলাকার চাষি আগেই ক্ষেতে শীতের সবজি চাষ করেছেন।

এরই মধ্যে মুলা, শিম, বাঁধাকপি, ফুলকপি, গাজরসহ বেশ কিছু শীতের আগাম সবজি বাজারে উঠেছে। অন্যান্য বছরের তুলনায় এসব সবজির দাম বেশি। ভালো দাম পাওয়ায় শীতকালীন সবজি চাষে আগ্রহ বেড়েছে কৃষকদের। আবার আবহাওয়াও কৃষকের অনুকূলে।

ঈশ্বরদী উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, এবার উপজেয়ায় রেকর্ড পরিমাণ জমিতে শীতের আগাম সবজির চাষ হয়েছে।

মুলা, শিম, বেগুন, ফুলকপি, বাঁধাকপি, পালংশাক, টমেটোসহ হরেক রকম শীতকালীন সবজিতে ভরপুর মাঠ। অধিদপ্তরের কৃষি কর্মকর্তা মিতা সরকার বলেন, এবার উপজেলায় সাড়ে ৭ হাজার হেক্টর জমিতে শীতের আগাম সবজির চাষ হয়েছে।

নতুন করে আরও কিছু জমিতে শীতকালীন সবজি চাষের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। শীতের আগাম সবজি বিক্রি করে ভালো দাম পাওয়ায় সবজি চাষে কৃষকদের আগ্রহ বেড়েছে, তাই এ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে।

উপজেলার ছলিমপুর, লক্ষীকুন্ডা, সাহাপুর, পাকশী ও মুলাডুলি ইউনিয়নের মাঠ ঘুরে দেখা যায়, মাঠে মাঠে এখন শোভা পাচ্ছে ফুলকপি, বাঁধাকপি, শিম, গাজর, মুলাসহ হরেক রকম সবজি। সাতসকালে সবজিক্ষেত পরিচর্যায় ব্যস্ত কৃষকরা।

কেউ নিড়ানি দিচ্ছেন, কেউ কীটনাশক ছিটাচ্ছেন, কেউ সেচ দিচ্ছেন। আবার কেউ খেত থেকে সবজি তুলে বিক্রির জন্য বাজারে নিচ্ছেন। অনেকে নতুন করে শীতকালীন সবজির চারা রোপণেও ব্যস্ত।

মানিকনগর পশ্চিম, জগন্নাথপুর, ভাড়ইমারী, চরকদিমপাড়া, কাঁঠালবাড়িয়া, খড়েরদাঁইড়, কালামপুর, চরকুড়ুলিয়া, বরমপুর, পাকুড়িয়া, কদিমপাড়া, তিলকপুর, দীঘা, গড়গড়ী, বেদুনদিয়া, চকনারিচা বাগবাড়ীয়া, দেবীপুর, রামচন্দ্রপুর, শেখপাড়া, শ্রীপুর, আব্দুল্লাপুর, রূপপুরের মাঠে এখন মুলা, বেগুন, ফুলকপি, বাঁধাকপি, টমেটো, গাজর, শসা, ঢ্যাঁড়স, লালশাক, পালংশাক, পুঁইশাক ও শিম শোভা পাচ্ছে।

পাকশী রূপপুর মাঠে ফুলকপির ক্ষেত পরিচর্যার সময় কথা হয় চাষি রুবেলের সঙ্গে। তিনি বলেন, ১৫ বিঘা জমিতে এবার ফুলকপি, বাঁধাকপি আর গাজর চাষ করেছেন। শীতের আগেই এসব সবজি বিক্রি করতে চান তিনি।

কামালপুর গ্রামের কৃষক আবদুস সামাদ জানান, তিন বিঘা জমিতে ফুলকপি, মুলা আর গাজরের চাষ করেছেন। কার্তিক মাসের মাঝামাঝি এসব সবজি বাজারে তোলা হবে।

মহাদেবপুর গ্রামের কৃষক জাহের আলী জানান, চাহিদা থাকায় এবার খেত থেকে মুলা, কপি বিক্রি হয়ে যাচ্ছে। হাটে নিতে হচ্ছে না। প্রতি মণ ফুলকপি ৩ হাজার ২০০ টাকায় বিক্রি করেন তিনি।

শেখপাড়া এলাকার কৃষক আবদুল মজিদ জানান, শীতের আগাম সবজি শিম ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
topউপরে