অর্থনীতির সব সূচকে হোঁচট, ব্যতিক্রম শুধু এফডিআই

প্রকাশিত: নভেম্বর ৭, ২০২২; সময়: ১০:৫৩ am |
অর্থনীতির সব সূচকে হোঁচট, ব্যতিক্রম শুধু এফডিআই

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ধাক্কায় তছনছ হয়ে যাওয়া বিশ্ব অর্থনীতির আঘাত বাংলাদেশেও লেগেছে। যার ছোবলে রপ্তানি আয়, রেমিট্যান্স, রিজার্ভসহ অর্থনীতির প্রধান সূচকগুলো হোঁচট খেলেও বিদেশি বিনিয়োগের গতি বেশ ভালো।

বাংলাদেশ ব্যাংক সবশেষ বিদেশি বিনিয়োগের হালনাগাদ যে তথ্য প্রকাশ করেছে, তাতে দেখা যায়, চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) ১১৬ কোটি (১.১৬ বিলিয়ন) ডলারের সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ (এফডিআই) এসেছে দেশে। এই অঙ্ক গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ২৮ শতাংশ বেশি। ২০২১-২২ অর্থবছরের এই তিন মাসে ৯০ কোটি ৭০ লাখ ডলারের এফডিআই পেয়েছিল বাংলাদেশ।

তবে এই সংকটকালে এটিও কত দিন বজায় থাকবে তা নিয়ে শঙ্কায় আছেন অর্থনীতিবিদ ও ব্যবসায়ী নেতারা। তারা বলেছেন, দীর্ঘ দিন দেশে একটি স্থিতিশীল রাজনৈতিক পরিবেশ বিরাজ করায় বিনিয়োগের একটি অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছিল। এরই মধ্যে পদ্মা সেতু চালু হয়ে গেছে। ডিসেম্বরের মধ্যেই রাজধানীতে মেট্রোরেল ও চট্টগ্রামে বঙ্গবন্ধু টানেল চালু হয়ে যাবে। এ সবের ইতিবাচক প্রভাবও বিদেশি বিনিয়োগে পড়েছিল। সে কারণে গত অর্থবছরে বেশ ভালো এফডিআই এসেছিল। সেই ধারাবাহিকতায় চলতি অর্থবছরেও বিদেশি বিনিয়োগ বাড়ছিল। কিন্তু এই কঠিন সময়ে সেটা কেমন আসবে-সেটাই এখন বড় প্রশ্ন।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্যে দেখা যায়, জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে নিট এফডিআই বেড়েছে প্রায় ২২ শতাংশ। এই তিন মাসে ৪৬ কোটি ৭০ লাখ ডলারের নিট এফডিআই এসেছে দেশে। গত বছরের এই সময়ে এসেছিল ৩৭ কোটি ৫০ লাখ ডলার।

গত ২০২১-২২ অর্থবছরে সব মিলিয়ে ৪৭০ কোটি ৮০ লাখ (৪.৭১ বিলিয়ন) ডলারের এফডিআই এসেছিল দেশে, যা ছিল আগের বছরের (২০২০-২১) চেয়ে ৩৯ শতাংশ বেশি। নিট এফডিআই বেড়েছিল আরও বেশি, ৬১ শতাংশ। গত অর্থবছরে নিট এফডিআইর পরিমাণ ছিল ২ দশমিক ১৮ বিলিয়ন ডলার।

তার আগে ২০২০-২১ অর্থবছরে ৩৩৮ কোটি ৭০ লাখ ডলারের এফডিআই পেয়েছিল বাংলাদেশ। নিট এফডিআই এসেছিল ১ দশমিক ৩৫ বিলিয়ন ডলার।

আড়াই বছরের করোনা মহামারির ধাক্কা কাটতে না কাটতেই রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধে ওলট-পালট হয়ে যাওয়া অর্থনীতি নিয়ে যখন নানা হতাশা ও আতঙ্ক দেখা দিয়েছিল, তখন স্বস্তির ইঙ্গিত দিচ্ছিল বিদেশি বিনিয়োগ। পদ্মা সেতু, মেট্রোরেল, বঙ্গবন্ধু কর্ণফুলী টানেলসহ বেশ কয়েকটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলকে ঘিরে আগামী দিনগুলোতে দেশে বিদেশি বিনিয়োগ আরও বাড়বে বলে আশার কথা শুনিয়েছিলেন অর্থনীতিবিদ ও ব্যবসায়ী নেতারা।

‘তবে এই গতি আগামী দিনগুলোতে ভালো থাকার কোনো কারণ নেই’ ব্যাখ্যা করে অর্থনীতির গবেষক পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর দৈনিক বাংলাকে বলেন, ‘একটি দেশে বিদেশি বিনিয়োগ অনেক কিছুর ওপর নির্ভর করে। দেশে বিনিয়োগ না বাড়লে বিদেশি বিনিয়োগ আসে না। সন্তোষজনক রিজার্ভ থাকতে হয়। বিনিয়োগ সহায়ক পরিবেশ ও সরকারের নীতি-সহায়তা প্রয়োজন হয়।’

তিনি বলেন, ‘বেশ কিছু দিন ধরে দেশে বিনিয়োগ একই জায়গায় আটকে আছে; জিডিপির ৩১ থেকে ৩২ শতাংশের মধ্যে। ডলারের বাজারে অস্থিরতা চলছেই। এ কথা ঠিক যে, পদ্মা সেতুসহ কয়েকটি বড় প্রকল্প ঘিরে দেশে বিনিয়োগের একটি আবহ তৈরি হয়েছিল। কিন্তু যুদ্ধের ধাক্কায় সব ওলট-পালট হয়ে গেছে।

‘এত দিন রপ্তানি আয়ে ভালো গতি থাকলেও হঠাৎ করে সেটা কমতে শুরু করেছে। রেমিট্যান্স কমছে। রিজার্ভও বেশ কমে এসেছে। বাংলাদেশ ব্যাংক ৩৫ দশমিক ৭ বিলিয়ন ডলারের হিসাব দিলেও রপ্তানি উন্নয়ন তহবিলের (ইডিএফ) ৭ বিলিয়নসহ অন্য আরও কয়েকটি প্রকল্পে ১ বিলিয়ন ডলার মিলে ৮ বিলিয়ন ডলার বাদ দিলে তাৎক্ষণিক খরচ করার মতো রিজার্ভ কিন্তু ২৮ বিলিয়ন ডলারের কম। এই সপ্তাহেই আকুর (এশিয়ান ক্লিয়ারিং ইউনিয়ন) দেড় বিলিয়ন ডলারের মতো আমদানি বিল শোধ করতে হবে। তখন কিন্তু প্রকৃত রিজার্ভ আরও কমে ২৬ বিলিয়ন ডলারে নেমে আসবে।’

এ অবস্থায় দেশে বিদেশি বিনিয়োগ বাড়বে- এমন আশা সমীচীন নয় বলে মন্তব্য করেন ব্র্যাক ব্যাংকের চেয়ারম্যান ও দীর্ঘদিন আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলে (আইএমএফ) গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করা আহসান মনসুর।

২০১৯-২০ অর্থবছরে ৩২৩ কোটি ৩০ লাখ (৩.২৩ বিলিয়ন) ডলারের বিদেশি বিনিয়োগ পেয়েছিল বাংলাদেশ। নিট বিনিয়োগের অঙ্ক ছিল ১২৭ কোটি ১০ লাখ ডলার। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে প্রায় ৫ বিলিয়ন (৫০০ কোটি) ডলার বিদেশি বিনিয়োগ এসেছিল দেশে। এর মধ্যে নিট এফডিআইয়ের পরিমাণ ছিল ২৬৩ কোটি ডলার। বাংলাদেশের ইতিহাসে এক অর্থবছরে সবচেয়ে বেশি বিদেশি বিনিয়োগ আসে ওই বছর। এর মধ্যে বড় অঙ্কের বিনিয়োগ করে জাপানের কোম্পানি জাপান টোব্যাকো। আকিজ গ্রুপের তামাক ব্যবসা কেনা বাবদ প্রায় ১৫০ কোটি (১.৫ বিলিয়ন) ডলার বিনিয়োগ করেছিল তারা।

বিভিন্ন খাতে মোট যে সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ আসে, তা থেকে বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান মুনাফার অর্থ দেশে নিয়ে যাওয়ার পর অবশিষ্ট অঙ্ককে নিট এফডিআই বলা হয়।

করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পর থেকেই দেশে বিনিয়োগের আবহ তৈরি হয়। গত ২৫ জুন বহুল প্রতীক্ষিত পদ্মা সেতু চালু হয়েছে। এই সেতুকে ঘিরে কয়েক মাস ধরে দেশে বিভিন্ন খাতে নতুন বিনিয়োগ হচ্ছিল। সে কারণেই শিল্প স্থাপনের জন্য প্রয়োজনীয় মূলধনি যন্ত্রপাতি বা ক্যাপিটাল মেশিনারি, পরিবহন খাতের বাস-ট্রাক তৈরির যন্ত্রপাতিসহ অন্যান্য খাতের সব ধরনের যন্ত্রপাতি-সরঞ্জামের আমদানি বেশ বাড়ছিল। সব মিলিয়ে দেশে বিনিয়োগের পরিমাণ অনেক বেড়ে গেছে।

কিন্তু সরকার ও কেন্দ্রীয় ব্যাংক রিজার্ভের ওপর চাপ কমাতে আমদানির লাগাম টেনে ধরতে বেশ কিছু পদক্ষেপ নেয়ায় এখন আমদানি ব্যয় বেশ কমেছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যে দেখা যায়, গত ২০২১-২২ অর্থবছরে মূলধনি যন্ত্রপাতি আমদানি বেড়েছিল ৪১ শতাংশের মতো। কিন্তু চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) মূলধনি যন্ত্রপাতি আমদানির এলসি (ঋণপত্র) খোলার পরিমাণ কমেছে ৬৬ শতাংশ। শিল্পের কাঁচামাল আমদানির এলসি কমেছে ১৪ দশমিক ৫৭ শতাংশ। মধ্যবর্তী পণ্যের এলসি কমেছে ১৪ দশমিক ৫৬ শতাংশ।

দেশের বিনিয়োগ বৃদ্ধির অন্যতম প্রধান নিয়ামক বেসরকারি খাতের ঋণপ্রবাহের প্রবৃদ্ধি গত আগস্টে বেড়ে ১৪ দশমিক শূন্য ৭ শতাংশে উঠেছিল। যা গত চার বছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি। সেপ্টেম্বরে তা কমে ১৩ দশমিক ৯৩ শতাংশে নেমে এসেছে।

এদিকে নানা উদ্যোগের পরও কাটছে না ডলার সংকট। এর মধ্যে রপ্তানি ও রেমিট্যান্স কমছে। সেপ্টেম্বরের পর অক্টোবরেও অর্থনীতির গুরুত্বপূর্ণ এই দুই সূচকে নেতিবাচক (নেগেটিভ) প্রবৃদ্ধি হয়েছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, এই সেপ্টেম্বরে গত বছরের সেপ্টেম্বরের চেয়ে রেমিট্যান্স কমেছিল প্রায় ১১ শতাংশ। আর অক্টোবরে কমেছে ৭ দশমিক ৩৮ শতাংশ। অন্যদিকে রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্যে দেখা যায়, গত সেপ্টেম্বরে গত বছরের সেপ্টেম্বরের চেয়ে রপ্তানি আয় কমেছিল ৬ দশমিক ২৫ শতাংশ। আর অক্টোবরে কমেছে আরও বেশি ৭ দশমিক ৮৫ শতাংশ। এই দুই সূচক হোঁচটের কারণেই রিজার্ভ বেশ কমে এসেছে বলে জানিয়েছেন আহসান মনসুর।

বাংলাদেশে আমেরিকান বিনিয়োগকারীদের চেম্বার অ্যামচেমের সভাপতি সৈয়দ এরশাদ আহমেদ বলেন, ‘করোনার ধাক্কা সামলে বাংলাদেশের অর্থনীতি বেশ ভালোভাবেই ঘুরে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু যুদ্ধের কারণে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশের অর্থনীতিও বেশ ধাক্কা খেয়েছে। এ অবস্থায় দেশে বেশি বিদেশি বিনিয়োগ আসবে- এমনটা প্রত্যাশা করা উচিত হবে না।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে এফডিআইয়ের প্রধান সমস্যা হচ্ছে ব্র্যান্ডিং। বিদেশি বিনিয়োগকারীদের সামনে আমরা এখনো আমাদের ব্র্যান্ডিং যথাযথভাবে তুলে ধরতে পারিনি। এ ছাড়া আমাদের বন্দরের সমস্যা আছে। এত দিনেও আমরা আমাদের বন্দরের অটোমেশন করতে পারিনি। এখন নতুন করে যোগ হয়েছে গ্যাস ও বিদুৎ সমস্যা।

‘এগুলো ঠিক হলে বাংলাদেশে আরও বেশি বিনিয়োগ আসবে। বিদেশি বিনিয়োগকারীরা একা বিনিয়োগ করে খুবই কম। দেশি বিনিয়োগকারীদের হাত ধরে বিদেশি বিনিয়োগ আসে। সে কারণে বিদেশি বিনিয়োগ বাড়াতে হলে দেশি বিনিয়োগও বাড়াতে হবে।’

এরশাদ আহমেদ বলেন, ‘নিজস্ব অর্থে পদ্মা সেতু নির্মাণ বিশ্ব অঙ্গনে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছে। এই সেতু ঘিরে দেশে বিনিয়োগ বাড়বে। তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে অবশ্যই বিদেশি বিনিয়োগও আসবে। তবে, সেটার জন্য অপেক্ষা করতে হবে। বিশ্ব একটি কঠিন সময় পার করছে। এই সংকট কেটে গেলে, বাংলাদেশে এফডিআই বাড়বে। এই সময়ের মধ্যে আমাদের বিদেশি বিনিয়োগের ক্ষেত্রে যেসব প্রতিবন্ধকতা আছে, সেগুলো দূর করতে হবে।’

আন্তর্জাতিক রীতি অনুযায়ী, বিদেশি কোম্পানিগুলো তিনভাবে বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে পারে। মূলধন হিসাবে নগদ বা শিল্পের যন্ত্রপাতি হিসাবে, বাংলাদেশে ব্যবসা করে অর্জিত মুনাফা বিদেশে না নিয়ে পুনর্বিনিয়োগ করে এবং এক কোম্পানি অন্য কোম্পানি থেকে ঋণ নিয়ে বিনিয়োগ করতে পারে। এই তিন পদ্ধতির যেকোনোভাবে দেশে বিনিয়োগ এলে তা এফডিআই হিসেবে গণ্য করা হয়।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
topউপরে