জাতিসংঘ শান্তি মিশনে নিহত সেনা সদস্যর বাড়িতে শোকের মাতম

প্রকাশিত: অক্টোবর ৫, ২০২২; সময়: ৩:৪০ pm |
জাতিসংঘ শান্তি মিশনে নিহত সেনা সদস্যর বাড়িতে শোকের মাতম

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিরাজগঞ্জ : জাতিসংঘ শান্তি রক্ষা মিশনে মধ্য আফ্রিকা প্রজাতন্ত্রে কার্যক্রম পরিচালনা কালে বোমা বিস্ফোরণে নিহত ৩ সেনা সদস্যের এক জন শরিফুল ইসলামের সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলার বেড়া খাড়ুয়ার বাড়িতে চলছে শোকের মাতম। পরিবারের অন্যতম কর্মক্ষম ব্যক্তিকে হারিয়ে মা, বাবা, স্ত্রী, ভাই-বোন অনেকটা নির্বাক। শোকে মাতম এলাকাবাসীও।

বেলকুচি পৌর এলাকার বেড়াখারুয়া গ্রামের তাঁত শ্রমিক লেবু শেখের ২ ছেলে ১ মেয়ের মধ্যে বড় শরিফুল ইসলাম ২০১৭ সালের ২৩ নভেম্বর সেনাবাহিনীতে যোগ দেন। এরপর আফ্রিকান রিপাবলিক এ অবস্থান কালে গত ৩ অক্টোবর সেন্ট্রাল স্থানীয় সময় রাত ৮টা ৩৫ ঘটিকায় (বাংলাদেশ সময় ০৪ অক্টোবর ০১.৩৫ ঘটিকা) জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশন এর অপারেশন কার্যক্রম পরিচালনা করছিলেন।

তখন বাংলাদেশী শান্তিরক্ষীদের একটি গাড়ী ইমপ্রোভাইজড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইস (আইইডি) বিস্ফোরিত হয়। তখন ৩ জন বাংলাদেশী শান্তিরক্ষী নিহতদের মধ্যে ছিলেন শরিফুল ইসলাম। মৃত্যুর এ সংবাদ শোনার পর থেকেই তার বাড়ীতে চলছে শোকের মাতম।

নিজের সন্তানের মৃত্যুর খবর শোনার পর এবং ছেলের ছবি দেখে বারবার মূর্ছা যাচ্ছেন তারা। এ অবস্থায় বাবা লেবু শেখ, মা, ভাই বোন সহ এলাকার মানুষদের শোক ও কান্নায় ভারী হয়ে গেছে এলাকার আকাশ, বাতাস। এলাকার নিরহ পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী সন্তানকে হারিয়ে পরিবারটি এখন অসহায়।

তাই দেশের জন্য কাজ করতে যেয়ে চাকরিরত অবস্থায় মিশন শেষ করে বাড়ীতে আসার মাত্র দেড় মাসের আগেই মৃত্যু বরণ করায় নিহত শরিফুল ইসলামের ছোট ভাইকে চাকরি দেয়া সহ পরিবারটিকে দেখার জন্য সেনাবাহিনী এবং সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন স্বজন সহ এলাকাবাসী।

নিহত শরিফুল এক বছর আগে সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার সয়দাবাদ ইউনিয়নের বড় সারটিয়া গ্রামে বিয়ে করে ছালমা খাতুনকে। তার ছোট ভাই কাওসার হোসেন লেখাপড়া শেষ করে চাকরির চেষ্টা করছে। আর একমাত্র ছোট বোন এইচএসসিতে অধ্যয়ণরত লাকী খাতুনের বিয়ে হবার কথা ছিলো তার মিশন শেষ করে আসার পর। কিন্তু শরিফুলের মৃত্যুতে সাজানো সংসারটি এখন অগোছালো হয়ে গেল মনে করছে স্থানীয়রা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
topউপরে