নিয়ামতপুরে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে দূর্গোৎসব সমাপ্ত

প্রকাশিত: অক্টোবর ৫, ২০২২; সময়: ৩:২৫ pm |
নিয়ামতপুরে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে দূর্গোৎসব সমাপ্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক, নিয়ামতপুর : “আসছে বছর আবার হবে” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে মর্ত লোক ছেড়ে মা দূর্গা স্বামীর গৃহ কৈলাশে ফিরে গেলেন। প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যে দিয়ে শেষ হয়েছে বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রধান ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা।

এর আগে মন্ডপগুলোতে চলে সিঁদুর খেলা আর আনন্দ-উৎসব। হিন্দু বিধবা নারীরা প্রতিমায় সিঁদুর পরিয়ে দেন, নিজেরা একে অন্যকে সিঁদুর পরিয়ে দেন। চলে মিষ্টিমুখ, ছবি তোলা আর ঢাকের তালে তালে নাচ-গান। সাথে সাথে বৈশ্বিক মহামারীসহ যে কোন বিপথ পৃথিবী থেকে চিরতরে বিদায় করে দিবেন ভক্তদের এমনি প্রত্যাশায় শেষ হলো সোনাতন ধর্মাম্বলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দূর্গোৎসব।

সারা দেশের ন্যায় নওগাঁর নিয়ামতপুরেও গত ৫ অক্টোবর বুধবার সন্ধ্যায় প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হলো এই উৎসব। এবারে নিয়ামতপুর উপজেলায় মোট ৬৩টি মন্ডপে দূর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হয়। কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়ায় সম্পূর্ণ শান্তিপূর্ণ ভাবে পালিত হলো এই উৎসবটি।

“ধর্ম যার যার, উৎসব সবার” সমগ্র বাঙ্গালী তথা মুসলমান, হিন্দু, বৌদ্ধ, খৃষ্টার্ন সবাই এই দূর্গোৎসবে সামিল হয়েছিল। আইন শৃংখলা বাহিনী তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব যতাযথোভাবে পালন করেছে।

এ বিষয়ে উপজেলা পূজা উৎযাপন কমিটির সভাপতি বাবু ঈশ্বর চন্দ্র বর্মন এ প্রতিবেদককে বলেন, আমরা প্রতিবারের ন্যায় এবারও খুব সুন্দর ও শান্তিপূর্ণভাবে আমাদের দূর্গোৎসব পালন করতে পেরেছি। উপজেলার ৬৩টি পূজা মন্ডপে কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। আইন শৃংখলা বাহিনী তথা উপজেলা প্রশাসন আমাদের সার্বিক সহযোগিতা করেছেন। আমরা উপজেলা পূজা উৎযাপন কমিটির পক্ষ থেকে উপজেলা পরিষদ, উপজেলা প্রশাসন ও আইন শৃংখলা বাহিনীকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

উপজেলা পূজা উৎযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সুরঞ্জন বিজয়পুরী বলেন, এবারে আবহাওয়া তেমন অনুকূলে ছিলো না। তারপরেও আমাদের এই দূর্গোৎসবে আনন্দের কোন কমতি ছিল না। সবাই নির্বিঘ্নে স্বপরিবারে উৎসব পালন করতে পেরেছে। ষষ্টী থেকে দশমী পর্যন্ত আমি গোটা উপজলায় সার্বিকভাবে নজর রেখেছি। আইন শৃংখলা কিংবা পরিবেশের কোন ঘাড়তি হয়নি। এবারেও বাড়তী আনন্দ যোগ হয়েছে প্রতিবারের ন্যায় এবারও আমরা পাশে পেয়েছি মাননীয় খাদ্যমন্ত্রী মহোদয়কে।

এ জন্য আমি ও এলাকাবাসী গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের খাদ্য মন্ত্রণালয়ের মাননীয় খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার এমপি, উপজেলা চেয়ারম্যান জনাব ফরিদ আহমেদ, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফারুক সুফিয়ান ও অফিসার ইন চার্জ হুমায়ন কবির কে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

অফিসার ইন চার্জ হুমায়ন কবির বলেন, উৎসবের পুরোটাই আমার আইন শৃংখলা বাহিনী সদা তৎপর ছিল। আমার উপজেলায় কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই দূর্গোৎসব শেষ হয়েছে। আমার বাহিনী প্রতিমা বিসর্জন পর্যন্ত খুব সুন্দর ও সুষ্ঠুভাবে দায়িত্ব পালন করেছে। পুলিশ বাহিনীর পাশাপাশি গোয়েন্দা পুলিশ, গ্রাম পুলিশ, আনসার-ভিডিপির সদস্যরাও সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করেছে।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
topউপরে