তাহেরপুরে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ৫

প্রকাশিত: অক্টোবর ৩, ২০২২; সময়: ৭:০২ pm |
তাহেরপুরে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ৫

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাগমারা : রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার তাহেরপুর পৌরসভার ছাত্রলীগের পদ পেতে দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষের ঘটনায় ৫ জন ছাত্রলীগ কর্মী আহত হয়েছে। আহত ছাত্রলীগ কর্মীরা হলো শিশির কুমার, আপন ইসলাম, জাহিদ হাসান, রানা এবং শুভ্র কুমার। আহতদের মধ্যে কয়েক জনকে গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ঘটনা সূত্রে জানাগেছে, গত শুক্রবার তাহেরপুর পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র আবুল কালাম আজাদের সাথে পৌর ছাত্রলীগের কমিটির বিষয়ে সৌজন্য সাক্ষাত করতে আসে রাজশাহী জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাকিবুল ইসলাম রানা ও সাধারণ সম্পাদক জকির হোসেন আমি। পরে তারা হরিফলা মোড়ে পৌর আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে মেয়রের কালামের সাথে দেখা করেন।

এ সময় ছাত্রলীগের এক গ্রুপের ছেলেরা দলীয় কার্যালয়ের দরজা বন্ধ করে দেয়। কার্যালয়ের বাহিরে অবস্থান নেয়া আরেক গ্রুপের ছাত্রলীগের ছেলেরা ভেতরে প্রবেশের চেষ্টা করে। পরে ছাত্রলীগের এক গ্রুপের কিছু বিতর্কিত সুবিধাভোগী নামধারী ছাত্রলীগের ক্যাডার বাহিনীর সদস্যরা বাহিরে অবস্থান করা ছাত্রলীগ কর্মীদের উপরে হামলা করে। এসময় উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া এক পর্যায়ে সংঘর্ষ বেধে যায় দুই পক্ষের। এক পর্যায়ে মেয়র আবুল কালাম আজাদ নিজে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে। সর্বশেষ দুই পক্ষকে দুই দিকে সরিয়ে দেয় মেয়র।

এ দিকে ওই ঘটনার জের ধরে শনিবার সন্ধ্যার পরে হরিফলা মোড়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন আসাদুল ইসলামের গ্রুপের তাহেরপুর পৌর যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য শিশির কুমার ও আপন ইসলাম। ওই সময় তাদেরকে সামনে পেয়ে আগের দিনের ঘটনার জের ধরে বেধড়ক মারপিট করে ছাত্রলীগের লেবাস পরা পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ড বিএনপি নেতা ইউসুফ এর ছেলে শামীম, ৮ নং ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক সভাপতি দুলাল এর ছেলে তমাল, ১ নং ওয়ার্ডের বাবুল খার ছেলে সাফিন ও ৭ নং ওয়ার্ডের সাহিনসহ ৮-১০ জনের একটি বাহিনী। ওই সময় তাদেরকে উদ্ধারে এগিয়ে আসলে আরো কয়েক জনকে পিটিয়ে জখম করে তারা।

এ দিকে তাহেরপুর পৌর যুবলীগ নেতা আসাদুল ইসলামের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ছাত্রলীগের নাম ব্যবহার করে সব সময় জামায়াত-বিএনপি ও রাজাকারের পরিবারের সন্তানরা সুবিধা নিয়ে চলেছে। ছাত্রলীগের নীতি নৈতিকতা সম্পর্কে তাদের কোন ধারণা নেই। যাকে ইচ্ছে তারা মারপিট করে। তাদের কাছে প্রকৃত আওয়ামী লীগ পরিবারের সন্তান যারা ছাত্রলীগ করে আসছে তারা কোণঠাসা হয়ে পড়েছে। তাদের বিরুদ্ধে সঠিক ব্যবস্থা নেয়ার দাবী জানিয়েছেন তিনি।

বাগমারা থানার ওসি রবিউল ইসলাম বলেন, তাহেরপুর পৌর ছাত্রলীগের কমিটিতে পদ পাওয়া নিয়ে নিজেদের মধ্যে একটু মতোভেদ দেখা দিয়েছে। সেটা নিয়ে ধাক্কাধাক্কির ঘটনা ঘটেছে। এটা যেহেতু নিজেদের ভিতরের ঘটনা তাই মেয়র সাহেবকে বলা হয়েছে বিষয়টি মিটিয়ে দেয়ার জন্য। তবে এটা নিয়ে কোন পক্ষের অভিযোগ পাওয়া যায়নি। আভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
topউপরে