কচুয়ার প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে চলছে রমরমা ড্রেজার ব্যবসা

প্রকাশিত: অক্টোবর ৩, ২০২২; সময়: ৩:৫৬ pm |
কচুয়ার প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে চলছে রমরমা ড্রেজার ব্যবসা

নিজস্ব প্রতিবেদক, কচুয়া : চাঁদপুরের কচুয়া ও কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার মধ্যবর্তী ঐতিহ্যবাহী ঘুগরার বিলের পশ্চিম অংশের সুনাম বিনষ্ট করছেন অবৈধ ড্রেজার (বালু) ব্যবসায়ীরা।

বর্ষা মৌসুম প্রায় শেষ হলেও আসন্ন শুকনো মৌসুমকে সামনে রেখে এখনো এক শ্রেণীর অতি লোভী বালু ব্যবসায়ীরা ঐতিহ্যবাহী এ ঘুগরার বিলে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। ফলে এক দিকে ফসলি জমি নষ্ট অন্য দিকে বিলের সৌন্দর্য দিন দিন হারিয়ে যাচ্ছে।

জানা গেছে, কচুয়া উপজেলার সাচার এলাকার হাতিরবন্দ গ্রামের জনৈক ড্রেজার ব্যবসায়ী স্বপন মিয়া ও দূর্গাপুর গ্রামের আবু কালাম ও হারেছ মিয়া গত কয়েক বছর ধরে অবৈধ ভাবে ড্রেজার দিয়ে বিভিন্ন ফসলি জমি নষ্ট করে রমরমা এ ব্যবসা চালিয়ে আসছে। বিশেষ করে উপজেলা সদর থেকে দূরবর্তী বেকোয়াট (যাতায়াত ব্যবস্থা উন্নত না হওয়ার সুযোগে) সুযোগকে কাজে লাগিয়ে রমরমা এ বালু ব্যবসা করে নিজেদের কোটিপতি বনে গেছেন।

স্থানীয় কৃষক নুরুন্নবী পাঠান, কামাল হোসেন, আব্দুর রহমানসহ একাধিক কৃষক জানান, অবৈধ ভাবে ড্রেজার বসিয়ে ফসলি জমি নষ্ট করছে। কিন্তু বালু উত্তোলন কারী ব্যবসায়ীরা প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে কেউ ভয়ে মুখ খুলতে সাহস পায়নি। তবে প্রশাসন বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ড্রেজার বন্ধ করলেও পূনরায় কিছুদিন পর আবার ড্রেজার বসিয়ে বালু উত্তোলন করে যাচ্ছেন।

এলাকাবাসীরা জানান, প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে দীর্ঘ দিনের পর দিন এলাকার কিছু প্রভাবশালী লোকদের ম্যানেজ করে অবৈধ বালু উত্তোলনের কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। বিষয়টি এখনি নজর না দিলে ভবিষ্যতে ঘুগরার বিলের ঐতিহ্য হারিয়ে যাবে।

এছাড়া একই ভাবে সহদেবপুর, দারাশাহী তুলপাই, বক্সগঞ্জ, সেঙ্গুয়া, সিংআড্ডা, বাইছারা, চাংপুর-শিমুলতলী, দোয়াটি, গুলবাহার, লস্করী, নোয়াদ্দা, তেতৈয়া, বেরকোটা, উত্তর নয়াকান্দি, মাঝিগাছা, শিলাস্থান, পদুয়া, যুগিচাপড়, বিতারা, সফিবাদ, আইনপুর, রাগদৈল, জয়নগর, বায়েকসহ উত্তর অঞ্চলে বেশকিছু এলাকায় গত কয়েক মাস ধরে টানা ফসলি জমি নষ্ট করে মাঠকে মাঠ নষ্ট করে আসছে অসাধু বালু ব্যবসায়ীরা।

কচুয়া উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইবনে আল জায়েদ হোসেন জানান, বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে ড্রেজার ব্যবসায়ীদের জরিমানা ও ড্রেজার ভেঙ্গে দেয়া হচ্ছে। এ অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
topউপরে