বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে দক্ষতা এবং ইতিবাচক মনোভাব বিষয়ক সেমিনার

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২২; সময়: ৩:৩০ pm |
বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে দক্ষতা এবং ইতিবাচক মনোভাব বিষয়ক সেমিনার

নিজস্ব প্রতিবেদক : বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে বহুজাতিক কোম্পানিতে চাকুরীর জন্য প্রয়োজনীয় দক্ষতা এবং ইতিবাচক মনোভাব বিষয়ক একটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের উদ্যোগে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থায়ী ক্যাম্পাসে এই সেমিনারের আয়োজন করা হয়।

সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন, ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. কানিজ হাবিবা আফরিন এবং সঞ্চালনা করেন ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের প্রভাষক মৌসুমী সুলতানা।

সেমিনারের মূল বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সিমেন্স ইন্ডাস্ট্রিয়াল লিমিটেড বাংলাদেশ-এর এমডি এবং সিইও জনাব প্রসাদ পালসোকার। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানিত উপাচার্য প্রফেসর ড. ওসমান গনি তালুকদার।

উপস্থিত ছিলেন, বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় ট্রাস্টের সম্মানিত জেনারেল সেক্রেটারি জনাব এ. কে.এম. কামরুজ্জামান খান। সম্মানীয় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. আশিক মোসাদ্দিক ও বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাহী পরিচালক মো. শামীম আহসান পারভেজ।

সেমিনারে আরও উপস্থিত ছিলেন, সিমেন্স ইন্ডাস্ট্রিয়াল লিমিটেড বাংলাদেশ-এর সিনিয়র ম্যানেজার ফজলে হাসান ভূঁইয়া, ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের প্রফেসর ড. মোখলেসুর রহমান, প্রক্টর ও রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের প্রধান ড. মো. হাবিবুল্লাহসহ ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের বিভাগের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীবৃন্দ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তাবৃন্দ।

সেমিনারের শুরুতে স্বাগত বক্তব্যে জনাব মো. শামীম আহসান পারভেজ বরেন্দ্র বিশ^বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে বর্তমান সময়ে পৌঁছানোর বিভিন্ন ধাপ বা পর্যায় নিয়ে আলোকপাত করেন। তিনি বলেন, ‘একজন শিক্ষার্থীর সিজিপিএ অপেক্ষা আত্মবিশ্বাসকে ভাইবা বোর্ডে ফোকাস করা হয়।’

মূল বক্তা জনাব প্রসাদ পালসোকার বহুজাতিক কোম্পানি ও সেখানে চাকুরীর সুযোগ নিয়ে বিস্তর আলোচনা করেন। তিনি দক্ষতার উপর বেশি জোর দেন।

তিনি বলেন, মেশিন লার্নিং, প্রোগ্রামিং, কোডিং, ডাটা সায়েন্স, ক্লাউড কম্পিউটিং, এনার্জি ম্যানেজমেন্ট, অটোমেশন, সাইবার সিকিউরিটির মত দক্ষতা দ্বারা একজন ব্যক্তি অন্যদের থেকে এগিয়ে থাকবে এবং তারা দ্রুত পদোন্নতি পাবে।’ সততার প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘সততা ছাড়া একটি কোম্পানি সুপ্রতিষ্ঠিত হতে পারেনা। প্রত্যেক কর্মকর্তা-কর্মচারীর সততা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করা উচিত। নৈতিকতা এমন একটি বিষয় যেটির ফলে একজন ব্যক্তি তার কর্মপরিবেশকে সুন্দরভাবে দক্ষতার সাথে পরিচালনা করতে পারে।’ তিনি ইতিবাচক মনোভাব নিয়ে দুটো বিষয় বলেন, গ্রোথ মাইন্ডসেট ও ফিক্সড মাইন্ডসেট।

তিনি বলেন, ” You can’t teach old dog new tricks ” . একজন ব্যক্তিকে সব সময় নতুন কিছু শেখার কথা বলা হয়েছে। গ্রোথ মাইন্ড সেট এমন একটি বিষয় যেটা সাথে সাথে বা সময় নিয়ে শিখতে হয়। নতুন জিনিস নতুন হবে। এই মানসিকতাটাই হচ্ছে গ্রোথ মাইন্ড সেট। একটা কাজ একজন ব্যক্তির অজানা।

কিন্তু কাজটাকে শেখা এবং সেটা শিখতে যে প্রেরণা লাগে সেটাই গ্রোথ মাইন্ড সেট। নতুন কিছু শিখতে, জানতে, পড়তে, পরিচালনা করতে থাকাটাই গ্রোথ মাইন্ডসেট। আমি এখন একটি কাজ পারছি না কিন্তু সময় নিয়ে হলেও আমি পারবো, এটাই গ্রোথ মাইন্ড সেট এর বৈশিষ্ট্য।’

তিনি আরও বলেন, ‘ফিক্সড মাইন্ডসেট হলো আয়ত্তের বাইরে না করা। জানা বা পারার বাহিরে কোন কাজ না করাটাই এর বৈশিষ্ট্য। নতুন কিছু শিখতে না চাওয়া এবং যেটা শিখেছে সেটা দিয়েই কাজ চালিয়ে নেওয়া।’

এরপর বক্তব্য দেন ফজলে হাসান ভূঁইয়া। তিনি বলেন, ‘একজন ব্যক্তির সব সময় আশা প্রত্যাশা সর্বোচ্চ হতে হবে। আশা না থাকলে কোন কাজে উদ্যম পাওয়া যায় না। নতুন কিছু না শিখলে ভবিষ্যতের বিপদে পড়তে হয়। পৃথিবীতে সব সময় পুরাতনকে নতুন এর জায়গা করে দিতে হয়।’

প্রধান অতিথি প্রফেসর ড. ওসমান গনি তালুকদার শিক্ষার্থীদের সময়ের সাথে নিজেদের গড়ে তোলার বিষয়ে পরামর্শ প্রদান করেন। উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. আশিক মোসাদ্দিক ইতিবাচক মনোভাব কিভাবে একজন শিক্ষার্থীকে উজ্জিবিত করতে পারে, সে বিষয়ে আলোচনা করেন।

এরপর সেমিনারের সভাপতি প্রধান ড. কানিজ হাবিবা আফরিন সকলের প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন এবং সম্মানিত অতিথিদের হাতে উপহার সামগ্রী তুলে দেন। মূল বক্তা জনাব প্রসাদ পালসোকারের হাতে ক্রেস্ট তুলে দেন উপাচার্য প্রফেসর ড. ওসমান গনি তালুকদার।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
topউপরে