ইতিহাস ছাত্র থেকে অর্থনীতিবিদ যিনি

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৯, ২০২২; সময়: ১:৩১ pm |
ইতিহাস ছাত্র থেকে অর্থনীতিবিদ যিনি

আরিফ রহমান : ছিলেন ঢাবির ইতিহাস বিভাগের ছাত্র, হয়ে গেলেন অর্থনীতিবিদ। বলছি সদ্য প্রয়াত আকবর আলি খানের কথা। যাকে অনেকে বলেন জনগণের অর্থনীতিবিদ। বৃহস্পতিবার (৮ অক্টোবর) আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন প্রখর মেধাবী এই মানুষটি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগ থেকে ১৯৬৪ সালে সম্মান ও ১৯৬৫ সালে মাস্টার্স সম্পন্ন করেন দুটিতেই প্রথম শ্রেণীতে প্রথম হয়েছিলেন আকবর আলি খান।

তুখোড় মেধাবী মানুষ ছিলেন আকবর আলি খান। একুশ বছর বয়সে সেই সময়ের বিসিএস দিয়ে (পাকিস্তান সিভিল সার্ভিস) এসডিও হয়েছিলেন। মুক্তিযুদ্ধের সময় মাত্র ২৬ বছর বয়সের এই ছেলে খাদ্য গুদাম খুলে দিয়েছিলেন সাধারণ মানুষের জন্য। নিজের জিম্মার সব অস্ত্র স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে তুলে দিয়েছিলেন।

২৬ বছর বয়সের এই ছেলে স্বাধীন বাংলাদেশের জন্য তহবিল তৈরি করতে নিজের ক্ষমতা প্রয়োগ করে ব্যাংকের ভল্ট থেকে তিন কোটি টাকা উঠিয়ে ট্রাকে করে আগরতলায় পৌঁছে দেন। ১৯৭১ সালের জুলাই মাসে তিনি মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে ডেপুটি সেক্রেটারি বা উপসচিব হিসাবে পদস্থ হন। পাকিস্তান সরকার যুদ্ধের সময় তাকে পদচ্যুত করে ১৪ বছরের সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত করে।

১৬ই ডিসেম্বরে স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পর দেশে প্রত্যাবর্তন করে সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ে যোগ দেন। ১৯৭৩ সালে তিনি চাকরি ছেড়ে শিক্ষকতায় যোগদানের জন্য সিদ্ধান্ত নেন। এজন্য তিনি পদত্যাগপত্র জমা দিলেও বঙ্গবন্ধু তা গ্রহণে অস্বীকৃতি জানান। তাকে অবসর না দিয়ে শিক্ষকতা করার জন্য ছুটি দেয়া হয়।

কমনওয়েলথ বৃত্তির জন্য মনোনীত হবার আগে তিনি অল্প সময়ের জন্য জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন। বৃত্তির জন্য তিনি কানাডার কুইন্স বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দেন এবং সেখানে অর্থনীতি বিভাগে মাস্টার্স এবং পি. এইচ. ডি. ডিগ্রি অর্জন করেন।

মেধাবীরা সাধারণত পড়ালেখার ছন্দপতন ঘটান না। সেখানে তিরিশের পর নতুন একটি বিষয়ে মাস্টার্স করেই ক্ষান্ত হননি, পিএইচডি করেছেন কানাডার কুইন্স বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। ইতিহাস থেকে অর্থনীতির দিকে এভাবেই তাঁর যাত্রা শুরু হয়।

১৯৭৯ সালে দেশে ফেরত আসার পরে অল্প সময়ের মধ্যেই জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক পদে পদোন্নতি লাভ করেন। তাকে আবারো প্রশাসনের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে যোগ দেবার জন্য আহ্বান জানানো হলে তিনি সাভারের বিপিএটিসি-তে মেম্বার ডাইরেক্টিং স্টাফ (এমডিএস) হিসেবে যোগ দেন। এরপর ১৯৮৭ পর্যন্ত পর্যন্ত তিনি পল্লী উন্নয়ন বোর্ড, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ সরকারী কর্মকমিশন সচিবালয়ে কাজ করেন।

এরপর তিনি ওয়াশিংটনের বাংলাদেশ দূতাবাসে মিনিস্টার (ইকনমিক) পদে যোগ দেন। ঢাকায় ফিরে তিনি অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংকিং বিভাগে অতিরিক্ত সচিব পদে যোগ দেন। তার সময়ে তিনি বিসিসিএল ব্যাংকের পূনর্গঠন এবং বেসিক ব্যাংক অধিগ্রহণের কাজ করেন। অল্প সময়ের জন্য পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ে কাজ করে তিনি ১৯৯৩ এ সরকারের সচিব হিসাবে পদোন্নতি লাভ করেন। ১৯৯৩ থেকে ১৯৯৬ পর্যন্ত তিনি জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯৬ সালে তিনি অর্থ সচিব হিসাবে পদস্থ হন।

২০০১ সালে তিনি বিশ্বব্যাংকে বাংলাদেশের প্রতিনিধি হিসাবে বিকল্প কার্যনির্বাহী পরিচালক (অল্টারনেটিভ এক্সিকিউটিভ ডাইরেক্টর) পদে যোগদান করেন। বিশ্ব ব্যাংকে তিনি ২০০২ সাল থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত কাজ করেন।

বিশ্ব ব্যাংক থেকে অবসর গ্রহণের পর খান ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে সেন্টার ফর গভরর্ণমেণ্ট স্টাডিজ প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি সেখানে খণ্ডকালীন অধ্যাপক হিসেবে কাজ করেছেন।

আকবর আলী খান ২০০৬ সালে রাষ্ট্রপতি ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদের নেতৃত্বাধীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের একজন উপদেষ্টা ছিলেন। ইয়াজউদ্দিন রাষ্ট্রপতি থাকলে সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না এই আশঙ্কায় তার নেতৃত্বে চারজন উপদেষ্টার একযোগে পদত্যাগ করেন।

নানা কর্মকাণ্ডের মধ্যে নিমগ্ন আকবর আলী খান দেশের ঐতিহাসিক ও অর্থনৈতিক পরিবর্তন ও অগ্রগতি নিয়ে গবেষণা করছেন। একই সঙ্গে তিনি জীবনানন্দ দাশের কবিতা নিয়ে গবেষণা করছেন, গবেষণা করেছেন এই অঞ্চলে ইসলামের প্রসার নিয়ে।

আলি আকবর খানের গ্রন্থ ‘হিস্টোরি অফ বাংলাদেশ” বা বাংলাদেশের ইতিহাস’ এশিয়াটিক সোসাইটি কর্তৃক প্রকাশিত। বইটিতে তিনি বাংলাদেশের ঐতিহাসিক ও সামাজিক উত্থান ও পরিবর্তন নিয়ে গবেষণা করার পাশাপাশি দেশে ইসলাম ধর্মের বিকাশ নিয়ে আলোচনা করেছেন। তিনি অর্থনীতিবিষয়ক বই, পরার্থপরতার অর্থনীতি যাতে তিনি সরস ও প্রাঞ্জল ভাষায় অর্থনীতির জটিল বিষয়বস্তু ব্যাখ্যা করেছেন।

তার গ্রন্থ Some Aspects of Peasant Behaviour in Bengal : A Neo-classical Analysis ১৯৮২ সালে প্রকাশিত হয়। ১৯৯৬ সালে প্রকাশিত হয় তার Discovery of Bangladesh বইটি। তিনি জনপ্রশাসন বিষয়ের উপর ইংরেজি ভাষায় “গ্রেশাম’স ল সিনড্রোম অ্যান্ড বিয়ন্ড, অ্যান অ্যানালাইসিস অব দ্য বাংলাদেশ ব্যুরোক্রেসি” নামে একটি গ্রন্থ রচনা করেছেন। এটি ২০১৫ সালে ইউনিভার্সিটি প্রেস লি. কর্তৃক প্রকাশিত হয়েছে।

তার প্রকাশিত গ্রন্থের মধ্যে রয়েছে-

– পরার্থপরতার অর্থনীতি

– আজব ও জবর আজব অর্থনীতি

– দারিদ্র্যের অর্থনীতি : অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ

– অবাক বাংলাদেশ : বিচিত্র ছলনাজালের রাজনীতি

– বাংলায় ইসলাম প্রচারে সাফল্য

– দুর্ভাবনা ও ভাবনা রবীন্দ্রনাথকে নিয়ে

– বাংলাদেশে বাজেট অর্থনীতি ও রাজনীতি

– চাবিকাঠির খোঁজে: নতুন আলোকে জীবনানন্দের ‘বনলতা সেন’

– বাংলাদেশের সত্তার অন্বেষা

– পুরানো সেই দিনের কথা

ইতিহাস বিভাগের ছাত্র ছিলেন। নিজের বিভাগে প্রথম শ্রেণীতে প্রথম হয়ে প্রশাসনে চাকরি নেন। ২৬ বছর বয়সে মুক্তিযুদ্ধ করেন। তিরিশের পর উচ্চশিক্ষা অর্জনে বিদেশে যান। নিজের বিভাগ পরিবর্তন করে ইতিহাস থেকে চলে আসেন অর্থনীতিতে। শিক্ষক হিসাবে ভূমিকার চেয়ে বেশি ভূমিকা রাখেন আমলা হিসেবে। তারচেয়ে বেশি ভূমিকা রাখেন অর্থনীতিবিদ হিসেবে। পঞ্চাশের পর লেখালেখি শুরু করেন। অর্থনীতিকে এতো সুন্দর ভাষায় তার আগে আর কেউ নিয়ে আসেনি মানুষের দোরগড়ায়।

শেষে এসে রাজনীতি, কবিতা, ধর্ম সবই হয়ে উঠেছিলো তার চর্চার বিষয়। যেখানে হাত দিয়েছেন সেখানে ফলেছে সোনা। তিনি শিখিয়ে গেছেন কখনোই কোন কাজে দেরি হয়ে যায় না। তার রচনা আরও অনেক বছর বাংলার মানুষের কাজে লাগবে।

লেখক- গণমাধ্যম কর্মী, একাত্তর টেলিভিশন

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও খবর

  • শেখ হাসিনা: হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি নারী
  • পররাষ্ট্রনীতি: বাংলাদেশের শরীরে নতুন ডানা
  • ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক সাম্রাজ্যের শেষ প্রতীক রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ
  • ইতিহাস ছাত্র থেকে অর্থনীতিবিদ যিনি
  • প্রধানমন্ত্রীর দিল্লি সফরের রাজনৈতিক তাৎপর্য
  • সার সঙ্কটে ব্যহত হবে উৎপাদন
  • মিশেলের বাংলাদেশ সফর এবং প্রাসঙ্গিক কিছু প্রশ্ন
  • বিশ্ববিদ্যালয়ে অব্যবস্থাপনা ও আমাদের করণীয়
  • শেখ হাসিনা দেশে ফেরার পর ‘বঙ্গবন্ধু’ উচ্চারণ সহজ হয়
  • হত্যাকাণ্ডের ২ মাস পর ঢাবিতে ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু’
  • জাতির পিতার উন্নয়ন ভাবনা
  • বীরের সঙ্গে, বীরবন্ধুর দেশ ভারতের মেঘালয়ে
  • মানুষের পকেটে টানাটানি
  • বজ্রপাত প্রতিরোধক পরম বন্ধু তালগাছ
  • বাজারে চোর ঢুকেছে…
  • উপরে