বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক রক্তের বন্ধনে আবদ্ধ : শেখ হাসিনা

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৭, ২০২২; সময়: ১১:২৮ pm |
বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক রক্তের বন্ধনে আবদ্ধ : শেখ হাসিনা

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক রক্তের বন্ধনে আবদ্ধ। কারণ অনেক ভারতীয় নাগরিক বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য রক্ত দিয়েছেন।

বুধবার (৭ সেপ্টেম্বর) নয়াদিল্লিতে ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে ভারতের শহীদ সেনাসদস্যদের পরিবারের হাতে সম্মাননা তুলে দিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

এ সময় শেখ হাসিনা বলেন, বিশ্বে বাংলাদেশ ভারত কূটনৈতিক সম্পর্ক বিশ্বের কাছে রোল মডেল। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকে বিশ্বনেতা হিসাবে উল্লেখ করেন।

অনুষ্ঠানের ফাঁকে কথা হয় ভারতীয় শহীদের কন্যার সঙ্গে। তিনি সিপাহী নারায়ণ সিংয়ের কন্যা বিমলা চাঁদ। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে নারায়ণ সিং যখন অংশ নেন তখন তার বয়স ছয় বছর।

শহীদ বাবার কথা মনে করে তিনি বলেন, বাংলাদেশ তার পরিবারকে যে সম্মান দিল তার জন্য ধন্যবাদ। এই সম্মানকে তিনি ও তার পরিবার আজীবন মনে রাখবেন।

তার মতো দশ পরিবার দিল্লির আইটিসি হোটেলে এক হয়েছিলো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে বঙ্গবন্ধু স্কলারশিপ বুঝে নিতে।

যেসব ভারতীয় সেনা ও নাগরিক একাত্তরের বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদ বা গুরুতর আহত হয়েছেন তাদের উত্তরাধিকাররাই পেয়েছেন এই বিশেষ স্কলারশিপ।

বাংলাদেশের পক্ষ থেকে মাধ্যমিক স্তরের ১০০ শিক্ষার্থীকে পাঁচশ’ ডলার এবং উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের ১০০ শিক্ষার্থীকে এক হাজার ডলার স্কলারশিপ দেয়া হয়।

শেখ হাসিনা বলেন, ভারতীয় সৈনিকদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে তাঁদের বংশধরদের জন্য আমাদের এই শুভেচ্ছা উপহার, যারা আমাদের জন্য ১৯৭১ সালে সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করেছিলেন।

তিনি বলেন, আমরা ভারতীয় ভাইদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই যারা আমাদের মুক্তিযুদ্ধে তাদের অমূল্য জীবন উৎসর্গ করেছেন এবং রক্ত দিয়েছেন।

যারা তাদের জীবন উৎসর্গ করেছেন তাদের স্মরণ করা আমাদের জন্য সর্বদা গর্বের বিষয়। আপনাদের আমার অভিবাদন, হে সাহসী হৃদয়, আমাদের বীরদের।

শেখ হাসিনা বলেন, যেহেতু আমরা পূর্বপুরুষদের উত্তরাধিকারকে এগিয়ে নিয়ে যেতে আগ্রহী, তাই তরুণ প্রজন্মকে সেই ঐতিহাসিক অতীতের সাথে যুক্ত করতে আমাদের এই প্রচেষ্টা।

তিনি বলেন, আশা করা যায় বৃত্তিপ্রাপ্তরা পূর্বপুরুষদের বীরত্বের স্মৃতি পুনরায় ঘুরে দেখার, বর্তমান পরিস্থিতির সাথে সম্পর্কিত ও দুদেশের মধ্যে সেতুবন্ধন চালিয়ে যাওয়ার সুযোগ পাবে।

অনুষ্ঠানে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জয়শঙ্কর বললেন, এই স্কলারশিপ দুই দেশের সৌহার্দ্যের প্রতীক প্রতীক হয়ে থাকবে। এ সময় তিনি বঙ্গবন্ধুকে বিশ্বনেতা হিসাবে উল্লেখও করেন।

এ পর্যন্ত ভারত দশ হাজারের বেশি ছাত্রকে মুক্তিযুদ্ধ স্কলারশিপ দিয়েছে। বাংলাদেশ এবারই প্রথম এই স্কলারশিপ চালু করলো ভারতীয়দের জন্য।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০১৭ সারের এপ্রিলে আমি নয়াদিল্লীতে মোদিজির উপস্থিতিতে বীর যোদ্ধাদের বংশধর ও পরিবারের নিকটাত্মীয় সদস্যদের পুরষ্কার প্রদানের জন্য সম্মান পেয়েছি।

প্রধানমন্ত্রী আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের ভারতে তাদের চিকিৎসার জন্য সহায়তা প্রদানের পাশাপাশি তাদের পরিবারের সদস্যদের বৃত্তি প্রদানের জন্য ভারত সরকারের পদক্ষেপের প্রশংসাও করেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও খবর

  • কুখ্যাত রাজাকার খলিলুর রহমান গ্রেপ্তার
  • বড়াইগ্রামে পৃথক দুই ঘটনায় শিক্ষিকা ও শিশুর মৃত্যু
  • সিংড়ায় মুয়াজ্জিন নিয়োগ কেন্দ্র করে বাড়ি ঘরে হামলা ভাংচুর
  • নলডাঙ্গার নিহত ছাত্রলীগ নেতার বাড়িতে প্রতিমন্ত্রী, এমপি ও কেন্দ্রিয় আ.লীগ নেতৃবৃন্দরা
  • সোনামসজিদ স্থলবন্দর ৬ দিন বন্ধ
  • মহাদেবপুরে নাকে খত দিয়ে শিশু ধর্ষণ চেষ্টার আপোষ
  • সিরাজগঞ্জে শিশু হত্যার দায়ে যুবকের মৃত্যুদন্ড
  • চিরকুট লিখে রাবি ছাত্রীর ‘আত্মহত্যা’, সুষ্ঠু তদন্তের দাবি
  • প্রধানমন্ত্রীর ৭৬তম জন্মদিন বুধবার
  • গৃহবধূকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় ১০ জনের যাবজ্জীবন
  • রাজশাহীসহ ২০ জেলার নদীবন্দরে সতর্কতা
  • লাইসেন্স নবায়নে বিশেষ সুবিধার ঘোষণা রাসিকের
  • করতোয়ায় নৌকাডুবি অতিরিক্ত যাত্রীর চাপে : তদন্ত কমিটি
  • মেয়েকে খাবার খাওয়াতে ‘মা রোবট’ বানালেন বাবা
  • চীনকে ‘বিশেষ’ ভূমিকায় চায় বাংলাদেশ
  • উপরে