সুজানগরে এরশাদ হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৬, ২০২২; সময়: ৭:৫৩ pm |
সুজানগরে এরশাদ হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন

এম এ আলিম রিপন, সুজানগর : পাবনার সুজানগরে এরশাদ শেখকে(৩৪) গুলি করে হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে এলাকাবসাসী। সোমবার বিকালে বিক্ষোভ মিছিল শেষে থানার সামনে সুজানগর-পাবনা সড়কে ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধ কর্মসূচি পালন করে তাঁরা।

মানববন্ধনে বক্তব্য প্রদানকালে এরশাদ শেখের পিতা মোয়াজ্জেম শেখ কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, বিনা কারণে নির্মমভাবে আমার ছেলেকে গত রবিবার রাতে গুলি করে হত্যা ও কয়েকজন নারী-পুরুষকে কুপিয়ে জখম করেছে উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আজম আলী বিশ্বাসের ছেলে হালিম বিশ্বাসের নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা। আমি আমার ছেলের হত্যাকারীদের ফাঁসি চাই। আমার ছেলে হত্যার বিচার দেখে যাতে আর কেউ এ ধরণের কাজ করতে সাহস না পায়। এ সময় অন্যদের মাঝে বক্তব্য দেন নিহত এরশাদের বোন স্বর্ণা খাতুন ও সুবর্ণা খাতুন,সাবেক ইউপি সদস্য আকুব্বর শেখ,ইয়াছিন শেখ,লতিফ শেখ ও সিদ্দিক শেখ প্রমুখ। তাঁরা এ হত্যা মামলার প্রধান আসামি হালিম বিশ্বাস সহ অপর সকল আসামিকে অবিলম্বে গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবি জানান।

উল্লেখ্য উপজেলার ভাঁয়না ইউনিয়নের চরবিশ্বনাথপুর গ্রামে উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আজম আলী বিশ্বাস পক্ষের লোকজনের সাথে স্থানীয় মোকাই শেখ পক্ষের পূর্ব বিরোধ ও স্থানীয় চরবিশ্বনাথপুর মাদারতলায় রাস্তার পাশে দোকান দেওয়াকে কেন্দ্র করে তাদের উভয়ের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে মনোমালিন্য চলছিল। এরই ধারাবাহিকতায় গত রবিবার সন্ধ্যায় বিএনপি নেতা আজম আলী বিশ্বাসের চাচাতো ভাই আক্কাজ বিশ্বাসের ছাগল মুকাই শেখের জমিতে গিয়ে ঘাস খাওয়াকে কেন্দ্র করে প্রথমে উভয়ের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। এবং পরবর্তীতে রাতে উভয় পক্ষের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পরে। এ সময় এরশাদ শেখ গুলিবিদ্ধ সহ আরো অন্তত ১১ জন আহত হন।

পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় বিএনপি কর্মী এরশাদ শেখকে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করে। এ ঘটনায় নিহত এরশাদ শেখের পিতা মোয়াজ্জেম শেখ সুজানগর উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আজম আলী বিশ্বাস ও তার ছেলে হালিম বিশ্বাস সহ ১৭ জন এবং অজ্ঞাত আরও কয়েকজনকে আসামী করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করলে পুলিশ অভিযান চালিয়ে উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আজম আলী বিশ্বাস,স্থানীয় বিএনপি নেতা রফিক বিশ্বাস ও মামুন বিশ্বাসকে গ্রেফতার করে গত সোমবার পাবনা কোর্টে প্রেরণ করে।

এছাড়া উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আজম আলী বিশ্বাসের লাইসেন্সকৃত বন্দুকটি জব্দ করে পুলিশ। এ বিষয়ে সুজানগর থানার ওসি আব্দুল হাননান জানান, লাইসেন্সকৃত নাকি অবৈধ অস্ত্র দ্বারা এরশাদকে শেখকে হত্যা করা হয়েছে তা তদন্ত শুরু করছে পুলিশ। এছাড়া মামলার অপর আসামীদের গ্রেফতার করতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
topউপরে