ভুয়া খবর প্রচারে ভারতে ‌‘সেরা’ পশ্চিমবঙ্গ

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৩, ২০২২; সময়: ৯:৫৯ am |
ভুয়া খবর প্রচারে ভারতে ‌‘সেরা’ পশ্চিমবঙ্গ

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : ভারতে ২০২১ সালে ভুয়া খবর সবচেয়ে বেশি ছড়িয়েছে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য থেকে। দেশটির ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরো (এনসিআরবি) প্রকাশিত তথ্য অনুসারে, পশ্চিমবঙ্গে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ৪৩টি ভুয়া খবরের ঘটনা ঘটেছে। শুধু কলকাতায় ভুয়া খবরের সংখ্যা ২৮টি। যা ভারতে মোট এ ধরনের মামলার প্রায় এক-চতুর্থাংশ।

২০১৯ সালের লোকসভা ভোটে বিজেপির ভোট ব্যাংকে ব্যাপক উত্থান ঘটে। গেরুয়া দলের টার্গেট ছিল ২০২১ সালের ভোট। পাল্টা তৃণমূলও রাশ ধরে রাখতে মরিয়া ছিল। ফলে প্রচারের উত্তাপ তুঙ্গে উঠেছিল। সোশাল মিডিয়ায় প্রচার অন্য মাত্রায় পৌঁছেছিল। সামাজিক মাধ্যমে মাত্রা ছাড়া উত্তেজনা ছড়ায়।

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা ও গণযোগাযোগ বিভাগের প্রধান অধ্যাপক চট্টোপাধ্যায়ের কথায়, এটি উদ্বেগের বিষয় কিন্তু আশ্চর্যজনক নয়। কারণ পোস্ট-ট্রুথ যুগে রাজনৈতিক প্রচার, জনগণের কাছে পৌঁছানোর জন্য অনৈতিক উপায় গ্রহণ করছে। এটি আরও প্রাধান্য পাচ্ছে।

তিনি বলেন, আইনি সমস্যার চেয়েও এটি একটি নৈতিক বিষয়। এই বিপদ মোকাবিলায় আমাদের নৈতিক কাঠামোকে শক্তিশালী করতে হবে। জনগণকে সচেতন করার জন্য কিছু প্রচেষ্টা করা হচ্ছে তবে আমাদের আরও সমন্বিত প্রচেষ্টা দরকার।

তালিকায় পশ্চিমবঙ্গের পরেই রয়েছে তেলেঙ্গানা। ওই রাজ্যে ৩৪টি ও উত্তর প্রদেশ ২৪টি ভুয়া খবর ধরা পড়েছে। সব মিলিয়ে ভারতে ১৭৯টি মামলার রিপোর্ট হয়েছে। শতাংশের বিচারে পশ্চিমঙ্গের ক্ষেত্রে যায় ২৪ শতাংশ।

দেশের ১৯টি মেট্রো শহরে রেকর্ড করা সমস্ত অপরাধের প্রায় ৬০ শতাংশই কলকাতার। ভুয়া খবরের সংখ্যা ২৮টি। কলকাতার পরেই রয়েছে মুম্বাই ও হায়দ্রাবাদ। এ দুই শহরেই ৮টি করে মামলা রেকর্ড করা হয়েছিল।

এদিকে পশ্চিমবঙ্গে ভুয়া খবরের ঘটনা বৃদ্ধির জন্য তৃণমূল কংগ্রেস ও বিজেপি একে অপরকে দায়ী করেছে।

তৃণমূলের মুখপাত্র দেবাংশু ভট্টাচার্য অভিযোগ করেছেন যে, রাজ্যে বিজেপির উত্থানের সঙ্গেই পশ্চিমবঙ্গে ভুয়া খবর বেড়েছে। সামাজিক মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলোকেও এর জন্য দায়ী করা উচিত। দেশের অন্যান্য অংশে ভুয়া খবরের সংস্কৃতি বিদ্যমান ছিল কিন্তু পশ্চিমবঙ্গ ছিল ব্যতিক্রম।

দেবংশুর বলেন, বিজেপি কেন্দ্রে ক্ষমতায় আসার পরে, সোশাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলো কেনার চেষ্টা করেছিল। আমরা যদি অন্য কোনো হ্যান্ডেল দ্বারা পোস্ট করা ভুয়া খবর রিপোর্ট করি, তবে সেই পোস্টগুলো অবিলম্বে সরিয়ে দেওয়া হবে। তবে বারবার রিপোর্ট করা সত্ত্বেও বিজেপির প্রচারের ভুয়া পোস্টগুলোর বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি।

পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির সোশাল মিডিয়া ইনচার্জ উজ্জ্বল পারীক জানিয়েছেন, তার দল গত বছরের বিধানসভা নির্বাচনের সময় সোশাল মিডিয়াতে একটি ইতিবাচক প্রচার চালিয়েছিল ও টিএমসিকে বেশি সংখ্যক ভুয়া খবরের মামলার জন্য দায়ী করেছিল।

তিনি বলেন, আমরা সোশাল মিডিয়া ব্যবহারে অত্যন্ত দায়িত্বশীল ছিলাম। জনগণের সমস্যা তুলে ধরে একটি ইতিবাচক প্রচারের নেতৃত্ব দিয়েছিলাম। এটা বেশ স্পষ্ট যে টিএমসি ভুয়া খবর করেছিল।

সিপিআই (এম) এ বিপদের জন্য টিএমসি ও বিজেপি উভয়কেই দায়ী করেছে। দল দুটি একে অপরের দৃষ্টিভঙ্গি ও কীভাবে তাদের ব্যবহার করতে হবে তা জানে। কেউ এই ইস্যুতে আমাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলতে পারে না কারণ আমরা কিছু নীতি বজায় রাখি।

কলকাতা প্রেসক্লাবের সভাপতি স্নেহাশীষ সুর বলেন, সংবাদ প্রকাশের আগে সাংবাদিকদের তাদের তথ্য কয়েকবার যাচাই করা উচিত। একজন সাংবাদিকের কখনোই রিপোর্ট করার সময় যেকোনো বিষয়ে ধারণাকে উপেক্ষা করা উচিত নয়। সন্দেহ হলেই খবর যাচাই করা উচিত।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও খবর

  • মেয়েকে খাবার খাওয়াতে ‘মা রোবট’ বানালেন বাবা
  • রাশিয়ার সঙ্গে যোগ দিয়েছেন ইউক্রেনের ২ হাজার সেনা
  • সিরিয়ায় কলেরায় ২৯ জনের মৃত্যু
  • রাশিয়ায় স্কুলে বন্দুকধারীর হামলায় নিহত বেড়ে ১৩
  • অবশেষে ভুল স্বীকার করল রাশিয়া
  • রাশিয়ায় স্কুলে গোলাগুলি, নিহত ৬
  • কার হাতে যাচ্ছে ব্রিটিশ রানির গয়না, পোশাক
  • করোনার পর বাদুড় থেকে ছড়াচ্ছে নতুন এক ভাইরাস
  • প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী পাচ্ছে ইতালি
  • ইরানে সহিংস বিক্ষোভ অব্যাহত, ছড়িয়ে পড়ছে বিভিন্ন দেশে
  • ইউক্রেনে যুদ্ধের জন্য বৃদ্ধ-অসুস্থদের তলব, ভুল স্বীকার রাশিয়ার
  • পরমাণু অস্ত্র ব্যবহার করলে রাশিয়ার যে ভয়াবহ পরিণতির হুশিয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের
  • বাড়িতে বউ রেখে পরকীয়া, প্রেমিকার সঙ্গে স্বামীর বিয়ে দিলেন স্ত্রী
  • করোনা আক্রান্তের শীর্ষে জাপান, মৃত্যুতে রাশিয়া
  • নাইজেরিয়ায় মসজিদে সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের হামলা, নিহত ১৫ মুসল্লি
  • উপরে