তৃণমূল নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন শেখ হাসিনা

প্রকাশিত: আগস্ট ১৫, ২০২২; সময়: ১২:৫৮ pm |
তৃণমূল নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন শেখ হাসিনা

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : দলের তৃণমূল নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ধারাবাহিক বৈঠকে সাংগঠনিক অবস্থার পাশাপাশি দেশের সার্বিক পরিস্থিতি এবং এ বিষয়ে জনগণের মনোভাব সম্পর্কে অবহিত হবেন তিনি।

আগামী জাতীয় নির্বাচনের আগেই অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব-কোন্দল মিটিয়ে দলকে সুসংগঠিত ও শক্তিশালী করার দিকনির্দেশনাও দেবেন শেখ হাসিনা। রোববার গণভবনে আওয়ামী লীগের আটজন বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদকের সঙ্গে বৈঠককালে এ সিদ্ধান্তের কথা জানান প্রধানমন্ত্রী।

তিনি আরও জানান, সরকারি কাজকর্ম নিয়ে ব্যস্ততার ফাঁকে পর্যায়ক্রমে জেলা পর্যায়ের নেতাদের বৈঠকে ডাকবেন তিনি। তবে যেসব জেলায় সম্মেলন হওয়ার পরও কমিটি পূর্ণাঙ্গ হয়নি, সেসব জেলার নেতাদের ডাকা হবে না। এ কারণে সম্মেলন হওয়া জেলাগুলোর কমিটি দ্রুত পূর্ণাঙ্গ করতে হবে।

সূত্র জানিয়েছে, আগামী ৬-৭ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী ভারত সফর শেষে দেশে ফেরার পরপরই জেলা নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে বসতে পারেন। অল্পসংখ্যক নেতাকে ডেকে ছোট পরিসরে বৈঠকগুলো হবে। আগামী ডিসেম্বরে দলের জাতীয় সম্মেলনের আগ পর্যন্ত ধারাবাহিক বৈঠক হবে।

গণভবনে বৈঠকে দেশে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধিতে মানুষের দুর্ভোগ নিয়েও আলোচনা হয়েছে। প্রকৃত চিত্র মানুষের মধ্যে তুলে ধরার জন্য নেতাদের প্রতি আহ্বান জানান শেখ হাসিনা। দলের নেতাকর্মীদেরও সাশ্রয়ী হওয়ার এবং কৃচ্ছ্রসাধনের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, এই সংকট দ্রুতই কেটে যাবে, পরিস্থিতিও বদলাবে।

কোনোভাবেই বিদ্যুৎ ও জ্বালানিসহ রাষ্ট্রীয় সম্পদের অপচয় করা যাবে না। মানুষের দুর্ভোগ নিরসনে সরকারি পদক্ষেপগুলো তুলে ধরে তাদের আশ্বস্ত করতে হবে। সবাইকে সামর্থ্য অনুযায়ী খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধিতে মনোযোগী হওয়ার পরামর্শও দিতে হবে।

বৈঠকে জাতির পিতার শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে আজ টুঙ্গিপাড়ার কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ প্রসঙ্গে জানতে চান প্রধানমন্ত্রী। জ্বালানি সাশ্রয়ের লক্ষ্যে কেন্দ্রীয় নেতাদের সবাইকে একসঙ্গে বাসে করে টুঙ্গিপাড়া যাওয়ার নির্দেশ দেন তিনি।

আড়াই ঘণ্টার এই বৈঠকের আট বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক নিজ নিজ বিভাগের লিখিত সাংগঠনিক রিপোর্ট তুলে ধরেন। রিপোর্টে বিভিন্ন জেলা-উপজেলা সম্মেলন ও সাংগঠনিক সমস্যাসহ দ্বন্দ্ব-কোন্দল এবং এগুলো নিরসনে গৃহীত পদক্ষেপের কথা তুলে ধরা হয়। এ সময় সব জায়গায় দ্বন্দ্ব-কোন্দল নিরসনের মাধ্যমে দলকে শক্তিশালী করার নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে বৈঠকে আট সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেল হক, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, এসএম কামাল হোসেন, মির্জা আজম, অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন, সফিউল আলম চৌধুরী নাদেল এবং সাখাওয়াত হোসেন শফিক যোগ দেন। এ ছাড়া দলের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ এবং দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ূয়া উপস্থিত ছিলেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে