সৌদি আরবে গৃহকর্মী আইন পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত

প্রকাশিত: আগস্ট ১৪, ২০২২; সময়: ১:১০ pm |
সৌদি আরবে গৃহকর্মী আইন পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : সৌদি আরবে গৃহকর্মী আইন পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটির সরকার। নতুন সিদ্ধান্তে কর্মস্থল পরিবর্তনের সুযোগ পাবেন গৃহকর্মীরা। দেশটির মানবসম্পদ ও সামাজিক উন্নয়ন বিভাগ এ সিদ্ধান্তের তথ্য জানিয়েছে।
সৌদি আরবে গৃহকর্মী আইন পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত

বিভিন্ন সময়ে সৌদি আরবে নারী গৃহকর্মীদের নির্যাতন ও নিগৃহীত হওয়ার খবর উঠে আসে গণমাধ্যমে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে গৃহকর্মী হিসেবে যারা কাজ করতে দেশটিতে আসেন, তারা শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতনের শিকার হন। এদের মধ্যে বেশির ভাগই বাংলাদেশ, পাকিস্তান, ফিলিপিন্সসহ এশিয়ার উন্নয়নশীল দেশের দরিদ্র নারীকর্মী। বছরের পর বছর নির্যাতনের শিকার হয়েও একই বাড়িতে কাজ করতে বাধ্য হন তারা।

তবে এবার বিদেশি নারী গৃহকর্মীদের জন্য সৌদি শ্রম আইন পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটির সরকার। নতুন এ পরিবর্তনের ফলে নারী গৃহকর্মীরা তাদের কর্মস্থল পরিবর্তনের সুযোগ পাবেন। নতুন আইনে পুরোনো চাকরিদাতার অনুমতি ছাড়াই অন্য জায়গায় চাকরি নেয়ার সুযোগ দেয়া হয়েছে গৃহকর্মীদের। তবে সৌদি সরকার গৃহকর্মীদের সুবিধার জন্য আইন পরিবর্তন করলেও দালালদের কারণে বাংলাদেশের গৃহকর্মীরা কতখানি সুবিধা করতে পারবেন, তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।

বুধবার (১০ আগস্ট) সৌদি আরবে গৃহকর্মী আইন পরিবর্তনের সিদ্ধান্তের বিষয়ে জানায় দেশটির মানবসম্পদ ও সামাজিক উন্নয়ন বিভাগ।

এ বিষয়ে মানবসম্পদ ও সামাজিক উন্নয়ন বিভাগের প্রেসিডেন্ট ড. আওয়াদ আলাওয়াদ বলেন, এই সংস্কারগুলো নতুন নীতির একটি উদাহরণ, যা দেশে লাখ লাখ বিদেশি কর্মীর কাজের গতিশীলতা, চলাচলের স্বাধীনতা বৃদ্ধি করবে।

একজন প্রবাসী বাংলাদেশি বলেন, ‘বাংলাদেশ থেকে যেসব মা-বোন এ দেশে কাজের জন্য আসেন, তারা যেন নির্যানের শিকার না হন, সে জন্য সৌদি সরকার কঠোর আইন করেছে।’ আরেক বাংলাদেশি বলেন, এখানে যারা নতুন করে আসছেন তারা নিজের ইচ্ছামতো কাজ করতে পারবেন এখন থেকে।

নতুন আইনে সৌদি আরবের শ্রম মন্ত্রণালয় যে পরিবর্তন এনেছে, তার আওতায় ঠিকমতো বেতন-ভাতা না দিলে বা বিপজ্জনক কাজে নিয়োজিত করলে গৃহকর্মীরা এটা নিয়ে কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করতে পারবেন। এ ছাড়া কর্মীর অনুমতি ছাড়াই চাকরিদাতা যদি তাকে অন্য ব্যক্তির কাজে নিয়োজিত করেন এবং শিক্ষানবিশ সময়ে যদি চাকরির চুক্তি বাতিল করেন, তাহলে কর্তৃপক্ষ ওই নিয়োগকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে