সবার জন্য ঠিকানা নিশ্চিত করবে সরকার: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত: জুলাই ২১, ২০২২; সময়: ১২:১১ pm |
সবার জন্য ঠিকানা নিশ্চিত করবে সরকার: প্রধানমন্ত্রী

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দলমত নির্বিশেষে সবার জন্য ঠিকানা নিশ্চিত করবে সরকার।

ভূমিহীন ও গৃহহীন মানুষের জন্য আবাসন ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে আশ্রায়ন-২ প্রকল্পের তৃতীয় পর্যায়ের আওতায় আরো ২৬ হাজার ২শ’ ২৯টি ঘর হস্তান্তর করার সময় তিনি এ কথা বলেন। বৃহস্পতিবার ভূমিহীন ও গৃহহীনদের কাছে এসব উপহারের ঘর তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার ভার্চুয়ালি এই গৃহহীন ও ভূমিহীন মানুষের কাছে ঘরের দলিল ও চাবি হস্তান্তর করেন।

এসময় তিনি মাগুরা ও পঞ্চগড় জেলার সকল উপজেলাসহ সারাদেশের ৫২টি উপজেলাকে গৃহহীন ও ভূমিহীন মুক্ত ঘোষণা দেন।

প্রধানমন্ত্রী বর্তমান বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে পানি, বিদ্যুৎ ও জ্বালানী ব্যবহারে সবাইকে সাশ্রয়ী হওয়ার আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি পাঁচটি জেলার পাঁচটি স্থানের সাথে সংযুক্ত হন।

স্থানগুলো হচ্ছে- লক্ষ্মীপুর জেলার রামগতি উপজেলাধীন চরকলাকোপা আশ্রয়ন প্রকল্প, বাগেরহাট জেলার রামপাল উপজেলাধীন গৌরম্ভা আশ্রয়ন প্রকল্প, ময়মনসিংহ জেলার নান্দাইল উপজেলাধীন চর ভেড়ামারা আশ্রয়ন প্রকল্প, পঞ্চগড় জেলার পঞ্চগড় সদর উপজেলাধীন মহানপাড়া আশ্রায়ন প্রকল্প ও মাগুরা জেলার মোহাম্মদপুর উপজেলাধীন জাঙ্গালিয়া আশ্রয়ন প্রকল্প।

অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা বলেন, “জাতির পিতা মাত্র সাড়ে তিন বছর সময় পেয়েছিলেন। তার স্বপ্ন ছিল বাংলার মানুষ খাদ্য পাবে, শিক্ষা, চিকিৎসা, বাসস্থান পাবে।”

তিনি বলেন, “পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টের পর যখন দেশে ফিরি আমাদেরকে ৩২ নাম্বারের বাড়িতে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। আমরা ৩২ নাম্বারের রাস্তায় বসে দোয়া পড়েছি, সবার মাগফিরাত কামনা করেছি।”

মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণা-একটি মানুষও গৃহহীন ও ভূমিহীন থাকবে না। এই লক্ষ্যে প্রথম পর্যায়ে ২০২১ সালের ২৩ জানুয়ারি জমির মালিকানাসহ ৬৩ হাজার ৯৯৯টি ঘর হস্তান্তর করা হয়। দ্বিতীয় পর্যায়ে ২০ জুন জমির মালিকানাসহ ৫৩ হাজার ৩৩০টি ঘর হস্তান্তর করা হয়। প্রথম ও দ্বিতীয় পর্যায়ে নির্মাণ করা একক ঘরের সংখ্যা ১ লাখ ১৭ হাজার ৩২৯টি। চলমান তৃতীয় পর্যায়ে মোট বরাদ্দ করা একক ঘরের সংখ্যা ৬৭ হাজার ৮০০টি, যার মধ্যে গত ২৬ এপ্রিল হস্তান্তর হয় ৩২ হাজার ৯০৪টি। আজ হস্তান্তর হবে ২৬ হাজার ২২৯টি। এছাড়া আরও নির্মাণাধীন রয়েছে ৮ হাজার ৬৬৭টি ঘর।

ঘরগুলোকে অধিকতর টেকসই করে গড়ে তোলায় প্রতিটি ঘরের নির্মাণ ব্যয় ১ লাখ ৯১ হাজার টাকা থেকে ২ লাখ ৫৯ হাজার ৫০০ টাকায় উন্নীত করা হয়। ঘরগুলোকে বেশি টেকসই করে নির্মাণ করতে মজবুত কড়ি কাঠ, পাথরের সর্দল ও রিইনফোর্স কংক্রিট কলাম (আরসিসি) পিলার ব্যবহার করা হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও খবর

  • সিংড়ায় মুয়াজ্জিন নিয়োগ কেন্দ্র করে বাড়ি ঘরে হামলা ভাংচুর
  • নলডাঙ্গার নিহত ছাত্রলীগ নেতার বাড়িতে প্রতিমন্ত্রী, এমপি ও কেন্দ্রিয় আ.লীগ নেতৃবৃন্দরা
  • সোনামসজিদ স্থলবন্দর ৬ দিন বন্ধ
  • মহাদেবপুরে নাকে খত দিয়ে শিশু ধর্ষণ চেষ্টার আপোষ
  • সিরাজগঞ্জে শিশু হত্যার দায়ে যুবকের মৃত্যুদন্ড
  • চিরকুট লিখে রাবি ছাত্রীর ‘আত্মহত্যা’, সুষ্ঠু তদন্তের দাবি
  • প্রধানমন্ত্রীর ৭৬তম জন্মদিন বুধবার
  • গৃহবধূকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় ১০ জনের যাবজ্জীবন
  • রাজশাহীসহ ২০ জেলার নদীবন্দরে সতর্কতা
  • লাইসেন্স নবায়নে বিশেষ সুবিধার ঘোষণা রাসিকের
  • করতোয়ায় নৌকাডুবি অতিরিক্ত যাত্রীর চাপে : তদন্ত কমিটি
  • মেয়েকে খাবার খাওয়াতে ‘মা রোবট’ বানালেন বাবা
  • চীনকে ‘বিশেষ’ ভূমিকায় চায় বাংলাদেশ
  • ট্রফি ভাঙা সেই ইউএনওকে বদলি
  • মহিলা কলেজের পাশে পোশাক উচিয়ে ভিডিও করায় টিকটকার গ্রেপ্তার
  • উপরে