যেসব দেশে কখনো ট্রেন চলেনি

প্রকাশিত: জুলাই ১৯, ২০২২; সময়: ২:৪১ pm |
যেসব দেশে কখনো ট্রেন চলেনি

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : পৃথিবীর সবচেয়ে প্রাচীন পরিবহনের একটি হলো রেল। বর্তমানে অনেক দেশে দ্রুতগতির ট্রেন থেকে বুলেট ট্রেন চলতে শুরু করেছে। রেলের ইতিহাস ঘাঁটলে শুরুতেই উঠে আসে গ্রিসের নাম। এখন শতাধিক দেশে সবচেয়ে জনপ্রিয় যোগাযোগ ব্যবস্থা হচ্ছে রেল পরিবহন।

কিন্তু আপনি জানেন কি, এমন অনেক দেশ আছে যেখানে কখনো ট্রেন চলেনি? অবাক করা বিষয় হলেও এটি সত্যি। চলুন জেনে নেওয়া যাক এমন কিছু দেশের কথা, যেখানে এখনও রেল যোগাযোগ শুরু হয়নি-

​অ্যান্ডোরা

ছোট্ট একটি দেশ হলো অ্যান্ডোরা। এটি বিশ্বের ১১তম ক্ষুদ্র দেশ। ছোট্ট দেশ হিসেবে আয়তনের দিক থেকে তালিকার রয়েছে ১৬ নম্বরে। এই অ্যান্ডোরায় এখনও পর্যন্ত রেল চলাচল শুরু হয়নি। এর সবচেয়ে কাছের রেলওয়ে স্টেশনটি ফ্রান্সে অবস্থিত। সেখানে পৌঁছানোর জন্য ​অ্যান্ডোরা থেকে একটি বাস পরিষেবা পাওয়া যায়।

​ভুটান

দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে ক্ষুদ্র দেশটির নাম ভুটান। এই দেশেও নেই কোনো রেল পরিবহন। তার মানে এই নয় যে ভুটানে কখনো রেল চলাচল করবে না। ভুটানের দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে ভারতের রেল নেটওয়ার্ক যুক্ত করা নিয়ে অনেকদিন ধরেই চলছে পরিকল্পনা।

​কুয়েত

অন্যতম ধনী দেশ হলো কুয়েত। এটি একমাত্র দেশ, যেখানে আছে তেলের বিশাল মজুত। এতকিছুর পরেও সেখানে নেই রেল যোগাযোগ। তবে র্তমানে কুয়েতে বেশ কয়েকটি রেল প্রকল্প নির্মিত হয়েছে। দেশটি একটি ১২০০ মাইল দীর্ঘ উপসাগরীয় রেলওয়ে নেটওয়ার্কের পরিকল্পনা করেছে যা কুয়েত সিটি এবং ওমানের মধ্যে চলাচল করবে।

​পূর্ব তিমোর

ইস্ট তিমোর বা পূর্ব তিমোরের যোগাযোগ নেটওয়ার্ক এবং পরিবহন পরিকাঠামো রয়েছে খুবই খারাপ অবস্থায়। দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার পূর্ব তিমোর বা তিমোর লেস্তের কোনো রেলওয়ে নেটওয়ার্ক নেই। এ দেশের প্রাথমিক পরিবহন ব্যবস্থা কেবলই সড়ক। এই সড়ক ব্যবস্থাও খুব একটা ভালো অবস্থায় নেই।

​সাইপ্রাস

সাইপ্রাসে যে কোনোদিন ট্রেন চলেনি, তা নয়। এদেশে ১৯০৫ সাল থেকে ১৯৫১ সাল পর্যন্ত রেল চলাচল ছিল। তখন ট্রেনটি ৭৬ মাইল ভ্রমণ করতো এবং প্রায় ৩৯টি স্টেশনের মধ্য দিয়ে যাতায়াত করত। কিন্তু এটি ১৯৭৪ সাল নাগাদ বন্ধ হয়ে যায়। তারপর থেকে এই দেশে ট্রেন চলাচল বন্ধ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে