প্রতিবন্ধীকে মারধরের মামলায় তিনদিনেও কেউ গ্রেপ্তার হয়নি

প্রকাশিত: জুলাই ১৮, ২০২২; সময়: ৫:০৭ pm |
প্রতিবন্ধীকে মারধরের মামলায় তিনদিনেও কেউ গ্রেপ্তার হয়নি

নিজস্ব প্রতিবেদক, মহাদেবপুর: নওগাঁর মহাদেবপুরে ধান নষ্ট করায় ছাগলকে বেঁধে রাখতে বলায় প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে মারপিটের ঘটনায় মামলা দায়েরের তিনদিন অতিবাহিত হলেও কোন আসামী গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

মারপিটের শিকার প্রতিবন্ধী জুলফিকার আলী আলাল (৪৭) গুরুতর আহত হয়ে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে।

এ ঘটনায় গত ১৫ জুলাই সকালে প্রতিবন্ধী আলালের ভাই মো. শফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে ৩জনকে আসামী করে মহাদেবপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। ঘটনাটি ঘটেছে গত ১৪ জুলাই বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলার চাঁন্দাশ ইউনিয়নের বাছড়া গ্রামের মাঠে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, শারিরিক প্রতিবন্ধী আলালের ধানের জমিতে প্রতিবেশী মো. হাসুদের ছাগল এসে তার ধানের ক্ষেত নষ্ট করে দেয়। এতে আলাল আসামীদের ভাতিজা বাদলকে ছাগল বেঁধে রাখার কথা বললে তার সাথে বাদলের কথা কাটাকাটি হয়। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে বাদল মোবাইল ফোন করে তার চাচাদেরকে মাঠে ডেকে নেয়।

তার ডাকে বাছড়া দেওয়ানপাড়া গ্রামের তফিজ উদ্দিনের পুত্র মো. হাসু (৩০), মো. টুটুল (২৭) ও মো. শহীদ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে এসে প্রতিবন্ধী আলালকে বেধড়ক মারপিট করে। গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয়রা আলালকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য মহাদেবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করায়।

সেখানে অবস্থার অবনতি হওয়ায় রাতেই কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। রাজশাহী নেয়া হলে প্রতিবন্ধী আলালের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় সেখানে আইসিইউতে ভর্তি করে তার চিকিৎসা চলছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই আব্দুল খালেক জানান, ঘটনার পর থেকে আসামীরা পলাতক থাকায় তাদের গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। তবে গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত আছে। মহাদেবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আজম উদ্দিন মাহমুদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে। আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে