বেলকুচিতে মুল আসামীকে বাদ দিয়ে চার্জশিট দেয়ার অভিযোগ

প্রকাশিত: জুলাই ১৭, ২০২২; সময়: ৯:০২ pm |
বেলকুচিতে মুল আসামীকে বাদ দিয়ে চার্জশিট দেয়ার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিরাজগঞ্জ : সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে পত্রিকার এজেন্ট ব্যবসায়ী পুত্রের উপর হামলা মামলায় মুল আসামীদের বাদ দিয়ে পুলিশ চার্জশিট দিয়েছে। এ ঘটনায় বাদী পক্ষ সহ সচেতন মহলে ক্ষোভ বিরাজ করছে। মামলার বাদী নাবিন মন্ডলের অভিযোগ, পুলিশের পক্ষপাতদুষ্ট আচরণর কারনে মামলায় প্রধান আসামী ঢাকার মন্ডল গ্রুপের জিএম ও স্থানীয় এমপি মমিন মন্ডলের ঘনিষ্ঠ সহচর ইঞ্জিনিয়ার আমিনুল ইসলাম ও বেলকুচি পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি আকতার হামিদসহ মুল চারজনকে চার্জশিট থেকে বাদ দিয়ে আদালত বরাবর সুপারিশ পাঠিয়েছে।

তবে মামলায় জেলা জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ সভাপতি শাহাদত হোসেন মুন্না, ইয়াসিন আলী, সবুজ, হয়রত আলী, মাসুদ, সৌরভ, আলমাছ, আসাদুল ও সোলেয়মান সহ ৯ জনকে অভিযুক্ত করে গত ৩০ জুন আদালতে চার্জশীট জমা দেয় পুলিশ। জমা প্রদানের পর থেকে চার্জশীট সুকৌশলে নজরবন্দী রাখায় সেটি দেখা সম্ভব হয়নি। ঈদের ছুটি শেষে কোর্ট ইন্সপেক্টর মোস্তফা কামাল রোববার অফিসে আসেন। অতপর দুপুরে তা দেখার সুযোগ মেলে। মুল চার আসামীই বাদ দেবার বিষয়টিও নিশ্চিত হন বাদী।

বাদী নাবিন মন্ডল বলেন, ‘গত ১০ জুন সন্ধায় আমাকে মারপীটের ঘটনার পর রাতে আমার বাবা যখন বেলকুচি থানায় যান তখনই ওসি সাহেব ইঞ্জিনিয়ার আমিনুল, পৌর ছাত্রলীগের আকবায়ক আকতার হামিদ, সজিব আহম্মেদ ও হাকিম মন্ডলের নাম বাদ দেবার জন্য পিড়াপিড়ি করেন। বাবা রাজি না হওয়ায় মামলা নিতে গড়িমশি করে পুলিশ। ঘটনার চারদিন পর মামলা হলেও জখমের গ্রীভিয়াস সনদ আদালতে পৌঁছাতেও পুলিশের গড়িমশিতে ওই চারজন বাদে সকল আসামীই জামিন পান।তদন্তে এসে স্বাক্ষীর বক্তব্য ও আলামত গ্রহনেও নানা কৌশল ও টালবাহানা করে পুলিশ। পুলিশ শেষ পর্যন্ত ইঞ্জিনিয়ার আমিনুল ইসলামসহ মুল চারজনকে বাদ দিবে, তা আগে থেকেই আমরা আশঙ্কা করেছিলাম। আগামী ২৪ জুলাই এ মামলার পরবর্তী দিন ধার্য রয়েছে। আইনজীবির মাধ্যমে আমি নারাজি দেবার প্রক্রিয়া করবো।’

বাদীর বাবা পত্রিকার এজেন্ট দৌলত মন্ডল বলেন, বেলকুচি থানা পুলিশ যে শুধু আমার ছেলের বেলায় এ ধরনের রহস্যজনক আচরণ করেছে তা নয়। আলহাজ সিদ্দিকী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মেহেদী মাসুদ এবং ভাঙ্গাবাড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জহুরুল ভুইয়া ও প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের লাঞ্ছিতের ঘটনায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা অভিযুক্ত হলেও একই ধরনের নাটকীয়তার আশ্রয় নেন পুলিশ।

আমার ছেলেকে মারপীটের এজাহারে স্বাক্ষী জামাল উদ্দিন বাপ্পী, রিপন চক্রবর্তী, রুবেল তালুকদার, অলিফ সরকার, মোখলেছুর রহমান রতন এবং চেয়ারম্যান মির্জা সোলেয়মান স্ত্রী স্বীকৃতি বেগমের নাম রয়েছে। তারা গত ৩০ জুন সুস্পষ্ট ভাবে সকলের উপস্থিতিতে স্বাক্ষ্য দিলেও রহস্যজনক সেসব বাদ দেয়া হয়েছে। বেলকুচি থানা পুলিশের এসব অনৈতিক ও গড়িমশির বিষেেয় পুলিশ সদর দপ্তরের আইজিপি মহোদয়ের কমপ্লেইন শাখায় অভিযোগ দেবার কথাও ভাবছি।

বেলকুচি থানার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই নিয়ামুল হকের মুঠোফোনে রোববার দুপুরে বার বার রিং করেও রিসিভ করেননি। অন্যদিকে, ওসি গোলাম মোস্তফা জানান, তদন্ত ও স্বাক্ষ্যগ্রহন শেষে আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন পাঠানো হয়েছে। অভিযোগ প্রমানিত না হওয়ায় ৪ জনকে অব্যাহতির সুপারিশ করা হয়েছে। এছাড়া, ৯জনকে অভিযুক্ত করে তদন্ত প্রতিবেদন আদালতে পাঠানো হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও খবর

  • পাবনা চাটমোহরে শিকল দিয়ে তরুণ-তরুণীকে বেঁধে নির্যাতনের ঘটনায় মামলা
  • মায়ের মাথায় গুলি চালালেন ছেলে
  • স্ত্রীর মামলায় পুলিশ কর্মকর্তার কারাদণ্ড
  • রাজশাহীর বিভিন্ন সড়ক ও গুরুত্বপূর্ণ মোড়ের নামকরণের উদ্যোগ
  • কাশ্মীরে বাস খাদে পড়ে ৬ সীমান্ত পুলিশ নিহত
  • সিআইডি প্রধান হলেন মোহাম্মদ আলী মিয়া
  • ক্রিমিয়ায় বিস্ফোরণে কেঁপে উঠলো রুশ সামরিক ঘাঁটি
  • বাড়ার তুলনায় না কমলেও, কমেছে ডলারের দাম
  • গুচ্ছের ‘খ’ ইউনিটের ফল প্রকাশ
  • উত্তরা দুর্ঘটনায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান শতভাগ দায়ী: সড়ক পরিবহন সচিব
  • গার্ডার পড়ে নিহত রুবেলের মরদেহ নিয়ে ৭ স্ত্রীর ‘টানাটানি’
  • মধ্যবয়সে সূর্য, ভবিষ্যতে কী হবে বললেন বিজ্ঞানীরা
  • স্ত্রীকে গলা টিপে হত্যায় স্বামীর যাবজ্জীবন
  • তেলের সাথে পানি মেশানোয় পাম্প মালিককে জরিমানা
  • পরিত্যক্ত বাড়িতে মিললো স্কুলছাত্রের মরদেহ
  • উপরে