পদ্মায় ভাঙন ঝুঁকিতে বাঘা চকরাজাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

প্রকাশিত: জুলাই ৬, ২০২২; সময়: ৯:০১ pm |
পদ্মায় ভাঙন ঝুঁকিতে বাঘা চকরাজাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাঘা : ভাঙন থেকে মাত্র ১০ মিটার দূরে রয়েছে চকরাজাপুর সরকারি প্রাাথমিক বিদ্যালয় ভবনটি। সরিয়ে নেওয়ার প্রস্তুতি চলছে আশি লক্ষ টাকা ব্যয়ে নির্মিত টিনসেডের আঁধা পাঁকা স্কুলভবনটি ।

অন্যত্র সরিয়ে নেওয়া হয়েছে, সরকারের দেওয়া ভ’মিহীন বাহের আলীর পাঁকা বাড়িটি । ভাঙন কবলিত এলাকা থেকে তুলে নেওয়া হয়েছে বিদ্যুতের ২টা পুল । বিদ্যালয়টির দক্ষিনে এক কিলোমিটার পাঁকা রাস্তার ৩ভাগের ২ভাগই চলে গেছে নদীতে।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মজিবর রহমান জানান, ৫ বছর আগে ভাঙনের কবলে পড়ে.বিদ্যালয়টি। সেখান থেকে দুই কিলোমিটার দূরে কালিদাশখালি -দাদপুর এলাকায় সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। এবছর আবার ভাঙনের কবলে পড়েছে । ভাঙন থেকে মাত্র ১০ মিটার দূরে রয়েছে স্কুলভবনটি।

ভাঙনে পাল্টে যাওয়া চকরাজাপুরের মানচিত্রে আবারো আঘাত হেনেছে প্রমত্তা পদ্মা। হঠাৎ করেই পানি বৃদ্ধির সাথে নতুন করে পদ্মায় ভাঙন দেখা দিয়েছে। ‘নদীর একূল-ওকূল ভাঙা গড়ার আচরণগত এই নিষ্ঠুরতায় ভাঙনের কবলে পড়ে বিলিন হচ্ছে ফসলি জমি-পাছপালা। বাঘা উপজেলা সদর থেকে ১৫ কিলোমিটার দুরে চকরাজাপুর ইউনিয়ন।

ভাঙনের কবলে পড়ে মানচিত্র থেকে হারিয়ে গেছে উপজেলার পদ্মার চরাঞ্চলের চকরাজাপুর গ্রাম। এই গ্রামের নামেই নামকরণ করা হয়েছে চকরাজাপুর ইউনিয়নের। গত বছরের ভাঙনে ইউনিয়নটির ৯টি ওয়ার্ড়েও মধ্যে ৩, ৫, ৬ ও ৮ নম্বর ওয়ার্ড়ের বেশির ভাগ এলাকা নদী গর্ভে বিলিন হয়ে গেছে। আর ৪ নম্বর চক রাজাপুর ওয়ার্ডের পুরোটি গিলে নিয়েছে পদ্মা।

নাটোর পল্লী বিদুৎ সমিতি-২ এর বাঘা জোনাল অফিসের ডিজিএম সুবির কুমার জানান,ভাঙনের কবলে পড়ায়, এবছর চর বিদ্যুতের ২টা পুল তোলা হয়েছে। গত বছর এলাকার বিদ্যুতের পুল তোলা হয়েছিল ১১৫টি। ৫৪ কিলোমিটার এলাকার ২ হাজার ৪৮৬ জন গ্রাহকের বিদুৎতের ব্যবস্থা করা হয়েছিল।

বুধবার (০৬-০৭-২০২২) সরেজমিন ভাঙন কবলিত এলাকায় গিয়ে কথা হলে স্থানীয়রা জানান, পদ্মার চরাঞ্চলে ভাঙন কম বেশি লেগেই আছে। দীর্ঘদিনের ভাঙ্গনে ইউনিয়নের ৩ ভাগের একভাগ চলে গেছে নদীগর্ভে। এভাবে ভাঙতে থাকলে উপজেলার মানচিত্র থেকে হারিয়ে় যাবে চকরাজাপুর ইউনিয়ন।

ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আজিজুল আযম বলেন, গত তিন দশকের ভাঙ্গনে নদীতে বিলীন হয়ে গেছে, চকরাজাপুরসহ পাকুড়িয়া ও মনিগ্রাম ইউনিয়নের নদী তীরবর্তী এলাকার হাজার হাজার বিঘা ফসলি জমি, বসত ভিটা,রাস্তা-ঘাট,হাট-বাজার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ মসজিদ ও কবরস্থান। ওই সময় থেকে নদী ভাঙ্গনে সর্বস্ব হারিয়েছে, স্বচ্ছল-কৃষি নির্ভর প্রায় সহস্রাধিক পরিবার। এদের অনেকেই বিভিন্ন স্থানে গিয়ে বসত বাড়ী গড়ে তুলে বসবাস করছেন। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও হাট-বাজার অন্য জায়গায় প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।

বর্তমান চেয়ারম্যান ডিএম বাবুল মনোয়ার বলেন, ইউনিয়নে পাঁকা রাস্তা,বিদুৎসহ সার্বিকভাবে উন্নত হয়েছে। কিন্তু পদ্মার ভাঙনে সেগুলো রক্ষা করা যাচ্ছেনা। উপজেলার পাকুড়িয়া ইউনিয়নের আলাইপুর নাপিতপাড়া থেকে চকরাজাপুর ইউনিয়নের লক্ষীনগরের শেষ মাথা পর্যন্ত নদী শাসনের আওতায় প্রকল্পের যে কাজ শুরু হয়েছে, সেটি শেষ হলে পদ্মার প্রান্ত নদী ভাঙনের হাত হতে রক্ষা পাবে। বাঁচবে চকরাজাপুর ইউনিয়নসহ পাকুড়িয়া ও মনিগ্রাম ইউনিয়নের পদ্মা পাড়ের লোকজন।

উপজেলা নির্বাহি অফিসার শারমিন সুলতানা বলেন,বিদ্যালয়টি পুণঃস্থাপনের জন্য জায়গা দেখা হয়েছে। সেখানে স্থানান্তর করার জন্য প্রধান শিক্ষককে বলা হয়েছে। এছাড়াও আমার উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে ভাঙন কবলিত এলাকার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিব।

রাজশাহী পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম শেখ বলেন, নদী শাসনের জন্য চারঘাট-বাঘার পয়েন্টে, কাজ চলছে। ৩০০ কোটি টাকার একটি প্রকল্পের মধ্যে বাঘার ১৩ কি. মি. নদী ড্রেজিং রয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও খবর

  • নৈশপ্রহরীকে হত্যা করে ডাকাতি
  • সুদানে বন্যায় ৫২ জনের প্রাণহানি
  • আ. লীগ ধারাবাহিক সরকারে থাকায় অভূতপূর্ব উন্নয়ন ঘটেছে: পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী
  • বাবাকে পিটিয়ে ৩১ লাখ টাকা ছিনতাই, ২ ছেলেসহ গ্রেপ্তার ৪
  • পাবনায় স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীর মৃত্যুদন্ড
  • ১ সেপ্টেম্বর থেকে চাল বিক্রি হবে খোলা বাজারে
  • বেপরোয়া মোটরসাইকেলের ধাক্কায় প্রাণ গেল বৃদ্ধার
  • সুইস রাষ্ট্রদূতের বক্তব্য সাংঘর্ষিক ও বিব্রতকর: হাইকোর্ট
  • ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় বগুড়া-রংপুর চার লেনের নির্মাণকাজ বন্ধ
  • ট্রাম্পের বাড়ি থেকে জব্দ হলো যেসব গোপন ও স্পর্শকাতর নথি
  • জীবিত অবস্থায় তো বেহেশত পাওয়া যায় না : বাণিজ্যমন্ত্রী
  • সৌদি আরবে গৃহকর্মী আইন পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত
  • বদলগাছীতে নিখোঁজের ২দিন পর বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার
  • ভেন্টিলেটরের বাইরে রুশদি, বলছেন কথাও
  • ‘আগামী বছর থেকে সরকারি হাসপাতালে বাৎসরিক হেলথ চেকআপ’
  • উপরে