পদ্মা সেতুর বিরোধিতাকারীরা জাতির শত্রু: হাইকোর্ট

প্রকাশিত: জুন ২৭, ২০২২; সময়: ২:০৯ pm |
পদ্মা সেতুর বিরোধিতাকারীরা জাতির শত্রু: হাইকোর্ট

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : পদ্মা সেতু জাতীয় সম্পদ ও দেশের অহংকার, যারা এমন জাতীয় সম্পদের বিরোধিতা করবে তারা জাতির শত্রু বলে মন্তব্য করেছেন হাইকোর্ট।

সোমবার (২৭ জুন) এ বিষয়ে এক শুনানির সময় বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের হাইকোর্ট বেঞ্চ এমন মন্তব্য করেন।

আদালতের তার পর্যবেক্ষণে বলেন, ‘পদ্মা সেতু আমাদের জাতীয় সম্পদ। এটা আমাদের অহংকার। এ ধরনের জাতীয় স্বার্থ ও উন্নয়নের বিরুদ্ধে যারা থাকেন, তারা জাতির শত্রু, দেশের শত্রু, তাদের চিহ্নিত করা দরকার।’

পদ্মা সেতু নির্মাণের চুক্তি নিয়ে দুর্নীতির মিথ্যা গল্প সৃষ্টির নেপথ্যের ষড়যন্ত্রকারীদের খুঁজে বের করতে কমিশন গঠন প্রশ্নে জারি করা রুল শুনানির দিন নির্ধারণের সময় এমন মন্তব্য করেন আদালত।

সোমবার (২৭ জুন) বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের হাইকোর্ট বেঞ্চের কার্যতালিকার দ্বিতীয় নম্বরে ছিল।

বিভিন্ন পত্রিকার সংবাদ বিবেচনায় নিয়ে হাইকোর্ট ২০১৭ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি কমিশন গঠনের আদেশ দেন। আদেশে পদ্মা সেতু নির্মাণের চুক্তি ও এ বিষয়ে দুর্নীতির মিথ্যা গল্প সৃষ্টির নেপথ্যের প্রকৃত ষড়যন্ত্রকারীদের খুঁজে বের করতে তদন্ত কমিশন বা কমিটি গঠন করতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না এবং দোষীদের কেন বিচারের মুখোমুখি করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন।

রুলে মন্ত্রিপরিষদ, স্বরাষ্ট্র, আইন ও সেতু সচিব, পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এবং দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) চেয়ারম্যানকে দুই সপ্তাহের মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়। পাশাপাশি ৩০ দিনের মধ্যে একটি প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয় আদালতে।

বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহর সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। কিন্তু সরকারের পক্ষ থেকে বারবার সময় নেওয়ায় এরই ধারাবাহিকতায় ওই বছরের ২ আগস্ট হাইকোর্ট ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং ৩১ আগস্টের মধ্যে কমিশন গঠন করে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করতে নির্দেশ দেন। পরবর্তীতে সরকারের পক্ষ থেকে সেতু মন্ত্রণালয়ের চিঠি যুক্ত করে অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল করা হয় আদালতে। ওই প্রতিবেদনের সঙ্গে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগকে সেতু মন্ত্রণালয়ের একটি চিঠি সংযুক্ত করা হয়।

সেতু মন্ত্রণালয়ের চিঠিতে দেখা যায়, এ সংক্রান্ত বিষয়ে তদন্ত কমিশনের সদস্য হিসেবে পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের উপ-প্রকল্প পরিচালক (কারিগরি) মো. কামরুজ্জামানকে প্রতিনিধি হিসেবে মনোনীত করা হয়েছে।

শুনানিতে হাইকোর্ট বেঞ্চ বলেছিলেন, ‘পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে দেখা যায়, পদ্মা সেতু নির্মাণের চুক্তি নিয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীসহ সরকারের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তোলা হয়েছে। এ অভিযোগ ওঠার পর বিশ্বব্যাংক ও অপরাপর দাতা সংস্থা অর্থায়ন প্রত্যাহার করে নিয়েছে। যা জাতির মর্যাদাকে মারাত্মকভাবে আঘাত করছে।’

আদালত বলেন, এ দুর্নীতির সঙ্গে কানাডিয়ান কোম্পানির তিন কর্মকর্তার বিরুদ্ধেও অভিযোগ ওঠে। এ বিষয়টি কানাডিয়ান আদালতে বিচার হয়েছে। বিচারে আদালত তাদেরকে খালাস দিয়েছেন। অভিযোগের প্রমাণ পায়নি আদালত।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও খবর

  • বিচ্ছেদ ঠেকাতে আদালতে গিয়ে স্ত্রীকে গলাকেটে খুন
  • নৈশপ্রহরীকে হত্যা করে ডাকাতি
  • সুদানে বন্যায় ৫২ জনের প্রাণহানি
  • আ. লীগ ধারাবাহিক সরকারে থাকায় অভূতপূর্ব উন্নয়ন ঘটেছে: পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী
  • বাবাকে পিটিয়ে ৩১ লাখ টাকা ছিনতাই, ২ ছেলেসহ গ্রেপ্তার ৪
  • পাবনায় স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীর মৃত্যুদন্ড
  • ১ সেপ্টেম্বর থেকে চাল বিক্রি হবে খোলা বাজারে
  • বেপরোয়া মোটরসাইকেলের ধাক্কায় প্রাণ গেল বৃদ্ধার
  • সুইস রাষ্ট্রদূতের বক্তব্য সাংঘর্ষিক ও বিব্রতকর: হাইকোর্ট
  • ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় বগুড়া-রংপুর চার লেনের নির্মাণকাজ বন্ধ
  • ট্রাম্পের বাড়ি থেকে জব্দ হলো যেসব গোপন ও স্পর্শকাতর নথি
  • জীবিত অবস্থায় তো বেহেশত পাওয়া যায় না : বাণিজ্যমন্ত্রী
  • সৌদি আরবে গৃহকর্মী আইন পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত
  • বদলগাছীতে নিখোঁজের ২দিন পর বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার
  • ভেন্টিলেটরের বাইরে রুশদি, বলছেন কথাও
  • উপরে