১১ মিনিটের ফেসবুক লাইভ, এরপর নিখোঁজ

প্রকাশিত: জুন ৭, ২০২২; সময়: ৩:৩১ pm |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : বাঁশখালী উপজেলার নুরুল আমিনের ছেলে আকতার হোসেন। চালাতেন কাভার্ডভ্যান। ঘটনার সময় বিএম ডিপোতে ছিলেন তিনিও। ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড ফেসবুক লাইভে দেখাচ্ছিলেন আকতার হোসেন। কিন্তু ভিডিও চালুর ১১ মিনিট পর তাকে আর দেখা যায়নি। ঘটনার পর থেকে বন্ধ রয়েছে তার মোবাইল ফোন।

এদিকে, তিনদিন পেরিয়ে গেলেও আকতার হোসেনের খোঁজ না পাওয়ায় দিশেহারা হয়ে উঠেছে পরিবার। ঢাকা-চট্টগ্রামের বিভিন্ন হাসপাতাল ঘুরেও ভাইয়ের সন্ধান না পেয়ে মূর্ছা যাচ্ছেন বোন মুন্নি আক্তার।

মঙ্গলবার দুপুরে আকতার হোসেনের খোঁজে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে আসেন বোন ও বাবা। এ সময় তারা হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সামনে স্থাপিত বুথে ডিএনএ পরীক্ষার জন্য নমুনা জমা দেন।

বোন মুন্নি আক্তার বলেন, ৩০ মে ভাইয়ের সঙ্গে শেষ কথা হয়েছিল। যেদিন আগুন লাগে সেদিন মায়ের সঙ্গে কথা হয়েছিল। অগুনের দৃশ্য সে ভিডিও কলে মাকে দেখিয়েছিল। পরে ফেসবুক লাইভে দেখায়।

লাইভ ১১ মিনিট পর্যন্ত চলার পর তাকে আর পাওয়া যায়নি। ঢাকা ও চট্টগ্রামের বিভিন্ন হাসপাতালে ঘুরেও ভাইকে পাইনি। তাই আজ নমুনা দিয়েছি।

শনিবার রাত ৮টার দিকে ডিপোর লোডিং পয়েন্টের ভেতর আগুন লাগে। খবর পেয়ে কুমিরা ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করে।

পরে রাত পৌনে ১১টার দিকে এক কনটেইনার থেকে অন্য কনটেইনারে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। একপর্যায়ে একটি কনটেইনারে থাকা রাসায়নিক থেকে বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটে।

বিস্ফোরণের সময় ঘটনাস্থল থেকে অন্তত পাঁচ কিলোমিটার এলাকা কেঁপে ওঠে। বিস্ফোরণের প্রচণ্ড শব্দে আশপাশের অনেক বাড়ির জানালার কাঁচ ভেঙে পড়ার খবরও পাওয়া যায়।

বিস্ফোরণ ও ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের এ ঘটনায় ৪১ জনের প্রাণহানির খবর জানায় চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন। আজ মঙ্গলবার দুপুরে ডিপো থেকে আরো দুজনের লাশ উদ্ধার করা হয়।

সে হিসেবে নিহতের সংখ্যা ৪৩। এছাড়া দগ্ধ ও আহত হয়ে চট্টগ্রাম এবং ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন শতাধিক।

ফায়ার সার্ভিস জানিয়েছে, উদ্ধার হওয়া দুটি লাশের মধ্যে একটির পাশে ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের বুট ও পিপিইর আলামত মিলেছে। অন্যটির পাশে সিকিউরিটির পোশাকের পোড়া অংশ পাওয়া গেছে।

তাই লাশগুলোর একটি ফায়ার সার্ভিসের সদস্যের ও অন্যটি ডিপোর সিকিউরিটির দায়িত্বে থাকা কারো বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। ডিএনএ টেস্ট শেষে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপে