রাবিতে মাঝরাতে আবাসিক শিক্ষার্থীকে হলছাড়া করার চেষ্টা

প্রকাশিত: মে ১৭, ২০২২; সময়: ৯:৫৬ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে আবাসিক এক শিক্ষার্থীকে হলছাড়া করার চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে। ওই শিক্ষার্থীর বরাদ্দ পাওয়া সিটে ছাত্রলীগের এক কর্মীকে তোলা হয়েছে। ফেলে দেওয়া হয়েছে আবাসিক শিক্ষার্থীর আসবাব।

সোমবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে শহীদ হবিবুর রহমান হলে এ ঘটনা ঘটে। ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর নাম জাবের হোসেন। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী।

জাবের মুঠোফোনে বলেন, তাঁর বাবা ঢাকার কারওয়ান বাজারে দিনমজুর হিসেবে সবজি ওঠানো-নামানোর কাজ করেন। তাঁদের বাড়ি নোয়াখালীতে। বাবার আয়ে সংসার চলে। টানাপড়েনের সংসারে তিনি রাজশাহীতে টিউশনি করে চলেন।

গত সাত-আট মাস আগে তিনি হলে সিটের জন্য আবেদন করেন। তখনই তাঁর আবাসিক কার্ড হয়ে যায়। গত ২০ এপ্রিল হল প্রাধ্যক্ষের মাধ্যমে হলের ৪২৬ নম্বর কক্ষে ওঠেন জাবের। ঈদের ছুটি শেষে গত ৮ মে আবার হলে এসে থাকতে শুরু করেন। কোনো সমস্যা হচ্ছিল না তাঁর।

ছাত্রলীগের সঙ্গে ঝামেলা হওয়ার বিষয়ে জাবের বলেন, গত রোববার রাতে তিনি হলের কক্ষেই ছিলেন। ছাত্রলীগ পরিচয়ে কয়েকজন এসে ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের এক শিক্ষার্থী তাঁর সিটে তুলে দেন। ওই শিক্ষার্থীর নাম শিহাবউদ্দিন। ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের ওই শিক্ষার্থী ছাত্রলীগের কর্মী, হল ছাত্রলীগের সভাপতি মোমিনুল ইসলামের এলাকার ছোট ভাই।

মোমিনুল ইসলামের পরিচয়ে ছাত্রলীগের কর্মীরা জাবেরকে জানান, এটি পলিটিক্যাল বেড। তখন জাবের বলেন, এই কক্ষে তিনি হল প্রাধ্যক্ষের মাধ্যমে উঠেছেন। তাঁর আবাসিক কার্ড আছে। তখন ছাত্রলীগের কর্মীরা জানান, তাঁরা এসব কথা শুনবেন না। ওই বেডে নতুন একজন উঠবে।

এরপর জাবের বলেন, ‘আমি এখন এই রাতে কোথায় যাব? এই কথা শুনে ছাত্রলীগের একজন বলেন, “আপনি হুজুর মানুষ। আজকে থেকে কাল ভোরে চলে যাবেন’।’ পরে জাবের রাতেই হল ছাত্রলীগের সভাপতির কাছে যান। সভাপতি খারাপ আচরণের আগেই জাবেরকে ওই কক্ষ বের হয়ে যেতে বলেন।

পরদিন সোমবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে হলের ৪২৬ নম্বর কক্ষে আবার আসেন ছাত্রলীগের সাত-আটজন সদস্য। এ সময় ঘুমিয়েছিলেন জাবের।

তিনি বলেন, ‘তাঁরা এসে বলে, “তুমি নামো। এই সিটে এই ছেলে (শিহাবউদ্দিন) থাকবে। এই সিটে তোমার থাকার কোনো অধিকার নাই”। এসব কথা বলে তাঁরা মশারি খুলে ফেলে। বেডিংপত্রসহ সবকিছু ফেলে দেয়। পরে ছাত্রলীগের ওঠানো ছাত্রের মশারি টানিয়ে দিয়ে চলে যায়।’ পরে রুমমেটরা নতুন ওঠা ছাত্রকে অনুরোধ করলে কোনো রকম রাত কাটাতে পারেন জাবের।

এ ব্যাপারে হল প্রাধ্যক্ষের সঙ্গে কথা হয়েছে বলে জানান জাবের। প্রাধ্যক্ষ তাঁকে হলের ওই কক্ষেই থাকতে বলেছেন। এখন তিনি ওই কক্ষেই অবস্থান করছেন। তবে ভয় কাটছে না তাঁর।

এ ব্যাপারে হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মোমিনুল ইসলাম বলেন, ওই সিটটা তাঁদের ছিল, কিন্তু হল প্রাধ্যক্ষ ওই ছেলেকে (জাবের) তুলে দিয়েছিলেন। বিষয়টা নিয়ে একটু ঝামেলা হয়েছিল। এখন এটা সমাধান হয়ে গেছে। জাবেরই ওই কক্ষের শিক্ষার্থী। ও-ই থাকবে সেখানে। একটা ভুল হয়ে গেছে। মানুষমাত্রই তো ভুল হতে পারে। জাবেরকে হুমকি দেওয়ার বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে কোনো কথা বলেননি মোমিনুল।

এ বিষয়ে হল প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক জাহিদুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি ওই ছাত্র তাঁকে জানিয়েছেন। এরপর তিনি হলে গিয়েছিলেন। জাবের তাঁর কক্ষেই আছেন। আর কেউ তাঁর বরাদ্দ করা কক্ষে থাকবে না। কেউ আর ঝামেলা করতে পারবে না। বিষয়টি সমাধান হয়ে গেছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও খবর

  • বিশ্বে মোট শনাক্ত ছাড়াল ৫৫ কোটি, মৃত্যু আরও ১৩২৬
  • ব্যাংকে গোলাগুলি, নিহত ২
  • পোস্তগোলা ব্রিজ দিয়ে যাতায়াতকারীদের জন্য সুখবর
  • ছেলের প্রেমের দায়ে মাকে পুড়িয়ে হত্যা
  • শতবর্ষী ব্যক্তিকে ৫ বছরের জেল
  • ঈদে যাত্রীচাপ সামাল দিতে প্রস্তুত পদ্মা সেতু
  • ইভিএমের পক্ষে দৃঢ় অবস্থান আ.লীগের
  • চাঁপাইনবাবগঞ্জে মাদক মামলায় যুবকের যাবজ্জীবন
  • ফের মাস্ক বাধ্যতামূলক
  • রাজশাহীতে ২য় বঙ্গবন্ধু টি-২০ ক্রিকের চ্যাম্পিয়ন রাইমা রেঞ্জার্স
  • শিবগঞ্জে নারীকে পিটিয়ে হত্যা
  • শিক্ষকের গলায় জুতার মালা পড়ানোর মামলায় গ্রেপ্তার ৩
  • করোনায় আরও ৩ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২,০৮৭
  • চাচীর সাথে পরকীয়া, দুই হাতের কব্জি হারাল যুবক
  • পাবনায় ইঞ্জিন চালিত ভটভটি উল্টে হেলপার নিহত
  • উপে