মেধাবী সুমার উচ্চ শিক্ষায় বাধা দারিদ্রতা

প্রকাশিত: ০৮-০৫-২০১৯, সময়: ১৬:৪৯ |
Share This

নিজস্ব প্রতিবেদক, নাটোর : দিনভর বাড়ির কাজ করেও এবারের এসএসসি পরীক্ষায় মানবিক বিভাগে জিপিএ-৫ পেয়েছে নাটোরের আগদিঘা গ্রামের সুমা খাতুন। সদর উপজেলার আগদিঘা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মানবিক বিভাগে পরীক্ষায় অংশ নেয় সুমা।

সুমা খাতুন জানায়,পরীক্ষায় গোল্ডেন পেলেও উচ্চ শিক্ষা গ্রহনে বাধা হয়েছে দারিদ্রতা। বাড়িতে দিনভর কাজ করে মাত্র দুই ঘন্টা লেখাপড়ার সময় পেয়েছে সে। প্রতিবেশী ও স্কুলের সহপাঠি ও শিক্ষকদের সহায়তায় সুমা খাতুন স্কুলের গন্ডি পেরুতে পেরেছেন। এখন অর্থের অভাবে কলেজে ভর্তি হওয়া নিয়ে শংকা দেখা দিয়েছে। উচ্চ শিক্ষা নিয়ে শিক্ষক হওয়ার স্বপ্ন তার। হৃদয়বানদের সহায়তা পেলে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ সহ তার স্বপ্ন পুরন হবে। সে তার উচ্চ শিক্ষার জন্য সকল বিত্তবানদের প্রতি আবেদন জানায়।

বাবা ভ্যান চালক শফিকুল ইসলাম মন্ডল ও মা দিনমজুর নাসিমা বেগম মেয়ের ভাল ফলাফলে খুব খুশী। তারা বলেন,দুই ছেলে মেয়ে যেখানে সংসার চালাতেই হিমশিম কেতে হচ্ছে। দুবেলা পেট বরে খেতে দিতে পারেননা তাদের,সেখানে মেয়েকে কলেজে ভর্তি করাবেন কিভাবে।

প্রতিবেশী শাহিন জানান, সুমার মা-বাবা দিনভর বাহিরে কাজে থাকেন। প্রতিবেশীরাই তার খোঁজ খবর নেয়। স্কুল দুরে হওয়ায় পরীক্ষার সময় প্রতিবেশীদের তাকে পরীক্ষাকেন্দ্রে নিয়ে যেতে ও নিয়ে আসতে হয়েছে।

আগদিঘা উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক সহকারী শিক্ষক ও মোমিনপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে সদ্য যোগদানকারী প্রধান শিক্ষক আজিজুল ইসলাম বলেন, সুমা খাতুন খুব মেধাবী। সে মানবিক বিভাগ থেকে গোল্ডেন পেয়েছে। দিনমজুর বাবা মায়ের পক্ষে তার লেখা পড়ার খরচ বহন করতে পারতনা। আমরা শিক্ষকরাই তাকে বিভিন্ন সময়ে সহায়তা করেছি। সে খুব মেধাবী । সুযোগ পেলে সে অনেক দুর পর্যন্ত শিক্ষা অর্জন করে দেশের সুনাম বয়ে আনবে। তিনি সুমার সহায়তায় হৃদয়বানদের এগিয়ে আসার আহবান জানান।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
পরে