সাঁওতাল ব্যান্ড এভেন’র প্রথম মিউজিক ভিডিও প্রকাশ

সাঁওতাল ব্যান্ড এভেন’র প্রথম মিউজিক ভিডিও প্রকাশ

প্রকাশিত: ০১-০২-২০২০, সময়: ১৯:২১ |
Share This

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাবি : উপমহাদেশের বৃহত্তম ও বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম জনগোষ্ঠী সাঁওতাল। এ জনগোষ্ঠীর আছে বৈচিত্র্যময় মাতৃভাষা, ঐতিহ্য-সংস্কৃতি ও আচার-অনুষ্ঠান। কিন্তু চর্চা ও সংরক্ষণের অভাবে এ ভাষা ও সংস্কৃতি বিলুপ্তির পথে। তাদের ভাষা ও সংস্কৃতিকে সবার সামনে তুলে ধরতে ও ভবিষ্যত প্রজন্মকে উদ্বুদ্ধ করার লক্ষ্যে সাঁওতাল রক ব্যান্ড ‘এভেন’ নির্মাণ করেছেন তাদের মাতৃভাষায় মিউজিক ভিডিও। শনিবার (১ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়ায় আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এ মিউজিক ভিডিও প্রকাশ করা হয়।

‘এভেন’ ব্যান্ড নির্মিত গানটির নাম ‘এভেন মে গাতি রে’। বাংলায় যার অর্থ-‘জেগে ওঠো যুব সমাজ’। সাঁওতালদের রক্তে মিশে থাকা নিজস্ব সুর, তাল ও লয়ের আবহে গানটি নির্মিত। এ গানে আদিবাসী এই জনগোষ্ঠীর নিজস্ব সংস্কৃতি ও মাতৃভাষার চেতনায় জাগ্রত হওয়ার প্রতি ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে। সাঁওতাল ভাষার গানটিতে কথা ও সুর দিয়েছেন জন হেমব্রম।

সাঁওতাল ভাষা ও সংস্কৃতির চেতনায় ‘এভেন’ ব্যান্ডের যাত্রা শুরু হয় ২০১৮ সালের ০১ মার্চ। ‘এভেন’ শব্দের অর্থ ‘জেগে ওঠা’। সঙ্গীতের স্পৃহায় ভবিষ্যতের কর্ণধার যুবসমাজকে জাগ্রত ও উদ্বুদ্ধ করায় এর মূল লক্ষ্য। ব্যান্ডটির সদস্য ৪ জন। এর সমন্বয়ক এবং ভোকাল-গিটারিস্ট রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী রুহুল আমিন কিস্কু, বেজ গিটারে আছেন ভূতত্ত্ব ও খনিবিদ্যা বিভাগের শিক্ষার্থী রিপন হাঁসদা, রাজশাহী কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী মামুন হেম্ব্রম ড্রামসে এবং লিড গিটারে আছেন সন্তোষ সরেন।

অনুষ্ঠানে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও রাবি চলচিত্র সংসদের সভাপতি ড. সাজ্জাদ বকুল বলেন, বাংলাদেশে নানা জনগোষ্ঠীর মানুষের বসবাস রয়েছে। সাঁওতাল বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম জনগোষ্ঠী। তাদের ভাষা, সামাজিক ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি ভিন্ন। কিন্তু চর্চা ও সংরক্ষণের অভাবে তাদের এ সংস্কৃতি ক্রমে বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। নিজেদের ভাষায় পড়াশোনা করার সুযোগ খুবই কম। তাদের ভাষা-সংস্কৃতি বাঁচিয়ে রাখার দায়িত্ব আমাদের সবার। ‘এভেন’ ব্যান্ড গানের মাধ্যমে তাদের ভাষা ও সংস্কৃতিকে বিশ্বের কাছে তুলে ধরার যে প্রচেষ্টা চালাচ্ছে তা প্রশংসনীয়। তাদের গান এ জনগোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক উন্নয়নেও ভূমিকা রাখবে।

ব্যান্ডটির ভোকাল রুহুল আমিন কিস্কু জানান, ব্যান্ডটি ২০১৮ সালের ১ই মার্চ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ও রাজশাহী কলেজের কয়েকজন শিক্ষার্থী মিলে যাত্রা করে। সঙ্গীতের স্পৃহায় সাঁওতাল যুবসমাজকে সমাজের নানা অসঙ্গতির বিরুদ্ধে জাগ্রত করার লক্ষ্যে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর হাসানুর রহমান, রাজশাহী কলেজের ইংরেজী বিভাগের শিক্ষক স্যামসন হাঁসদা প্রমুখ।

‘‘এভেন মে গাতি রে’ গান-

Leave a comment

উপরে