চারঘাটে ল্যাম্পিং স্কিন ডিজিজ রোগে আক্রান্ত, আতংকিত এলাকাবাসী

চারঘাটে ল্যাম্পিং স্কিন ডিজিজ রোগে আক্রান্ত, আতংকিত এলাকাবাসী

প্রকাশিত: ২৮-১০-২০১৯, সময়: ১৯:২৪ |
Share This

নিজস্ব প্রতিবেদক, চারঘাট : রাজশাহীর চারঘাটে ল্যাম্পিং স্কিন ডিজিজ রোগে প্রায় ৪ শতাধিক আক্রান্ত,আতংকিত গরু খামার ও গরু চাষিরা । বেশকিছু দিন থেকে চারঘাট উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় গরু শরীরে দেখা দিয়েছে এক জাতীয় চর্ম রোগ। এতে গরুর শরীরে বড় বড় চাকা চাকা ক্ষত হয়ে ঘা দেখা দিয়েছে। প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তর থেকে জানা গেছে, এই অসুখটির নাম ল্যাম্পিং স্কিন ডিজিজ রোগ। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে চলতি বর্ষা মৌসুমে সেপ্টেম্বর থেকে মাঝমাঝি সময় থেকে এই রোগটি উপজেলার নিমপাড়া ইউনিয়নে দেখা দেয়। পরে তা আস্তে আস্তে পুরো উপজেলা ছড়িয়ে পড়ে। সূত্রে মতে রোগাক্রান্ত ৩শ৫০ বা তারও অধিক হতে পারে।

উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে প্রায় এলাকাতেই এই রোগ ছড়িয়ে পড়েছে। উপজেলার বড়বড়িয়া এলাকার দিলিপ মন্ডলের ছেলে দিপক জানান তার একটি গরু প্রায় এক সপ্তাহ আগে তার গরু এরোগ আক্রান্ত হয় এবং পশু হাসপাতালে চিকিৎসা করার পড়ে বতর্মানে অনেকটা সুস্থ। শলুয়া এলাকার আতাহারের ছেলে শামীম হোসেন জানান, তার একটি গরু এক মাস পূর্বে এই রোগে আক্রান্ত হয়। তিনি উপজেলার পশু হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ার পরে বতর্মানে সুস্থ। নিমপাড়া ইউনিয়নের কাজিম উদ্দিন বলেন আমার একটি বড় বলদ গরু এই রোগে আক্রান্ত হলে পশু হাসপাতালে চিকিৎসা করাই কিছুটা উন্নত হযেছে। তবে স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা যায়, এই সব রোগাক্রান্ত গরু তড়িঘড়ি করে অল্প দামে বিক্রি করছে এবং এক শ্রেনীর অসাধু কসাইরা তা অধিক লাভের আশায় ঐ সব গরু জবাই করে তা বাজারে বিক্রি করছেন।লোকজন বলছেন

উপজেলা প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তর উপ-সহকারী প্রানী সম্পদ কর্মকর্তা আব্দুল হাকিম বলেন, বর্ষা মৌসুমে মশা-মাছি অপদ্রব বেশী হওয়ায় ভাইরাস জনিত এই রোগটি দেখা দিয়েছে। তবে এক সপ্তাহ অথবা এক মাস ছিকিৎসা করলে এই রোগটি ভালো হয়ে যাবে।

এব্যাপারে উপজেলা প্রাণী সম্পদ ভেটেরিনারী সার্জন ডাঃ নাজনিন নাহার জানান, ল্যাম্পিং স্কিন ডিজিজ রোগে আক্রান্ত গরুর শরীরে চামড়া ফুলে যায়, জ¦র ও ব্যথা এবং চামড়ায় ক্ষত হয়। গরু রোগে আক্রান্ত নিয়মিত চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। তিনি বলেন এটা ভাইরাস জনিত রোগ তাই জ¦র বেদনানাশক এন্টিবায়টিক দেয়া হচ্ছে। এতে আতংকিত না হওয়ার জন্য পরার্মশা দেন। তবে এই রোগে প্রথমে পরিস্কার পরিছন্ন ,মশারি ব্যবহার করা, স্প্রে ও মশা-মাছি থেকে দুরে রাখা হলে এই রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব হবে।

Leave a comment

উপরে