বাগমারায় জেলা প্রশাসকের মামলায় হয়রানির শিকার সাংবাদিক পরিবার

বাগমারায় জেলা প্রশাসকের মামলায় হয়রানির শিকার সাংবাদিক পরিবার

প্রকাশিত: 16-10-2019, সময়: 19:20 |
Share This

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাগমারা : রাজশাহীর বাগমারায় জলমহাল ইজারাকে কেন্দ্র করে জেলা প্রশাসকের সার্টিফিকেট মামলায় হয়রানির শিকার হয়েছে সাংবাদিক পরিবার। জেলা প্রশাসকের করা মামলা নিয়ে বিপাকে পড়েছেন তারা। যে মামলায় ৩২ হাজার ৫শত টাকার দাবীকৃত মামলায় সুদ এসেছে ৩১ হাজার ৫শত টাকা। এ নিয়ে বিষ্ময় প্রকাশ করেছে ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা। বুধবার এ ঘটনা থেকে অব্যাহতি চেয়ে জেলা প্রশাসক বরাবর একটি লিখিত আবেদন করেছেন ভুক্তভোগী পরিবারের লোকজন।

ভুক্তভোগীদের করা আবেদন সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ১১ নং গনিপুর মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির পক্ষ ২০০১-০২ অর্থ বছরে উপজেলার ওয়াশিলা দাড়া (জলমহাল) তিন বছরের জন্য জেলা প্রশাসকের কার্যালয় হতে টেন্ডারের মাধ্যমে লীজ গ্রহণ করা হয়। তৎকালীন সময়ে তিন বছরের মধ্যে বছরের টাকা সরকারের কোষাগারে প্রদান করেছিলেন উক্ত মৎস্যজীবী সমিতি।

সে সময় ওই সমিতির সাধারণ সম্পাদক পদে দায়িত্ব থাকা মসলেম আলী মন্ডল ২০০১ মৃত্যুবরণ করেন। এদিকে মসলেম আলী মন্ডলের মৃত্যুর পরে ১১ নং গনিপুর মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন উক্ত সমিতির পরিচালনা পরিষদের সদস্য জনৈক আাব্দুল আজিজ।

সেই থেকে তারাই সমিতিটি এখন পর্যন্ত পরিচালনা করে চলেছেন। তৎকালীন সময়ে লীজকৃত এক বছরের বকেয়া টাকা পরিশোধের জন্য সমিতির সভাপতি/ সম্পাদকের নামে নোটিশ প্রদান না করে রহস্য জনক কারনে ওই সমিতির বর্তমান সম্পাদকের প্ররোচণায় পড়ে বেআইনী ভাবে মৃত মসলেম আলী মন্ডলের পরিবারের সদস্যদের নামে মামলা করে।

সার্টিফিকেট মামলার বিষয়টি মৃত মসলেম আলী মন্ডরের পরিবারের সদস্যরা অবগত হওয়ার পর বিষয়টি নিয়ে চলমান ১১ নং গনিপুর মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির সভাপতি এবং সম্পাদকের উপরে মামলাটি নিষ্পত্তির লক্ষ্যে স্থানীয় ভাবে চাপ প্রয়োগ করা হয়।

এছাড়াও জেলা প্রশাসক বরাবর বেশ কয়েকটি লিখিত অভিযোগের মাধ্যমে জানানো হয় যে বকেয়া টাকা পরিশোধের জন্য সমিতির সভাপতি/ সম্পাদক বরাবর নোটিশ প্রদানের জন্য লিখিত ভাবে আবেদন করা হলেও সেটা এখন পর্যন্ত আমলে নেয়া হয় নি।

উপরে