ইভটিজিং বিরোধী রাজশাহীর ডিসির বিশেষ অভিযান শুরু

ইভটিজিং বিরোধী রাজশাহীর ডিসির বিশেষ অভিযান শুরু

প্রকাশিত: ১৭-০৮-২০১৯, সময়: ১৫:৫৯ |
Share This

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহীতে ইভটিজিং বিরোধী অভিযান শুরু করেছে জেলা প্রশাসন। এ জন্য জেলা প্রশাসন থেকে বিশেষ ভ্রাম্যমাণ আদালত গঠন করা হয়েছে। শনিবার বিকেল থেকে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান শুরু করে। জেলা প্রশাসকের ফেসবুক আইডিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

রাজশাহী জেলা প্রশাসকের নিজস্ব ফেসবুক আইডিতে বলা হয়েছে ‘‘ইভটিজিং বিরোধী ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান শুরু করা হয়েছে। এটি চলতে থাকবে। সাথে সাথে অনিয়ন্ত্রিত গতিতে মোটরসাইকেল চালনা, নিরিবিলি বসে গাঁজা বা মাদক সেবন ইত্যাদি অভিযানও চলবে। যারা ইভটিজিং এর শিকার তারা ভয় না পেয়ে থানায় বা উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অবহিত করুন। আপনি প্রতিবাদ শুরু করলে আরো অনেকে সাহসি হবে।’’

এর আগে শুক্রবার সন্ধ্যার আগে উঠতি বয়সী সন্তানদের সামলাতে অভিভাবকদের প্রতি হুঁশিয়ারি দিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেন রাজশাহী জেলা প্রশাসক হামিদুল হক। সন্তানদের খোঁজখবর রাখার অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেছেন, ইভটিজার হিসেবে আটক হলে জেল জরিমানা হতে পারে।

রাত ১২টা পর্যন্ত এ পোস্টে এক হাজার লাইক এবং পৌনে দুইশো শেয়ার ও মন্তব্য এসেছে। মন্তব্যে রুয়েট শিক্ষকের স্ত্রীর যৌন হয়রানি ও প্রতিবাদ করায় শিক্ষক হামলার শিকারের বিষয়টিও উঠে এসেছে।

আতিকুর রহমান নামের এক ব্যক্তি তার মন্তব্যে লিখেছেন, ‘স্যার ইভটিজার, বখাটে, ছিনতাইকারী মুক্ত রাজশাহী চাই এবং সে সাথে নজর রাখতে হবে যাতে কোন নিরাপরাদ কোন ছেলে মেয়ে হয়রানির শিকার না হয় ভুল হলে ক্ষমা করবেন স্যার।’

রাশেল নামের আরেকজন লিখেন, স্যার, যাদের কারনে ইফটিজিং হয় মানে যে মেয়েরা অসামাজিক পোশাক ব্যবহার করে তাদের কি কোন শাস্তি হবেনা? যারা ইফটিজিং করে তারা ও যারা ওড়না বাদে ছোট জামা কাপড় পড়ে নিজেকে আবেদনময়ি করে তুলতে চেষ্টা চালাই এই দুই ধরনের মানুষ কেই শাস্তির আওতায় আনা প্রয়োজন।

তবে মাহবুব টুঙ্কু নামের আরেকজন লিখেন, শাস্তিতে সমাধান খুঁজলে কোন লাভ হবে না, সমস্যার গোড়ায় হাত দিতে হবে। এ ধরনের অপরাধী একদিনে তৈরী হয় না।

উপরে