রাজশাহী নগরে ১ জুলাই থেকে লাল-সবুজ অটোরিকশা

রাজশাহী নগরে ১ জুলাই থেকে লাল-সবুজ অটোরিকশা

প্রকাশিত: 10-06-2019, সময়: 19:10 |
Share This

নিজস্ব প্রতিবেদক : আগামী ১ জুলাই থেকে রাজশাহী মহানগরী এলাকায় সকাল-বিকাল দুই শিফটে চলাচল করবে লাল-সবুজ রঙের ব্যাটারি চালিত অটোরিকশা ও চার্জার রিকশা। অটোরিকশা ও চার্জার রিকশা চলাচলে শৃঙ্খলা আনয়নের লক্ষ্যে এ ব্যাপারে একটি নীতিমালা প্রস্তুত করেছে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন। সোমবার দুপুরে নগর ভবনের সরিৎ দত্ত গুপ্ত সভাকক্ষে মহানগরীর ইজিবাইক মালিক-শ্রমিক সমবায় সমিতি ও ইজিবাইক শ্রমিক ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দের সঙ্গে সিটি কর্পোরেশনের মাননীয় মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটনের এক মতবিনিময় সভায় এসব তথ্য জানানো হয়।

মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, বিগত মেয়াদে আমি অটোরিকশা ও চার্জার রিকশা চলাচলে অনুমতি দিয়েছিলাম। বিগত কয়েক বছরে অটোরিকশা ও চার্জার রিকশার সংখ্যা ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেয়ে দুর্ভোগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এজন্য নগরবাসীর চলাচলে সুবিধা আনতে ও যানজট নিরসরে অটোরিকশা ও চার্জার রিকশা চলাচলে শৃঙ্খলা আনার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। নগরীতে দিনে দুই শিফটে লাল-সবুজ রঙের অটোরিকশা ও চার্জার রিকশা চলাচল করবে। আগামী ১ জুলাই থেকে এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের মাধ্যমে সারাদেশে দৃষ্টান্ত হবে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন। এ ব্যাপারে রাজশাহী মহানগর পুলিশসহ সকলের সহযোগিতা কামনা করেছেন মেয়র।

মতবিনিময় সভায় ব্যাটারি চালিত অটোরিকশা ও চার্জার রিকশা চলাচলে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক প্রস্তুতকৃত নীতিমালা পড়ে শোনান প্রধান প্রকৌশলী আশরাফুল হক।

নীতিমালায় উল্লেখ করা হয়েছে, সকল ব্যাটারি চালিত অটোরিকশা ও চার্জার রিকশার অনলাইন নিবন্ধন আগামী ১ জুলাই থেকে শুরু হবে। ৩০ জুনের পর মহানগরীতে সরু চাকার কোন রিকশা চলাচল করতে পারবে না। যে সকল অটোরিকশা ও চার্জার রিকশার মালিক রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের ভোটার/ নাগরিক নয়, তাদের রেজিস্ট্রেশন বাতিল হবে। কোন অটোরিকশা ও চার্জার রিকশার মালিকের নামে ৫টির অধিক অটোরিকশা ও চার্জার রিকশা থাকলে ৫টি বহাল রেখে বাকিগুলোর রেজিস্ট্রেশন বাতিল হবে। যে সকল অটোরিকশা ও চার্জার রিকশার রেজিস্ট্রেশন ৫ বছর পূণ হয়নি, মালিকগণ এসব অটোরিকশা ও চার্জার রিকশা নবায়ন ফি প্রদান করে নবায়ন করতে পারবেন। অটোরিকশা ও চার্জার রিকশা দুই ভাগে বিভক্ত হবে ও জোড় সংখ্যার রঙ সবজু ও বিজোর সংখ্যার রঙ লাল হবে। নিবন্ধন কার্ডের নম্বর অনুযায়ী বিজোড় সংখ্যা লাল ও জোড় সংখ্যা সবুজ রঙ এর সম্পূর্ণ হুড ও যান রঙ করে ব্যবহার করতে হবে। মাসের প্রথম সপ্তাহে সকাল ৬টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত লাল রঙ এবং দুপুর ২টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত সবুজ রঙ এর অটোরিকশা ও চার্জার রিকশা চলাচল করবে। পরের সপ্তাহে সকাল ৬টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত সবুজ রঙ এবং দুপুর ২টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত লাল রঙ এর অটোরিকশা ও চার্জার রিকশা চলাচল করবে। শুক্রবার ও সরকারি ছুটির দিন এবং রাত ১০টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত উভয় রঙের অটোরিকশা ও চার্জার রিকশা চলাচল করতে পারবে। রুট প্ল্যান অনুযায়ী যানবাহন চলাচল করবে। যানবাহনগুলি নিবন্ধন কার্ড ব্যতিত মহানগর এলাকায় চলাচল করতে পারবে না। মালিক, চালক ও অটোরিকশা ও চার্জার রিকশার পৃথক পৃথক নিবন্ধন থাকবে। রিকশা চালকদের সিটি কর্পোরেশন থেকে পরিচয়পত্র প্রদান করা হবে। সকল চালকদের নির্দিষ্ট পোষাক পরিধান করতে হবে।

রাসিকের প্যানেল মেয়র-১ ও ১২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সরিফুল ইসলাম বাবুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় সাবেক দায়িত্বপ্রাপ্ত মেয়র ও ২১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নিযাম উল আযীম, ১৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন, ১৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শহিদুল ইসলাম, সংরক্ষিত ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর উম্মে সালমা, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শাওগাতুল আলম, আরএমপির ডিসি (ট্রাফিক) অনির্বান চাকমা, প্রধান প্রকৌশলী মোঃ আশরাফুল হক, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা শাহানা আখতার জাহান, মাননীয় মেয়রের একান্ত সচিব আলমগীর করিব, প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শেখ মোঃ মামুন, রাজস্ব কর্মকর্তা আবু সালেহ মোঃ নূর-ঈ-সাঈদ, সহকারী প্রকৌশলী (যান্ত্রিক) আহমেদ আল মঈন পরাগ, রাজশাহী মহানগরীর ইজিবাইক মালিক শ্রমিক সমবায় সমিতির সভাপতি শরিফুল ইসলাম সাগর, রাজশাহী মহানগরীর ইজিবাইক শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি রাশেদুজ্জামান রাশেদ, সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলামসহ শ্রমিক সংগঠনের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

উপরে