জনপ্রিয়তা বাড়ছে বরেন্দ্রের আম্রপালির

জনপ্রিয়তা বাড়ছে বরেন্দ্রের আম্রপালির

প্রকাশিত: ১০-০৬-২০১৯, সময়: ১১:৩৭ |
Share This

আসাদুজ্জামান মিঠু : বরেন্দ্র অঞ্চলজুড়ে আম্রপালির জনপ্রিয়তা ক্রমেই বেড়ে চলেছে। আম চাষে অনেকেই সফলতার মুখ দেখছেন। দেশীয় জাতের আম গোপাল ভোগ, ফজলি কিংবা ল্যাংড়ার চেয়ে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট উদ্ভাবিত আঁশবিহীন সুস্বাদু, আম্রপালির বারি-৩ চাষে কৃষকও চাষীরা ঝুঁকে পড়ছেন। আগে শৌখিন আম চাষীরা অল্প পরিসরে চাষাবাদ করলেও বর্তমানে তা বাণিজ্যিকভাবেও গড়ে উঠেছে সুস্বাদু আম্রপালি বারি-৩ আমের বাগান।

সবচেয়ে বেশি আম্্রপালি চাষাবাদ হচ্ছে,বরেন্দ্র অঞ্চল হিসাবে পরিচিত চাঁপাইনবাবঞ্জে সদর উপজেলা আমনুরা এলাকা, নাচোল, রহণপুর, নওগাঁর, পোরশা, নিয়ামতপুরে। এছাড়া রাজশাহীর তানোর, গোদাগাড়ী অঞ্চলগুলোতে আম্রপালি চাষাবাদ শুরু হয়েছে। এসব এলাকায় এখন বাগানে বাগানে সোভা পাচ্ছে আম্রপালি। ছোট গাছে আম ধরে মাটিতে হেলে পড়েছে থোকা, এসব দেখে সড়কে চলাচলরত অনেক পথচারীর নজর কাড়ছে অল্প সহজেই।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ হর্টিকালচার সেন্টার ও জেলা কৃষি সম্প্রাসারণ অধিদপ্তরের তথ্য মতে,২০১৩ সালে জেলায় মাত্র ৫২ বিঘা জমিতে আম্্রপালি চাষ শুরু করা হয়। ২০১৪ সালে হয় ৭৫ বিঘা। ২০১৫ সালে বেড়ে আম্রপালি চাষ হয় ১১২ বিঘা জমিতে। ২০১৬ সালে তা ব্যাপক বিস্তার হয়ে জেলাই আম্রপালি চাষ হচ্ছে ৩২১ বিঘা জমিতে। সর্বশেষ ২০১৮-২০১৮ সালে চাষাবাদ বেড়ে দাড়ায় ৮৫০ হেক্টর জমিতে। এছাড়াও নওগাঁ জেলাতেও আম্্রপালি চাষ হয়েছে ব্যাপক হারে। বাড়ছে রাজশাহী জেলাতেও।

বরেন্দ্র অঞ্চলের চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার সদর উপজেলার ঝিলিম ইউনিয়নের জামতলা এলাকায় আসলাম নামের এক ব্যাক্তি সড়কের ধার ঘিষে তিন বিঘা জমিতে আম্রপালি চাষাবাদ করছেন। তার বাগানে সোভা পাচ্ছে থোকায় থোকায় আম। সরেজমিন বাগানে শুক্রবার কথা হয় তার সাথে।

তিনি বলেন, মাত্র চার বছর আগে তিন বিঘা জমিতে ৩০০ আম্্রপালি গাছ লাগায়েছিলেন তিনি। দ্বিতীয় বছর থেকেই আম ধরা শুরু। গত বছর এ তিন বিঘা আম বাগান থেকে আম বিক্রি করে দেড় লাখ আয় করেছেন। চলতি বছর আরো বেশি হবে বলে আশা করছেন তিনি।

নাচোল উপজেলার নিজামপুর গ্রামের আম্রপালি বানিজ্যিক ভাবে চাষাবাদ করছেন রবিউল ইসলাম। কথা হয় তার সাথে, তিনি জানান, চাপাইনবাবগঞ্জ হর্টিকালচারের পরামর্শে তিনি দুই বছর আগে তার ৫ বিঘা জমিতে আম্্রপালি গাছ রোপন করেছেন। এ বছর প্রথম আম ধরেছে। রোপনের অল্প সময়ের আম ধরায় খুশি তিনি।

তিনি আরো জানান, ধানসহ অন্য ফসল করে লোকসান হচ্ছে। তাছাড়া অন্য আমের জাত লাগালে জায়গা ও সময় দুইট বেশি লাগে,আর আম্রপালিতে দুইট কম লাগায় অল্প সময়ে বেশি লাভ হচ্ছে। তাই তিনি আম্রপালি চাষাবাদ করেছেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ হর্টিকালচার সেন্টারের উদ্যান জার্মপ্লাজম অফিসার জহুরুল ইসলাম জানান, আম্্রপালি গাছ বামন আকৃতির ও ঝোপালো। ছোট হওয়া সত্ত্বেও অন্যান্য জাতের আমগাছের সমান বয়স ধরে বাঁচে। দেশের সব এলাকায় ও সব মাটিতে উপযোগী। অল্প জমিতে বেশি ও লাগানো যায়। এমনকি বাড়ির ছাদে টপেও হয়। এ জাতটি জমিতে মিশ্রভাবে আবাদ করা যায়। প্রথম বছরেই ফল দেয়। আঁশবিহীন সুস্বাদু, আম্রপালির বারি-৩ চাষের বরেন্দ্র অঞ্চলে জনপ্রিয়তা ক্রমেই বাড়ছে।

এ কর্মকর্তা আরো জানান, প্রায় ২৫ বছর আগে এ জাতটি পাশের দেশ ভারত থেকে বাংলাদেশে আসে। পরবর্তিতে বাণিজ্যিকভাবে আম্রপালি বারি-৩ আম চাষ বরেন্দ্র অঞ্চলসহ পুরো দেশে ছড়িয়ে দেয়া হয়। এর আগে ১৯৯৩ সালে জাতীয় আম প্রদর্শনীতে সর্ব প্রথম আমের গুণগত মান দেখে আম্রপালি আম চাষের প্রতি আমাদের দেশে সবার দৃষ্টি আকৃষ্ট হয়।

Leave a comment

আরও খবর

  • পবায় বড় ব্যবধানে মুনসুর চেয়ারম্যান নির্বাচিত
  • চারঘাটে আইন শৃংখলা কমিটির সভা
  • পবার ভাইস চেয়ারম্যান হলেন ওয়াজেদ ও আরজিয়া
  • রাজশাহীর ডিসিকে চারঘাটে বিদায় সংবর্ধনা
  • মোহনপুরে ব্রি ধান-৭৪ এর মাঠ দিবস
  • পুঠিয়ায় জেলা প্রশাসকের বিদায় সংবর্ধনা
  • বাঘায় জেলা প্রশাসকের বিদায় অনুষ্ঠান
  • পুঠিয়ায় ফসলী জমি নষ্ট করে পুকুর খনন
  • তানোরে প্রতিবন্ধী স্কুল ছাত্রীর আত্নহত্যা
  • বাগমারায় ঝড়ে কয়েক কোটি টাকার ক্ষতি
  • রাসিকের মাস্টারপ্ল্যান হবে দেশের রোল মডেল : মেয়র
  • বাঘায় প্রতিবন্ধীদের একীভূতকরণ বিষয়ক কর্মশালা
  • বাগমারায় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন পরিষদের কর্মশালা
  • গোদাগাড়ীর ফরজান হত্যায় গ্রেপ্তার ৩ জন রিমান্ডে
  • পুঠিয়ায় শ্রমিক নেতা নুরুল হত্যার নেপথ্যে সমকামিতা



  • উপরে