গাঁয়ের বধূর বাংলা নববর্ষ বরণ

গাঁয়ের বধূর বাংলা নববর্ষ বরণ

প্রকাশিত: ১৪-০৪-২০১৯, সময়: ১১:৪০ |
Share This

মুক্তার হোসেন, গোদাগাড়ী : বাংলা নববর্ষকে বরণ করতে বরেন্দ্র অঞ্চলে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। অতিথিদের মুগ্ধ করতে বসতঘরের মাটির দেয়ালে আলপনা একেছে আদিবাসী ও হিন্দু গাঁয়ের বধূ ও মেয়েরা। রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলা ঝিরকু পাড়া গ্রামে গেলে এখন এমন দৃশ্য চোখে পড়বে।চৈত্রের প্রচণ্ড তাপদাহে অস্থির সবাই। বৈশাখ আসি আসি করছে। বাংলা বছরের প্রথম দিনটি বরণ করে নেয়ার জন্য প্রস্তুত সবাই। বছরের প্রথম দিনে ঘরের সাজে উৎসবের ছোঁয়া বুলিয়ে না দিলেই নয়। বাঙালির প্রাণের এ উৎসব ঘিরে আপন ঘরকে রূপ দিন শান্তির নিবাসে।

উৎসব আর স্বাচ্ছন্দ্য দুটোকেই এক সমান্তরালে রেখে কীভাবে সাজাতে পারেন পুরো বাড়ি, সে পরামর্শ দিয়েছেন গৃহসজ্জাবিদ। বাড়ি বাড়ি মাটির দেয়ালে আলপনা আঁকার ধুম পড়েছে। গ্রামের প্রায় প্রতিটি বাড়িই মাটির দেয়ালে তৈরি। প্রতি বছর বাংলা নববর্ষের আগে প্রতিটি ঘর, বারান্দা, ঘরের বাইরের দেয়াল, এমনকি গোয়াল ঘরের দেয়াল লেপে-পুছে ঝকঝকে-চকচককে করা হয়। পরে নারীরা সেই দেয়ালে যত্ন করে খড়িমাটি ও লাল মাটি ও রং দিয়ে আঁকেন আলপনা আর ফুল-পাতার নকশা। দেয়ালে ফুটে ওঠে চোখজুড়ানো দৃশ্য। পাশাপাশি দেয়ালগুলোর পরিচর্যাও হয়, বাড়ে এর স্থায়িত্ব। লোকজ সংস্কৃতির অংশ হিসেবে আদিবাসী ও হিন্দু নারীরা মাটির বাড়ির দেয়াল ও মেঝেতে এসব চিত্র আঁকেন। তবে এবারের আঁকায় আছে একটু বাড়তি যত্নের ছাপ।

আই হাই রাহী ঝিকুরপাড়া রক্ষাগোলা গ্রাম সমাজ সংগঠনের জনগণ রক্ষাগোলা ঘরকে সাজানোর জন্যই তারা আলপনা একেছে। এই রক্ষাগোলা সংগঠনে প্রায় ৮০টি পরিবার যুক্ত। এই ঘরে তারা নিয়মিত মুষ্টি চাউল সঞ্চয় করে, গ্রামের যাবতীয় সিদ্ধান্ত এই ঘরে বসেই নেই। তাছাড়া ৪-৫ বছর বয়সী শিশুদের নিয়ে এই রক্ষাগোলা ঘরে শিশু পাঠশালা চলে। বাড়িগুলোর নারীরা গত বুধবার নিজ নিজ বাড়ির দেয়ালে আঁকেন নানা চিত্র। গ্রামের গণ্যমান্য ব্যক্তি, স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান বাড়ি বাড়ি গিয়ে এসব আলপনা ও চিত্রকর্ম ঘুরে দেখবেন।

জাতীয় আদিবাসী পরিষদ রাজশাহী জেলা সভাপতি বিমল চন্দ্র বাজোয়াড় বলেন, বাংলা নববর্ষকে বরণ করতে মাটির দেয়ালে আলপনা ও নকশা আঁকা হয়। যেমনভাবে লোকসংস্কৃতির অংশ, তেমনি এতে দেয়ালগুলোও টেকসই হয়। এ সংস্কৃতিকে নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে এবং গ্রামীণ নারীদের কাজের স্বীকৃতি দিতে ব্যতিক্রমীই কাজ করেছে আদিবাসী নারীরা।

আরও খবর

  • বাগমারায় সরকারী জমিতে অবৈধ পাকাঘর নির্মাণের অভিযোগ
  • তানোরে ইয়াবাসহ ৩ ব্যাবসায়ী গ্রেপ্তার
  • আকাশ, স্থল ও নৌ পথে রাজশাহী-কলকাতা যুক্ত শীঘ্রই
  • সোনালী আঁশে ব্যস্ত চাষিরা
  • ভারতীয় হাইকমিশনারের পুঠিয়া রাজবাড়ি পরিদর্শন
  • রাজশাহীতে মাদকদ্রব্য উদ্ধারসহ আটক ৬৭
  • অগ্রণী বিদ্যালয় ও মহাবিদ্যালয়ে কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা ও নবীন বরণ
  • গোদাগাড়ীতে মাঠ সহকারিদের সাইকেল বিতরণ
  • বরেন্দ্র অঞ্চলে খরার কবলে বোরো আমন
  • রাজশাহীতে ছেলেধরা সন্দেহে ৫ এনজিও কর্মীকে গণধোলাই
  • পুঠিয়ায় নিরাপদ ও বিচক্ষণ ব্যবহার বিষয়ে প্রশিক্ষণ কর্মশালা
  • বাগমারায় জমে উঠেছে দলিল লেখক সমিতির নির্বাচনী প্রচারণা
  • গোদাগাড়ীতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পরিচালকের ঝটিকা অভিযান
  • রাজশাহীতে যুবককে অপহরণ করে মুক্তিপণ দাবি, গ্রেপ্তার ২
  • ছেলেধরা গুজবে কান না দেয়ার আহ্বান রাজশাহী পুলিশের



  • উপরে