মোহনপুরে তৃতীয় দিনেও ক্লাস বর্জন

মোহনপুরে তৃতীয় দিনেও ক্লাস বর্জন

প্রকাশিত: ১৩-০৪-২০১৯, সময়: ১৯:০৪ |
Share This

নিজস্ব প্রতিবেদক, মোহনপুর : রাজশাহী ঐতিহ্যবাহী মোহনপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের (ভারপ্রাপ্ত) প্রধান শিক্ষক দিয়ে পরিচালিত হচ্ছে । স্থায়ী প্রধান শিক্ষক না থাকায় প্রতিষ্ঠানে বিশৃঙ্খলা বিরাজ করছে। প্রতিষ্ঠানের একাডেমিক, প্রশাসনিক কার্যক্রমও ব্যাহৃত হচ্ছে । ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সেচ্ছাচারিতায় বদলী চেয়ে এবং স্থায়ী প্রধান শিক্ষকের দাবীতে শনিবার তৃতীয় দিনের মতো ক্লাস বর্জন করেছে শিক্ষার্থীরা।
মোহনপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত) সুলতানা শাহীনের বিরুদ্ধে সেচ্ছাচারিতার,কর্কশ ভাষ্য অভিযোগে ১০ম শ্রেনীর শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ ও ক্লাস বর্জন করেছে গত বুধবার শুরু হওয়া টানা তৃতীয় দিনের মতো আন্দোলন ক্লাস বর্জন করে বিক্ষোভ থাকে। শনিবার বেলা ১২ টায় সহকারী কমিশনার (ভূমি) মিজা ইমাম উদ্দিন ক্লাস বর্জন শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলেন যে আগামী সোমবার মধ্যে সমস্যা সমাধানের আশ্বস্ত করলে শিক্ষার্থী ক্লাসে ফিরে যায়।

উল্লেখ্য প্রধান শিক্ষক সুলতানা শাহীন স্কুলে যোগদানের পর থেকেই সেচ্ছাচারিতা,নিজের খেয়াল খুশিমত বিদ্যালয় আশা-যাওয়া করে। যার সহকারী শিক্ষকদের বিরোধ চরম আকার ধারণ করেছে। যার কারণে বিদ্যালয়ে পাঠদানের মান একেবারে তলানিতে ঠেকেছে। ক্ষমতার অপব্যবহার সহ শিক্ষক-কর্মচারীর অনেকের সাথে অসৌজন্য মূলক আচরণেরও অভিযোগ কয়েকজন শিক্ষক বদলী হয়ে চলে গেছেন। টয়লেট পর্যাপ্ত পানি ব্যবস্থা না থাকা, ছাত্র-ছাত্রীদের আলাদা টয়লেট ব্যবস্থা না থাকা, শিক্ষার্থী অভিভাবকদের সর্ম্পকে বাজে মন্তব্য, ছাত্রীদের স্কুলে হঠ্যাৎ পিরিয়ড শুরু হলে তাদেও ছুটি না দিতে বাজে মন্তব্য করায় শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন প্লেকার্ড হাতে নিয়ে বিক্ষোভ করে শীঘ্রই বদলি করা না হলে, বিদ্যালয়ের পাঠদানও হবে না? ’তাই বদলি না হওয়া পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলবে। তার বদলী নিশ্চত করতে পরবর্তীতে আমরা আরো বড় ধরণের কর্মসূচি দেয়া হবে। ক্লাস রুটিনে প্রধান শিক্ষকের নাম থাকলেও তিনি কোনদিন ক্লাস করেন না। স্কুলের লাইব্রেরী, ল্যাব প্রয়োজনী উপকর ক্রয় না কওে বরাদ্দকৃত টাকা আত্নসাধ করেন। অসুস্থতার কারণে এক শিক্ষার্থী জুতা পরে না আসায় তাকে বিদ্যালয় থেকে ১ সপ্তাহ জন্য সাময়িক বরখান্ত করেন। এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্র ফি প্রায় ৪ লক্ষ টাকা উত্তোলন করেন । ২ লক্ষ ৫০ হাজার কেন্দ্র উন্নয়ন কাজ দেখিয়ে ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা আত্নসাধের অভিযোগ উঠেছে। তিনি প্রায় সময় ছুটি অনুমোদন না নিয়ে বিভিন্ন অজুহাতে স্কুলে উপস্থিত না হয়েও পরবতীতে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করে।মোহনপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত) সুলতানা শাহীন একাধিক বার মুঠোফোনে যোগযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) মিজা ইমাম উদ্দিন জানান, বিষয়টি রাজশাহী জেলা প্রশাসক জানানো হয়েছে তিনি সমস্যা সমাধানে প্রয়োজনী ব্যবস্থা গ্রহন করবেন।

উপ-পরিচালক মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা রাজশাহী অঞ্চল রাজশাহীর ড. শরমিন ফেরদৈাস চৌধুরী সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বিষয়গুলো অফিস চলাকালীন সময়ে তদন্ত করে প্রয়োজনী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

আরও খবর

  • ঘুমের ওষুধ খাইয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইব্রেরিতে নিয়ে ধর্ষণ
  • গোদাগাড়ীতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পরিচালকের ঝটিকা অভিযান
  • রাবি শিক্ষকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগের সত্যতা মিলেছে
  • সাংবাদিক পাইলেই গুলি করে মারব : কুবি ছাত্রলীগ নেতাদের হুমকি
  • রাবি শিক্ষার্থীকে জিম্মি করে বহিরাগত তিন যুবকের চাঁদা দাবি
  • রুয়েটে আইপিই ডে শুরু
  • বাগমারার মোহনগঞ্জ ডিগ্রী কলেজে পাসের হার ৯০.১২
  • রাবিতে শিক্ষক নিয়োগে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা
  • উপশহর মহিলা ডিগ্রী কলেজে এইচএসসিতে পাশের হার ৮২
  • রাবির বড় কুঠি হস্তান্তরের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি
  • এইচএসসিতে সাফল্যের শীর্ষে রাজশাহীর মেয়েরা
  • পাসে শীর্ষে রাজশাহী, জিপিএ-তে বগুড়া
  • এইচএসসিতে রাজশাহী বোর্ডে বেড়েছে পাস ও জিপিএ-৫
  • বিদেশ কেন্দ্রে পাশ ৯৪.০৭ শতাংশ
  • বেড়েছে পাশের হার ও জিপিএ-৫



  • উপরে