বাগমারায় আ.লীগ নেতার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ

বাগমারায় আ.লীগ নেতার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ

প্রকাশিত: ২৪-০৯-২০১৮, সময়: ২০:৪৩ |
Share This

আওয়ামী লীগ নেতা মানিক হোসেনের বাড়িতে পুলিশ ফাঁড়ি

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহীর বাগমারায় এক আওয়ামী লীগ নেতার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠেছে। নিজ বাড়িতে পুলিশ ফাঁড়ি থাকার প্রভাব খাটিয়ে এলাকার সাধারণ মানুষের কাছ থেকে চাঁদাবাজি করা হচ্ছে; এমন দাবি করে বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে। সোমবার এ সব দপ্তরে তিনটি অভিযোগ দেয় এলাকায় কয়েকজন ভুক্তভোগি।

ওই আওয়ামী লীগ নেতার নাম মানিক হোসেন প্রামানিক। তিনি উপজেলার ঝিকড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। এছাড়াও মানিক হোসেন ঝিকড়া ইউনিয়ন পরিষদের ২ নম্বর ওয়ার্ডে সদস্য। তবে তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে মানিক হোসেন বলেন, সামাজিক বিরোধের জের ধরে তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ ও অপপ্রচার চালানো হচ্ছে।

এলাকাবাসীর পক্ষে থেকে ১০ জনের স্বাক্ষরিত একটি অভিযোগে বলা হয়েছে, গত ১৯ জুলাই মানিকের বাড়িতে পুলিশ ফাঁড়ি করা হয়। এর পর থেকে পুলিশের প্রভাব খাটিয়ে মামলায় আসামী করা ও আসামী করার ভয়ভিতি দেখিয়ে এলাকার সাধারণ মানুষের কাছে চাঁদা আদায় করছে।

অভিযোগপত্রের এক নম্বর স্বাক্ষরকারি আব্দুর রাজ্জাক বলেন, গত ২৩ অক্টোবর বাগমারা থানা পুলিশ একটি বিস্ফোরক মামলা দায়ের করে। যেখানে ৫১ জনের নাম উল্লেখ করে শতাধিক আসামী করা হয়। সে মামলায় মানিক হোসেন স্বাক্ষি রয়েছেন। এ মামলার আসামী ও ওই মামলায় ঢুকিয়ে দেয়ার নাম করে এলাকার লোকজনের কাছ থেকে পুলিশের নামে চাঁদাবাজি করা হচ্ছে। এছাড়াও মানিকের বিরুদ্ধে পুকুর ও জমি দখলের অভিযোগ রয়েছে। এসব করে মানিক হোসেন ফ্লাট বাড়ি নির্মাণ করেছেন বলে জানান আব্দুর রাজ্জাক।

আবুল কালাম নামের একজন তার অভিযোগে উল্লেখ্য করেছেন, অন্য সমাজের সঙ্গে কোরবানী দেয়ার কারণে তার কাছ থেকে ছয় হাজার টাকা চাঁদা নেয়া হয়েছে। তবে তার এই অভিযোগের প্রেক্ষিতে কালামের কাছ থেকে সামাজিক বিচারের মাধ্যমে তিন হাজার টাকা নেয়া হয়েছে বলে স্বীকার করেন মানিক হোসেন।

রফিকুল ইসলাম নামের আরেকজন তার অভিযোগে উল্লেখ করেছেন, মিথ্যা ধর্ষণের অভিযোগ তুলে তার কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা চাঁদা নিয়েছেন। এর আগে বাড়িতে ডেকে নিয়ে গিয়ে মারধর ও হুমকি দিয়ে ধর্ষণের কথা স্বীকার করিয়ে ওডিও রেকর্ড করে নেয়। পরে তাকে সালিশ বৈঠকে নেয়া হয়। তবে গ্রাম্য সালিশ বৈঠকে ধর্ষনের কথা স্বীকার করায় তার কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে বলে জানান মানিক হোসেন।

বাগমারা থানার ওসি নাছিম আহম্মেদ বলেন, মানিক হোসেনের বাড়ি ভাড়া নিয়ে অস্থায়ী পুলিশ ফাঁড়ি করা হয়েছে। সেটি দ্রুত স্থানান্তর করার প্রক্রিয়া চলছে। তবে পুলিশের নামে মানিক কারও কাছ থেকে চাঁদা নিয়েছে এমন অভিযোগ শুনেননি বলে জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।

Leave a comment

আরও খবর

  • নাটোরের বাসুদেবপুরে ট্রেনের ধাক্কায় বাইক আরোহী নিহত
  • ঢাবি `ঘ` ইউনিটের ফলাফল স্থগিত
  • বাগমারায় নিখোঁজ আ.লীগ নেতার সন্ধান চেয়ে এলাকাবাসীর বিক্ষোভ
  • ৬০ বারের মতো পেছালো সাগর-রুনি হত্যা মামলার প্রতিবেদন
  • ‘কমিশনার মাহবুবের নোট অব ডিসেন্ট যথার্থ’
  • মৃত্যুদণ্ড বাতিল করেছে বিশ্বের যেসব দেশ
  • ফের সভা বর্জন নির্বাচন কমিশনারের
  • যুবরাজের দুটি বিশ্ব রেকর্ডে ভাগ বসিয়েছেন জাজাই
  • নাচোলে ৪ জেএমবি গ্রেপ্তার
  • রাজধানীতে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনা, নিহত ৩
  • ‘বঙ্গবন্ধু বললে যেমন বাংলাদেশ, তেমনি নৌকা বললে বোঝায় উন্নয়ন’
  • ময়মনসিংহে বন্দুকযুদ্ধে মাদক ব্যবসায়ী নিহত
  • টাঙ্গাইলে বন্ধুকযুদ্ধে চরমপন্থী নেতা নিহত
  • বাগমারায় আ.লীগ নেতা নিখোঁজ
  • প্রথম পর্যায়ে ৮৪ হাজার ইভিএম কিনতে চায় ইসি


  • উপরে