সোনালী অতীত আবার ফিরছে রেশম শিল্পে

সোনালী অতীত আবার ফিরছে রেশম শিল্পে

প্রকাশিত: ১২-০৮-২০১৮, সময়: ২৩:৫৯ |
Share This

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : এক সময় রেশমের অতীত ঐতিহ্য কেবলই ইতিহাস ছিল। কিন্তু বর্তমানে আবারও হারানো অতীত ফিরে পেতে যাচ্ছে এই রেশম শিল্প। রেশমপোকার গুটি থেকে তৈরি হয় এর সুতা। পরে সুতা থেকে কাপড় এবং এজন্যই এই কাপড়কে রেশম কাপড় বা সিল্ক বলে। আমাদের দেশে রাজশাহীকে সিল্ক সিটি হিসেবে আখ্যায়িত করা হয় কারণ রাজশাহীতেই রয়েছে সিল্ক বা রেশম তৈরির কারখানা। রেশমগুটি বা কোকুন দেখতে অনেকটা কবুতরের ডিমের ন্যায়।

কোকুন তৈরি হতে তিনদিন সময় লাগে। কোকুনের আকৃতি ও রঙে ভিন্নতা পরিলক্ষিত হয়। ৮ দিনের মধ্যে গুটির ভেতর শুককীট পিউপায় পরিণত হয়। পিউপায় পরিণত হওয়ার পূর্বেই কোকুন গরম পানিতে সিদ্ধ করে ভেতরের পোকাটি মেরে ফেলতে হয়। এই কোকুন থেকেই রেশম সুতা সংগ্রহ করা হয়।

আমাদের দেশের রাজশাহী অঞ্চলকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছিল এই রেশম শিল্প। কিন্তু নানা রকম প্রতিবন্ধকতা ও সমস্যার কারণে ধীরে ধীরে হারিয়ে যেতে বসেছে এই শিল্প। ২০০২ সালে তৎকালীন বিএনপি সরকার রেশমের কারখানা বন্ধ করে দেয়। এরপর সরকারি ভাবে আর রেশম কারখানায় লুমের চাকা ঘোরেনি। যদিও ব্যাক্তিগত উদ্যোগে গুটি কয়েক মানুষ এই পেশার সাথে নিয়োজিত ছিলেন। কিন্তু নানা রকম প্রতিবন্ধকতায় তারাও এই কুটির শিল্পের এই অংশকে উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ দিতে ব্যর্থ হয়েছেন।

বর্তমান সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় আবার সুদিনের আশায় আছে রেশম শিল্প। রাজশাহীর নব নির্বাচিত মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন তাঁর নির্বাচনী ইশতেহারে জোর দিয়েছেন রাজশাহীর ঐতিহ্য তথা দেশের ঐতিহ্য এই রেশম শিল্পের উপর। সম্প্রতি রেশম বোর্ডের সদস্য ও এমপি ফজলে হোসেন বাদশা পাঁচটি পাওয়ার লুমের মাধ্যমে চালু করেন বন্ধ হয়ে যাওয়া রেশম কারখানা। পুরোনো লুম গুলো দীর্ঘ দিন চালু না হওয়ার কারণে মেরামত করা হচ্ছে। পর্যায়ক্রমে সব লুম চালু হবে এবং আবার প্রাণ ফিরে পাবে রাজশাহীর রেশম কারখানা গুলো।

রাজশাহীর রেশম কারখানা পুনরায় চালু করা নগরবাসীর দীর্ঘ দিনের দাবি ছিল। একসময় দেশের রেশমের পরিচিতি ছিল জগৎ জোড়া। এজন্য রেশম শিল্পকে আবার ত্বরান্বিত করার জন্য ভারত ৩০ কোটি টাকা অনুদান প্রদান করেছে এবং সরকার দেবে আরো ২ কোটি টাকা। রেশম শিল্পকে এগিয়ে নিতে এই টাকা তুত চাষীদের ঋণ হিসেবে প্রদান করা হবে।

রেশম শিল্পের হারানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে বর্তমান রাজশাহীর এমপি, মেয়র সবাই বদ্ধ পরিকর। সরকার দেশের ঐতিহ্য টিকিয়ে রাখার জন্য নিয়মিত কাজ করে যাচ্ছে। দেশের ঐতিহ্যকে পুনরুদ্ধারের মাধ্যমে দেশের, দেশের মানুষের উন্নয়ন করা, তাদের পাশে এসে দাঁড়ানোই বর্তমান সরকারের প্রধান লক্ষ্য এবং সেই অনুযায়ী কাজ করে যাচ্ছে বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আরও খবর

  • মোহনপুরের বিলে অবৈধভাবে পুকুর খননের মহোৎসব
  • রাবির প্রথম শহীদ মিনারটি সংরক্ষণের উদ্যোগ
  • দুর্গাপুরে আগুনে পুড়ে নারীর মৃত্যু
  • অবৈধভাবে পুকুর খননে দুর্গাপুরে ইউপি চেয়ারম্যানের জেল
  • মোহনপুরে আন্ত:স্কুল ফুটবল টূর্ণামেন্টে চ্যাম্পিয়ন পাকুড়িয়া
  • তানোরে পূর্ব শক্রুতার জেরে কৃষকের জমির আলু ডুবালো নলকুপ অপারেটর
  • চারঘাটে আন্তঃ প্রাথমিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ
  • বাঘায় দুঃস্থ শিক্ষার্থীদের মাঝে বঙ্গবন্ধু আলোকিত পরিষদের শীতবস্ত্র বিতরণ
  • বাগমারায় আ.লীগ নেতার মায়ের মৃত্যুতে এমপি এনামুল হকের শোক
  • বাগমারায় শ্বশুর বাড়িতে জামাইয়ের মৃত্যু নিয়ে রহস্য
  • পুঠিয়া উপজেলা নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশী এ্যাড: সামাদের গণসংযোগ
  • বাগমারার খোর্দ্দঝিনা গ্রামে বিদ্যুৎ সংযোগের উদ্বোধন
  • রাজশাহীতে সামাজিক সংস্থার শীতবস্ত্র বিতরণ
  • বাঘায় ব্যাংক এশিয়ার কম্বল বিতরণ
  • দুর্নীতিকে ‘লাল কার্ড’ দেখাতে চান রাজশাহীর এমপিরা


  • উপরে