জেলার শীর্ষ পদে নজর রাজশাহীর এমপিদের

জেলার শীর্ষ পদে নজর রাজশাহীর এমপিদের

প্রকাশিত: 16-11-2019, সময়: 15:22 |
Share This

নিজস্ব প্রতিবেদক : আগামী ৪ ডিসেম্বর রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সম্মেলনের দিন ঘোষণার পর অনেকেই প্রস্তুতি নিয়েছেন শীর্ষ পদগুলাতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে। যাদের অধিকাংশই শুরু করে দিয়েছেন প্রচার প্রচারণা।

ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে প্রার্থীতা জানান দেয়ার পাশাপাশি গণমাধ্যমের অফিসগুলোতে বায়োডাটা দিয়েও অনেকেই জানান দিয়েছেন শীর্ষ পদে প্রার্থী হওয়ার বিষয়টি। যাদের মধ্যে রাজশাহীর এমপিরাও রয়েছেন। বিশেষ করে উপজেলা ইউনিটে এমপির দলীয় পদ পাবেন না কেন্দ্রের এমন ঘোষণা আসার পর জেলার দিকে নজর রাজশাহীর এমপিদের। যাদের মধ্যে চারজনই সভাপতি ও একজন সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারেন।

শুক্রবার সকালে ধানমণ্ডির আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এমপিদের উপজেলা পর্যায়ের কমিটিতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থী না হওয়ার আহ্বান জানান দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, যারা এমপি হতে পারেননি, তারা যেন নেতা হওয়ার সুযোগ পায়। তবে জেলা পর্যায়ে সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক হতে পারবেন এমপিরা। কারণ কেন্দ্রের সঙ্গে তাদের সমন্বয় করতে হয়। আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা এ বিষয়ে নির্দেশ দিয়েছেন।

এদিকে, সম্মেলন কেন্দ্র করে আগামী সোমবার (১৮ নভেম্বর) জেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী কমিটির জরুরী সভা ডাকা হয়েছে। জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে বিকেল ৩টায় ডাকা এ সভায় প্রধান অতিথি থাকবেন সম্মেলনের সমন্বয়ক, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন।

জানা গেছে, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে প্রায় দেড় বছর আগে। গত ৮ নভেম্বর রাজশাহী আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের দ্বন্দ্ব নিরসনে কেন্দ্রের বৈঠকে সম্মেলনের দিন ঘোষণা করা হয়। সম্মেলনের দিন ঘোষণার পর মাঠে নেমে পড়েছেন পদ প্রত্যাশীরা। যাদের মধ্যে রয়েছেন এমপিরা।

রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সূত্রমতে, ২০১৪ সালের ৬ ডিসেম্বর রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সর্বশেষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। আর পুর্নাঙ্গ কমিটি অনুমোদন হয় এক বছর পর। ২০১৫ সালের ২৬ নভেম্বর দলের সভাপতি শেখ হাসিনা ৭১ সদস্যের কমিটি অনুমোদন দেন। তবে অনুমোদিত কমিটি জেলায় পাঠানো হয় ৭ ডিসেম্বর। এর আগে সম্মেলনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এ কমিটির সভাপতি নির্বাচিত হন ওমর ফারুক চৌধুরী এমপি ও সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ।

একাধিক সূত্রমতে, এবারের সম্মেলনেও রাজশাহী-১ (গোদাগাড়ী-তানোর) আসনের তিনবারের এমপি ওমর ফারুক চৌধুরী সভাপতি পদে প্রার্থী হবেন। তিনি ছাড়াও সভাপতি পদে প্রার্থী হতে পারেন আরও তিন এমপি। এরা হলেন, রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনের তিনবারের সংসদ সদস্য প্রকৌশলী এনামুল হক, রাজশাহী-৬ (চারঘাট-বাঘা) আসনের তিনবারের এমপি ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এবং রাজশাহী-৫ (পুঠিয়া-দুর্গাপুর) আসনের এমপি ডাঃ মনসুর রহমান। এদের মধ্যে ওমর ফারুক চৌধুরী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, এনামুল হক ও শাহরিয়ার আলম সদস্য এবং মুনসুর রহমান স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন।

বর্তমান এমপিরা ছাড়াও এবার সভাপতি পদে প্রার্থী হতে পারেন রাজশাহী-৬ আসনের সাবেক এমপি রায়হানুল হক রায়হান ও জেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ।

অপরদিকে, সাধারণ সম্পাদক পদে এবার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনের দুইবারের এমপি আয়েন উদ্দিন। তিনি ছাড়াও এ পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারেন রাজশাহী-৫ আসনের দুইবারের সাবেক এমপি আব্দুল ওয়াদুদ দারা।

এছাড়াও জেলা কমিটির বর্তমান যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও বাঘা উপজেলা চেয়ারম্যান লায়েব উদ্দীন লাভলু, বাগমারা উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান জাকিরুল ইসলাম সান্টু, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান মানজাল, বর্তমান সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম আসাদুজ্জামান, আলফোর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক, জেলার দপ্তর সম্পাদক ফারুক হোসেন ডাবলু সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থী হতে পারেন।

Leave a comment

উপরে