ছাত্রলীগ বাঁচলেই বাঁচবে আওয়ামী লীগ

ছাত্রলীগ বাঁচলেই বাঁচবে আওয়ামী লীগ

প্রকাশিত: ২৫-১২-২০১৯, সময়: ১৯:০৬ |
খবর > মতামত
Share This

আবু জুবায়ের : বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রাণ বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। সেই প্রাণ যদি সুশৃঙ্খলভাবে সাজানো না যায় তাহলে দলের ভিত্তি দুর্বল হয়ে যায়,বিরোধীদের তৎপরতা বেড়ে যায়। যা এখন দৃশ্যমান। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ যারা করেন তাদের ৯০% নেতা কর্মী আজ হতাশ কারণ দল ১১ বছর যাবৎ ক্ষমতায় থাকার পরেও ছাত্রলীগ আজ সুসজ্জিত নয়। কিন্তু কেন? কোন নেতারা কি এসব নিয়ে স্টাডি করেন না? ছাত্রলীগ যেন সুসংগঠিত সাংগঠনিক ছাত্রনেতার হাতে দায়িত্বপ্রাপ্ত হয় এসব নিয়ে কি কেউ স্টাডি করেন না?

আজ সকল বিশ্ববিদ্যালয় কমিটি মেয়াদউত্তির্ন,জেলা কমেটিগুলো মেয়াদ উত্তির্ন। তাহলে উপজেলা কমেটির কথা বলাই বাহুল্য। দল ক্ষমতায় থাকার পরেও ছাত্রলীগের এমন করুন দশায় এই শাখা সংগঠনের প্রতি কতজন কর্মী তার ভরসার জায়গা খুজে পাবেন? আর ছাত্রলীগের আদর্শকে ভালবেসে নতুনদের ছাত্রলীগ প্রেমে সংগঠনে যোগ দেওয়ার কথা না হয় পরেই বলা যাক।

বেয়াদবি হলে মাফ চেয়ে নিচ্ছি।আজ কয়টা ছাত্রলীগের ইউনিট সাংগঠনিক ইউনিট,আজ কয়টা ইউনিটে সাংগঠনিক রাজনৈতিক চর্চা হয়,আজ কয়টা ইউনিটে আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তিকে বর্ধিত করনে সেই লক্ষ্যে রাজনৈতিক চর্চা হয়? সবাই আজ পেট ফুলে মরতাছে যে কিছু বললেই যদি দোষের রোষানলে পড়তে হয়? কিন্তু এভাবে সবাই চুপ থাকতে থাকতে ছাত্রলীগ তথা দলের ১৪ টা বাজা অলরেডি শেষ। তাই দলের জন্য বস্তুনিষ্ঠ সমালোচনা করাও দলের নেতা কর্মীদের অন্যতম দায়িত্ব এবং কর্তব্য।

তাই সেন্ট্রাল আওয়ামী লীগ এবং সেন্ট্রাল ছাত্রলীগের নেতাদের নিকট গোটা দেশের ১১১ টি প্রধান শাখা ইউনিটের কর্মীদের বুকের আহাজারি যে,কবে হবে নতুন সম্মেলন। সবাই সেই প্রতিক্ষায় থাকতে থাকতে আশাহত এবং হতাশ হয়ে পড়তেছেন। আর এসবের জন্যই দলের পোষ্টার লাগানোর জন্য কর্মী নেই,টাকা দিয়ে দিন মজুর ভাড়া করতে হয়। আসুন ছাত্রলীগ কে বাচাই,সাংগঠনিক ছাত্রলীগ গড়তে বদ্ধ পরিকর হই, তাহলেই বাচবে আওয়ামী লীগ এবং আওয়ামী লীগের সম্মান।

লেখক:
কার্যনির্বাহী সদস্য,
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ।

উপরে